সৌম্যর ব্যাটে রান

ব্যর্থতার বৃত্ত ভেঙে রানের দেখা পেলেন সৌম্য সরকার। ছোট ছোট স্কোর পেরিয়ে বাঁহাতি এই ওপেনার লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জের বিপক্ষে পেলেন ফিফটি। বোলারদের সৌজন্যে পাওয়া মাঝারি লক্ষ্য তার ব্যাটে সহজেই পেরিয়ে গেল  গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 June 2021, 12:00 PM
Updated : 7 June 2021, 02:04 PM

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ টি-টোয়েন্টিতে ৭ উইকেটে জিতেছে মাহমুদউল্লাহর দল।

বিকেএসপির চার নম্বর মাঠে সোমবার ২০ ওভারে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে ৮ উইকেটে ১৩২ রান করতে পারে রূপগঞ্জ। তাদের ইনিংসে মোট সাতটি ছক্কা থাকলেও ২৫ ছুঁতে পারেননি কেউ। 

সৌম্যর ফিফটিতে ১৩ বল বাকি থাকতেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় গাজী গ্রুপ। আসরে প্রথম পঞ্চাশ ছুঁয়ে ৪৩ বলে ৫৩ রান করেন সৌম্য, ২৯ বলে ৩৪ মুমিনুল।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় রূপগঞ্জ। ইনিংসের চতুর্থ বলে আজমির আহমেদকে ফিরিয়ে দেন অফ স্পিনার মেহেদি হাসান। তিনে নেমে একটি করে চার-ছক্কা হাঁকিয়ে নাসুম আহমেদের শিকার অধিনায়ক নাঈম ইসলাম।

বেশিক্ষণ টেকেননি জাকের আলি। উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে দ্বিতীয় শিকার ধরেন মেহেদি। ওপেনার মেহেদি মারুফ ১০ ওভার টিকলেও রান বাড়াতে পারেননি। তাকে ফিরিয়ে প্রথম উইকেটের দেখা পান মাহমুদউল্লাহ। মেহেদির ২৪ বলে ২৪ রানই শেষ পর্যন্ত হয়ে থাকে ইনিংস সর্বোচ্চ। 

একটি করে চার–ছক্কায় ১২ বলে ১৬ রান করে আল আমিন ফেরার সময় রুপগঞ্জের স্কোর ছিল ৫ উইকেটে ৬৬। এরপর রানের গতি বাড়াতে পারেননি কেউই। সাব্বির রহমান ২১ বলে ১৮ ও সোহাগ গাজী ২০ বলে করেন ২১। শেষ দিকে কাজী অনিকের ৬ বলে অপরাজিত ১৩ রানের সৌজন্যে কোনোমতে ১৩০ পার করতে পারে রূপগঞ্জ।

মাহমুদউল্লাহ, মেহেদি ও মুকিদুল ইসলাম নেন ২টি করে উইকেট। তবে মুকিদুল ৪ ওভারে রান দেন ৩৮। ৪ ওভারে মাত্র ৯ রান দিয়ে নাসুমের প্রাপ্তি একটি।

রান তাড়ায় একটি করে চার-ছক্কায় ১৪ বলে ১৩ করে আউট হন মেহেদি। এরপরই জুটি বাঁধেন সৌম্য ও মুমিনুল। দুজন দারুণ ব্যাটিংয়ে এগিয়ে নেন দলকে।

৮২ রানের জুটিতে দলকে সহজ জয়ের পথে নিয়ে যান মুমিনুল হক ও সৌম্য সরকার।

৩৯ বলে ফিফটি স্পর্শ করেন সৌম্য। এরপরই অনিকের বলে ডিপ মিডউইকেটে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন তিনি। ভাঙে ৮২ রানের জুটি। ৪৩ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কায় ৫৩ রানের ইনিংসটি সাজান সৌম্য। প্রথম তিন ম্যাচে রান ছিল ৯, ১৩ ও ১৪।

পরের ওভারে ফেরেন মুমিনুলও। ২৯ বলে ২ চার ও এক ছক্কায় ৩৪ রান করেন বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক।

বাকিটা সারেন মাহমুদউল্লাহ ও ইয়াসির আলি। মুক্তার আলিকে চার মেরে জয় নিশ্চিত করা মাহমুদউল্লাহ ১২ বলে ১৫ ও ইয়াসির ১০ বলে ১৩ রানে অপরাজিত ছিলেন।

চার ম্যাচে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের এটি দ্বিতীয় জয়। সমান ম্যাচে রুপগঞ্জের তৃতীয় হার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জ: ২০ ওভারে ১৩২/৮ (আজমির ০, মেহেদি মারুফ ২৪, নাঈম ১৩, জাকের ৯, আল-আমিন ১৬, সাব্বির ১৮, সোহাগ ২১, মুক্তার ১১, অনিক ১৩*, শহীদ ০*; মেহেদী ৩-০-২৩-২, নাসুম ৪-০-৯-১, মুকিদুল ৪-০-৩৮-২, মাহমুদউল্লাহ ৪-০-১৯-২, আরিফুল ১-০-১৪-০)

গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স: ১৭.৫ ওভারে ১৩৩/৩ (মেহেদি ১৩, সৌম্য ৫৩, মুমিনুল ৩৪, মাহমুদউল্লাহ ১৫*, ইয়াসির ১৩*; সোহাগ  ৪-০-২০-০, শহীদ ৩-০-২২-১, অনিক ৪-০-৩৪-১, আল-আমিন ২-০-২১-০, মুক্তার ২.৫-০-২৩-০, সামাদ ২-০-১২-১)

ফল: গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স ৭ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: সৌম্য সরকার

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক