ইংল্যান্ডকে উড়িয়ে এগিয়ে গেল ভারত

টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচের পর জায়গা হারানো শিখর ধাওয়ান ওয়ানডেতে ফিরেই নিজেকে মেলে ধরলেন। সঙ্গে আরও তিনটি অর্ধশতকে তিনশ ছাড়ানো পুঁজি গড়ল ভারত। রান তাড়ায় দারুণ শুরু পেলেও অভিষিক্ত প্রসিধ কৃষ্ণা ও শার্দুল ঠাকুরের দারুণ বোলিংয়ে পথ হারিয়ে ফেলে ইংল্যান্ড।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 March 2021, 04:46 PM
Updated : 23 March 2021, 06:21 PM

টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে শুরুটা হার দিয়ে হলেও অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে ওয়ানডে সিরিজের শুরুটা দুর্দান্ত হলো ভারতের। পুনের মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার প্রথম ওয়ানডেতে ৬৬ রানে জিতেছে তারা। স্বাগতিকদের দেওয়া ৩১৮ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ইংল্যান্ড গুটিয়ে গেছে ২৫১ রানে।

তিন ম্যাচের সিরিজে ভারত এগিয়ে গেল ১-০ ব্যবধানে।

তাদের বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেওয়া ধাওয়ানের অবশ্য আক্ষেপ থাকবে কিছুটা। ২ রানের জন্য যে সেঞ্চুরি পাননি বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। তার ১০৬ বলের ইনিংসটি গড়া ১১ চার ও ২ ছক্কায়। সেঞ্চুরি না পেলেও ম্যাচ সেরার পুরস্কার উঠেছে তার হাতে।

পঞ্চম উইকেটে লোকেশ রাহুল ও ক্রুনাল পান্ডিয়ার ৬১ বলে ১১২ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে তিনশ পার হয় ভারতের।

জবাবে জেসন রয় ও জনি বেয়ারস্টোর ১৩৫ রানের উদ্বোধনী জুটিতে জয়ের সম্ভাবনা জোরালো করে ইংল্যান্ড। সেখান থেকে বোলারদের নৈপুণ্যে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় ভারত। ভারতের হয়ে ওয়ানডে অভিষেকে প্রথম বোলার হিসেবে ৪ উইকেট নেন প্রসিধ। আর শার্দুলের প্রাপ্তি ৩টি।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা ভারতের শুরুটা ছিল সাবধানী। পাওয়ার প্লের ১০ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে তারা তোলে ৩৯ রান। ১৬তম ওভারে এসে ভাঙে তাদের ৬৪ রানের উদ্বোধনী জুটি। বেন স্টোকসের বলে কট বিহাইন্ড হন ৪ চারে ২৮ রান করা রোহিত শর্মা।

কোহলি ও ধাওয়ানের ব্যাটে এগোতে থাকে ভারত। আদিল রশিদকে ছক্কায় উড়িয়ে ধাওয়ান ফিফটি স্পর্শ করেন ৬৮ বলে। এরপর রানের চাকায় দম দেন তিনি। মইন আলির ওভারে দুই চার ও এক ছক্কায় নেন ১৫ রান।

দ্রুত রান বাড়াতে থাকেন কোহলিও। ৫০ বলে ফিফটি ছোঁয়ার পর বেশিদূর যেতে পারেননি ভারত অধিনায়ক। ৬ চারে ৫৬ রান করে মার্ক উডের বলে ধরা পড়েন ডিপ স্কয়ার লেগে। ভাঙে ১০৫ রানের জুটি।

শ্রেয়াস আইয়ারকেও টিকতে দেননি উড। নব্বইয়ের ঘরে পৌঁছে দেখেশুনে খেলা ধাওয়ান অলরাউন্ডার স্টোকসের শর্ট বলে পুল করতে গিয়ে ধরা পড়েন মিড উইকেটে। থামে তার ১০৬ বলে ৯৮ রানের ইনিংস।

স্টোকস পরে দ্রুত ফেরান হার্দিক পান্ডিয়াকে। ৩৬ রানের মধ্যে ৪ উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপদে পড়া দলের হাল ধরেন রাহুল ও ক্রুনাল। দুজনেই খেলতে থাকেন হাত খুলে।

বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে ২৬ বলে ফিফটি তুলে নেন অভিষিক্ত ক্রুনাল। ওয়ানডে অভিষেকে দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড এখন তার। আগেরটি ছিল ইংল্যান্ডের জন মরিসের, ১৯৯০ সালে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৫ বলে ফিফটি করেছিলেন তিনি।

রাহুলের ফিফটি আসে ৩৯ বলে। এই কিপার-ব্যাটসম্যান অপরাজিত ছিলেন চারটি করে চার-ছক্কায় ৪৩ বলে ৬২ রান নিয়ে। আর ক্রুনাল ৩১ বল খেলে অপরাজিত ৭ চার ও ২ ছক্কায় ৫৮ করে।

রান তাড়ায় রয় ও বেয়ারস্টোর ব্যাটে উড়ন্ত সূচনা পায় ইংল্যান্ড। দুই জনেই ছিলেন আগ্রাসী। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে প্রসিধকে পরপর দুই বলে চার মারেন রয়। পরের ওভারে তরুণ এই পেসারকে দুই ছক্কা ও দুই চার হাঁকান বেয়ারস্টো।

বাঁহাতি স্পিনার ক্রুনালকে দুটি চার ও একটি ছক্কা মারেন রয়। কুলদিপ যাদবকে চার মেরে ৪০ বলে ফিফটি তুলে নেন বেয়ারস্টো। পরের বলে বাঁহাতি এই রিস্ট স্পিনারকে ছক্কায় ওড়ান তিনি।

১২তম ওভারে এই জুটির রান একশ পূর্ণ হয়। পরের ওভারে ক্রুনালকে টানা দুই ছক্কা মারেন বেয়ারস্টো।

৩৫ বলে ৭ চার ও এক ছক্কায় ৪৬ রান করা রয়কে ফিরিয়ে ভারতকে প্রথম সাফল্য এনে দেন প্রসিধ। নিজে পান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম উইকেটের স্বাদ। ভাঙে ৮৯ বলে ১৩৫ রানের জুটি।

পরে স্টোকসকেও দ্রুত ফেরান প্রসিধ। পরের বলেই পেতে পারতেন তিনি ওয়েন মর্গ্যানের উইকেট। কিন্তু স্লিপে শূন্য রানে ইংলিশ অধিনায়কের ক্যাচ নিতে পারেননি কোহলি।

শার্দুলকে ছক্কায় ওড়ানোর চেষ্টায় বাউন্ডারিতে ধরা পড়েন বেয়ারস্টো। ইংলিশ ওপেনার খেলেন ৬৬ বলে ৯৪ রানের ইনিংস। ৬ চারের পাশে তার ছক্কা ৭টি। পরের ওভারে এসে মর্গ্যান ও জস বাটলারকে ফিরিয়ে ভারতের জয়ের ভিত গড়ে দেন এই পেসার।

এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি ইংল্যান্ড। স্যাম বিলিংস (১৮) ও মইন আলি (৩০) কিছুক্ষণ চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হন। স্যাম কারানকে ফিরিয়ে ওয়ানডেতে প্রথম উইকেট তুলে নেন ক্রুনাল। টম কারানকে আউট করে ভারতের জয় নিশ্চিত করেন প্রসিধ।

আগামী শুক্রবার সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে মুখোমুখি হবে দুই দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত: ৫০ ওভারে ৩১৭/৫ (রোহিত ২৮, ধাওয়ান ৯৮, কোহলি ৫৬, শ্রেয়াস ৬, রাহুল ৬২*, হার্দিক ১, ক্রুনাল ৫৮*; উড ১০-১-৭৫-২, স্যাম ১০-১-৪৮-০, টম ১০-০-৬৩-০, স্টোকস ৮-১-৩৪-৩, রশিদ ৯-০-৬৬-০, মইন ৩-০-২৮-০)।

ইংল্যান্ড: ৪২.১ ওভারে ২৫১ (রয় ৪৬, বেয়ারস্টো ৯৪, স্টোকস ১, মর্গ্যান ২২, বাটলার ২, বিলিংস ১৮, মইন ৩০, স্যাম ১২, টম ১১, রশিদ ০, উড ২*; ভুবনেশ্বর ৯-০-৩০-২, প্রসিধ ৮.১-১-০-৫৪-৪, শার্দুল ৬-০-৩৭-৩, ক্রুনাল ১০-০-৫৯-১, কুলদিপ ৯-০-৬৮-০)।

ফল: ভারত ৬৬ রানে জয়ী।

সিরিজ: ৩ ম্যাচের সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে ভারত।

ম্যান অব দা ম্যাচ: শিখর ধাওয়ান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক