মেহেদি রানার এখন ‘মাথা খুলেছে’

মিরপুর একাডেমি মাঠে তখন একসঙ্গে অনুশীলনে ছিল বিপিএলের তিন দল। আরেক দলের অনুশীলন মাত্রই শেষ হলো। সব মিলিয়ে ক্রিকেটারের মেলা। সোমবার দুপুরে এই ভিড়েও মাঠের এক প্রান্তে গল্পে ডুবেছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান ও মেহেদি হাসান রানা। চলছিল দুজনের হাসি, মজা, খুনসুটি। পরে জানা গেল, কথোপকথনের বিষয়বস্তু ছিল অনেক কিছুই। তবে ক্রিকেটের প্রসঙ্গে মজা করেই গুরুত্বপূর্ণ একটি কথা বললেন মুস্তাফিজ, বিপিএলে এবার মাথা খাটিয়ে বোলিং করছেন মেহেদি রানা।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Jan 2020, 02:34 PM
Updated : 6 Jan 2020, 02:42 PM

এবারের বিপিএলে উইকেট শিকারে তুমুল লড়াই চলছেএই দুই বাঁহাতি পেসারের। সিলেট পর্ব শেষে ৮ ম্যাচে ১৭ উইকেট নিয়ে শীর্ষে চট্টগ্রামচ্যালেঞ্জার্সের মেহেদি রানা, ২ ম্যাচ বেশি খেলে রংপুর রেঞ্জার্সের মুস্তাফিজের উইকেট১টি কম।

শেষ পর্যন্ত শীর্ষে থাকবে কে? মুস্তাফিজের দলেরশেষ চারে ওঠার সম্ভাবনা সামান্যই। তার কণ্ঠে সেটির আক্ষেপ।

“কে এক নম্বরে থাকবে, বলা কঠিন। সবাই চায় সবচেয়েবেশি উইকেট নিতে। আমি চাইব, রানাও চাইবে। অন্যরাও চাইবে। আমি তো ম্যাচ আর বেশি পাবনা। যে কটা পায়, চেষ্টা থাকবে ভালো কিছু করার। রানা হলেও ভালো লাগবে আমার।”

ভালো লাগার একটা বড় কারণ, দুজনের বন্ধুত্ব। একসময়বিসিবির পেস প্রোগ্রামে একসঙ্গে ছিলেন দুজন, পরে জাতীয় পর্যায়ে বয়সভিত্তিক খেলেছেনএকসঙ্গে। ২০১৪ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপেও একসঙ্গে খেলার কথা ছিল দুজনের। কিন্তু চোটেরকারণে সংযুক্ত আরব আমিরাতে সেই টুর্নামেন্টে যেতে পারেননি মেহেদি রানা।

মুস্তাফিজ পরের বছরই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তোলপাড়ফেলে দেন আবির্ভাবেই। মেহেদি রানা তখনও বয়সভিত্তিক পর্যায়ে। খেলেন ২০১৬ অনূর্ধ্ব-১৯বিশ্বকাপে। এরপর অসুস্থতার কারণে তাকে মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছে লম্বা সময়। মুস্তাফিজএগিয়ে গেছেন তরতর করে।

এবার বিপিএলের আগে মুস্তাফিজ যখন নিজেকে হারিয়েখুঁজছেন, মেহেদি রানা তখন বাংলাদেশ ক্রিকেটের মূল স্রোতে সাঁতরে এগিয়ে এসেছেন অনেকটা।বিসিবি একাদশে সুযোগ পেয়েছেন, বাংলাদেশ ইমার্জিং দলেও খেলেছেন। তার পর তো চমকে দিলেনবিপিএলে। প্লেয়ার্স ড্রাফটে তাকে নেয়নি কোনো দল। পরে মাহমুদউল্লাহর পরামর্শে তাকে দলেনেয় চট্টগ্রাম। সুযোগ পেয়ে নিজেকে নতুন করে চেনাতে থাকেন মেহেদি রানা।

মেহেদি রানা যখন বিপিএলে ঝড় তুলেছেন, মুস্তাফিজতখনও বিবর্ণ। প্রথম চার ম্যাচে তার বোলিং সমালোচনার খোরাক জুগিয়েছিল প্রবলভাবে। পরেমুস্তাফিজও ঘুরে দাঁড়িয়ে দুর্দান্ত বোলিং করেন। জমে উঠেছে দুই বন্ধুর লড়াই।

কিছুদিন আগেও যে বোলার ঘরোয়া ক্রিকেটের দলগুলিতেথিতু হতে পারছিলেন না ঠিকমতো, সেই মেহেদি রানা বিপিএলে এত ভালো করছেন কিভাবে? দীর্ঘদিনকাছ থেকে দেখার অভিজ্ঞতায় পার্থক্যটা বললেন মুস্তাফিজ।

“রানার মাথা খুলেছে এখন। আগে তো গিয়ে খালি বোলিংকরত। এখন মাথা খাটিয়ে বোলিং করতে শিখেছে। ব্যাটসম্যান আর পরিস্থিতি বুঝে বল করছে। ভালোলাগছে ওর বোলিং দেখতে। ও যদি সবচেয়ে বেশি উইকেট পায়, আমি খুব খুশি হব।”

মুস্তাফিজের নিজের বোলিংয়ে বড় পার্থক্য দেখাগেছে প্রথম ভাগ আর পরের পারফরম্যান্সে। প্রথম চার ম্যাচে ছিলেন ধারহীন, খরুচে। পরেরম্যাচগুলিতে দারুণ কার্যকর। গতি ছিল ভালো, কাটারের কার্যকারিতাও তাতে বেড়েছে, সিম পজিশনআরও ভালো হয়েছে, বাউন্সার ও স্লোয়ার বাউন্সারের মিশেলও ব্যাটসম্যানদের ভুগিয়েছে। তিনিনিজে অবশ্য এত বেশি পার্থক্য মনে করছেন না বোলিংয়ে।

“শুরুর চেয়ে পরে ভালো বোলিং হয়েছে বটে। তবে খুববেশি কিছু বদলাইনি। আসলে শুরুতে দলের অবস্থা খারাপ ছিল, তাই আমার বোলিংও সেরকম মনেহয়েছে। পরে দলও জিতেছে। আমি ভালো করার চেষ্টা করেছি শুরু থেকেই।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক