সাকিবের অলরাউন্ড পারফরম্যান্সেও বারবাডোজের হার

মেডেন ওভারে শুরু। পরের ওভারগুলোতেও বোলিং হলো দারুণ নিয়ন্ত্রিত। এরপর ব্যাট হাতেও অবদান রাখলেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু এবারের সিপিএলে নিজের প্রথম ম্যাচে ‌এমন অলরাউন্ড পারফরম্যান্সও যথেষ্ট হলো না দলের জয়ের জন্য। রোমাঞ্চকর ম্যাচে সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টসের কাছে ১ রানে হেরেছে সাকিবের বারবাডোজ ট্রাইডেন্টস।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Sept 2019, 05:31 AM
Updated : 29 Sept 2019, 05:32 AM

নতুন বল হাতে ৪ ওভারে ১৪ রানদিয়ে ১টি উইকেট নিয়েছেন সাকিব। পরে খেলেছেন ২৫ বলে ৩৮ রানের ইনিংস। হারলেও বারবাডোজেরপ্লে অফের সম্ভাবনা শেষ হয়ে যায়নি এখনও।

ম্যাচের প্রথম ওভারেই বোলিং পেয়েছিলেনসাকিব। দেননি কোনো রান। পাওয়ার প্লেতে ২ ওভারের প্রথম স্পেলে দেন ৪ রান। তৃতীয় ওভারেদেন ৬ রান। শেষ ওভার বোলিংয়ে আসেন ১৭তম ওভারে। প্রথম বলেই আর্ম ডেলিভারিতে ফেরান প্রতিপক্ষঅধিনায়ক কার্লোস ব্র্যাথওয়েটকে। ওই ওভারেও দেন কেবল ৪ রান।

সেন্ট কিটসের শামারাহ ব্রুকস৩৩ বলে করেন ৫৩ রান। শেষ দিকে ১৩ বলে ২০ করেন ফ্যাবিয়ান অ্যালেন। ২০ ওভারে তোলে তারা১৪৯ রান।

রান তাড়ায় বারবাডোজ তৃতীয় ওভারেহারায় ওপেনার জনসন চার্লসকে। সাকিব নামেন তিনে। উইকেটে যাওয়ার পরপরই হাফিজকে টানা দুইবলে মারেন চার ও ছক্কা।

বাংলাদেশ অধিনায়ক এগিয়ে যাচ্ছিলেনস্বচ্ছন্দেই। কিন্তু ব্র্যাথওয়েটকে বেরিয়ে এসে খেলতে গিয়ে ইনিংস শেষ হয় লং অনে ক্যাচদিয়ে।

সাকিবের ৩৮ রানই হয়ে থাকে দলেরসর্বোচ্চ। ওপেনিংয়ে অ্যালেক্স হেলস ১৯ রান করতে খেলেন ২২ বল। আটে নেমে রেমন রিফার ৩ছক্কায় ১৮ বলে করেন ৩৪।

শেষ ওভারে সাকিবদের দরকার ছিল১২ রান। বাঁহাতি পেসার ডমিনিক ড্রেকসের করা ওভারের প্রথম বলটি ছিল ওয়াইড। পরের বলেছক্কা মারেন রিফার।

কিন্তু এরপর ৫ বলে ৫ রানের সমীকরণমেলাতে পারেনি বারবাডোজ। দ্বিতীয় বলে রান আউট হয়ে যান রিফার। শেষ বলে প্রয়োজন ছিল ২রান। ড্রেকস বোল্ড করে দেন হ্যারি গার্নিকে। ১ রানের জয়ে প্লে অফ নিশ্চিত করে ফেলেসেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক