ইংল্যান্ডের সামনে আবার স্মিথ-বাধা

সকালের বিপর্যয় কাটিয়ে ইংল্যান্ডকে বড় লিড এনে দিল লেজের ব্যাটসম্যানরা। অস্ট্রেলিয়া সেই লিড পুষিয়ে দেওয়ার আগেই হারাল টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকে। ম্যাচে তখন ইংলিশদের প্রবল দাপট। কিন্তু আবারও তাদের সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ালেন স্টিভেন স্মিথ। এই ম্যাচ দিয়েই ১৬ মাস পর টেস্টে ফেরা সাবেক অধিনায়কের ব্যাটে বড় লিডের আশা জিইয়ে রেখেছে অস্ট্রেলিয়া।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 August 2019, 05:49 PM
Updated : 3 August 2019, 06:06 PM

এজবাস্টন টেস্টে দুর্দান্ত লড়াইয়ের আরেকটি দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে অস্ট্রেলিয়া এগিয়ে আছে ৩৪ রানে, হাতে উইকেট ৭টি।

প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার ২৮৪ রানের জবাবে ইংল্যান্ড তুলেছে ৩৭৪। ৯০ রানে পিছিয়ে থাকা অস্ট্রেলিয়া শনিবার তৃতীয় দিন শেষ করেছে ৩ উইকেটে ১২৪ রান নিয়ে।

প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়াকে খাদের কিনারা থেকে টেনে তুলে ১৪৪ রানের অসাধারণ ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসে স্মিথ দিন শেষ করেছেন ৪৬ রানে অপরাজিত থেকে।

ইংল্যান্ড তৃতীয় দিন শুরু করেছিল ৪ উইকেটে ২৬৭ রান নিয়ে। উইকেটে ছিলেন সেঞ্চুরিয়ান ররি বার্নস ও থিতু হয়ে যাওয়া বেন স্টোকস। তবে এ দিন সকাল থেকেই দুর্দান্ত বোলিং করতে থাকেন অস্ট্রেলিয়ানরা। সেটির ফল পেতে খুব দেরি হয়নি।

৩৮ রান নিয়ে দিন শুরু করা স্টোকস ৫০ ছোঁয়ার পরই বিদায় নেন প্যাট কামিন্সের বলে। দুর্দান্ত ইনিংস খেলে বার্নস ১৩৩ রানে আউট হন ন্যাথান লায়নের দারুণ এক ডেলিভারিতে।

ইংলিশদের ব্যাটিং লাইন আপ লম্বা হলেও অস্ট্রেলিয়ানদের ছোবলে তা এলোমেলো হয়ে যায়। সাতে নামা জনি বেয়ারস্টো ও আটে নামা মইন আলি থিতু হতে পারেননি। ১৮ রানের মধ্যে ৪ উইকেট হারিয়ে ইংল্যান্ডের রান হয়ে যায় ৮ উইকেটে ৩০০।

অস্ট্রেলিয়ানরা তখন আশায় লিডটা অল্পতেই রাখার। কিন্তু নবম উইকেটে দারুণ জুটিতে ইংল্যান্ডকে বড় লিডের পথে এগিয়ে নেন ক্রিস ওকস ও স্টুয়ার্ট ব্রড। ৬৫ রানের জুটি গড়েন দুজন বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানদের মতোই নির্ভরতার সঙ্গে ব্যাট করে।

২৯ রান করা ব্রডকে থামিয়ে এই জুটি ভাঙেন কামিন্স। শেষ উইকেটও এরপর ধরা দেয় দ্রুত। ওকস অপরাজিত থাকেন ৩৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংসে।

প্রথম ইনিংসের ৯০ রানের ঘাটতি কাটিয়ে ওঠার আগেই অস্ট্রেলিয়া হারায় ৩ উইকেট। ম্যাচে দ্বিতীয়বার ব্যর্থ হন দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও ক্যামেরন ব্যানক্রফট।

তিনে নেমে উসমান খাওয়াজা দারুণ কিছু শট খেলে দ্রুত রান বাড়িয়েছেন। স্মিথের সঙ্গে গড়েছেন ৪৮ রানের জুটি। সম্ভাবনাময় এই জুটি থামিয়েছেন স্টোকস, ফিরিয়ে দিয়েছেন ৪০ রান করা খাওয়াজাকে।

তবে স্মিথকে ফেরাতে পারেনি ইংলিশরা। কোনো অস্বস্তি ছাড়াই এগিয়ে যাচ্ছেন প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান। তাকে বেশ ভালো সঙ্গ দিচ্ছেন ট্রাভিস হেড। দুজনের জুটিতে অস্ট্রেলিয়া দেখছে লিড আরও বড় করার আশা। আলোকস্বল্পতায় দিনের খেলা ১৩ ওভার আগেই শেষ হওয়ার সময় জুটির রান ৪৯।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

অস্ট্রেলিয়া ১ম ইনিংস: ২৮৪

ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: (আগের দিন ২৬৭/৪) ১৩৫.৩ ওভারে ৩৭৪ (বার্নস ১৩৩, স্টোকস ৫০, বেয়ারস্টো ৮, মইন ০, ওকস ৩৭*, ব্রড ২৯, অ্যান্ডারসন ৩; কামিন্স ৩৩-৯-৮৪-৩, প্যাটিনসন ২৭-৩-৮২-২, সিডল ২৭-৮-৫২-২, লায়ন ৪৩.৫-৮-১১২-৩, ওয়েড ১-০-৭-০, হেড ২-১-৭-০, স্মিথ ২-০-৯-০)।

অস্ট্রেলিয়া ২য় ইনিংস: ৩১ ওভারে ১২৪/৩ (ব্যানক্রফট ৭, ওয়ার্নার ৮, খাওয়াজা ৪০, স্মিথ ৪৬*, হেড ২১*; ব্রড ৬-০-২৬-১, ওকস ৬-১-২০-০, মইন ৯-০-৪৭-১, রুট ৩-০-১২-০, স্টোকস ৭-২-১৮-১)।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক