মজিদের সেঞ্চুরি ছাপিয়ে নায়ক নাঈম

ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরিতে দলকে টানলেন আব্দুল মজিদ। ঝড়ো ব্যাটিংয়ে শেষটায় রানের গতিতে দম দিলেন নাদিফ চৌধুরী ও চতুরঙ্গা ডি সিলভা। তিনশ রানের কাছাকাছি পুঁজি নিয়ে দারুণ লড়াই করল মোহামেডান। তবে নাঈম ইসলামের দুর্দান্ত ইনিংস আর মুমিনুল হক ও রিশি ধাওয়ানের ফিফটিতে রোমাঞ্চকর ম্যাচে জয় তুলে নিল লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জ।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 March 2019, 11:36 AM
Updated : 19 March 2019, 11:36 AM

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচে ৪ উইকেটে জিতেছে নাঈমের দল। ২৯৬ রানের লক্ষ্য চার বল বাকি থাকতে পেরিয়ে যায় তারা। তৃতীয় জয় পেল রূপগঞ্জ। আর এবারের আসরে প্রথমবারের মতো হারল মোহামেডান।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি মোহমেডানের। ভারতীয় অলরাউন্ডার ধাওয়ানের বলে বোল্ড হয়ে শুরুতেই ফিরে যান অভিষেক মিত্র।

এক প্রান্তে নিয়মিত উইকেট হারাচ্ছিল মোহামেডান। অন্য প্রান্তে নিজেকে একদম গুটিয়ে রেখেছিলেন মজিদ। তুষার ইমরান, রকিবুল হাসান, ইরফান শুক্কুর পারেননি ভালো শুরুটা বড় করতে।

শুক্কুর ফিরে যাওয়ার সময় ৩৪তম ওভারে মোহামেডানের স্কোর ছিল ১৪২/৪। সেখান থেকে মজিদ, নাদিফ ও ডি সিলভা দলকে নিয়ে যান তিনশ রানের কাছে।

মন্থর ব্যাটিংয়ে ৯০ বলে পঞ্চাশ ছোঁয়া মজিদ পরে বাড়ান রানের গতি। তিন অঙ্ক স্পর্শ করেন ১১৯ বলে। শেষ পর্যন্ত ১২৬ বলে তিন ছক্কা আর পাঁচ চারে ফিরে যান ১০৭ রান করে। তাকে বিদায় করে নাদিফের সঙ্গে বিপজ্জনক হয়ে ওঠা ৮৩ রানের পঞ্চম উইকেট জুটি ভাঙেন মোহাম্মদ শহীদ।

৬৭ বলে চারটি করে ছক্কা ও চারে ৬৪ রান করা নাদিফকেও পরে থামান শহীদ। তিন ছক্কায় ৯ বলে ২৩ রানে অপরাজিত থাকেন ডি সিলভা।

রূপগঞ্জের পেসার শহীদ ৩ উইকেট নেন ৭০ রানে।

রান তাড়ায় রূপগঞ্জের দুই ওপেনার আজমির আহমেদ ও মোহাম্মদ নাঈম ফিরেন রান আউট হয়ে। শাহরিয়ার নাফীসের সঙ্গে ৭৭ রানের জুটিতে দলকে পথ দেখান মুমিনুল হক। দ্বিতীয় স্পেলে ফিরে দুই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানকে বিদায় করেন শফিউল ইসলাম।

অফ স্টাম্পের বাইরের বল তাড়া করতে গিয়ে কিপারকে ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় ৫৪ বলে ৬ চার ও দুই ছক্কায় খেলা মুমিনুলের ৫৫ রানের ইনিংস। তিন চারে ২৫ রান করা শাহরিয়ার ফিরতি ক্যাচ দেন শফিউলকে।

১২২ রানে ৪ উইকেট হারানো রূপগঞ্জ প্রতিরোধ গড়ে নাঈম ও ধাওয়ানের ব্যাটে। পঞ্চম উইকেটে অভিজ্ঞ দুই ডানহাতি ব্যাটসম্যান গড়েন ৯৯ রানের জুটি। পঞ্চাশ ছুঁয়ে ধাওয়ান ফিরলে ভাঙে জুটিটি। ভারতীয় এই অলরাউন্ডার ৬১ বলে পাঁচ চার ও এক ছক্কায় করেন ৫১ রান।

কিপার-ব্যাটসম্যান জাকের আলীর সঙ্গে ৭১ রানের আরেকটি ভালো জুটিতে দলকে জয়ের কাছে নিয়ে যান রূপগঞ্জ অধিনায়ক। রকিবুলের সরাসরি থ্রোয়ে রান আউট হয়ে থামেন নাঈম। ৯২ বলে খেলা তার ৮৫ রানের অধিনায়কোচিত ইনিংস গড়া ৮ চারে।

মুক্তার আলীকে নিয়ে বাকিটা সহজেই সারেন জাকের। ডানহাতি ওই ব্যাটসম্যান ২৬ বলে একটি করে ছক্কা ও চারে করেন ৩৪ রান।

দলকে পথ দেখানো ইনিংসের জন্য ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন রূপগঞ্জ অধিনায়ক নাঈম।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

মোহামেডান: ৫০ ওভারে ২৯৫/৭ (অভিষেক ৬, মজিদ ১০৭, তুষার ১৯, রকিবুল ২৯, শুক্কুর ২৫, নাদিফ ৬৪, সোহাগ ১৭, ডি সিলভা ২৩*, আলাউদ্দিন ০*; শহীদ ৩/৭০, ধাওয়ান ১/৪৮, আসিফ ০/৪৪, মুক্তার ১/৬৭, নাবিল ০/৪৯, নাঈম ০/১৬)

লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জ: ৪৯.২ ওভারে ২৯৬/৬ (আজমির ৩, মোহাম্মদ নাঈম ৩৩, মুমিনুল ৫৫, শাহরিয়ার ২৫, নাঈম ৮৫, ধাওয়ান ৫১, জাকের ৩৪*, মুক্তার ১*; শফিউল ২/৬৫, সোহাগ ০/৫৫, সাকলাইন ০/৫৫, আলাউদ্দিন ১/৬০, অভিষেক ০/১৮, ডি সিলভা ০/৪১)

ফল: লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ৪ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: নাঈম ইসলাম

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক