রাহুলের ব্যাটে আইপিএলের দ্রুততম ফিফটি

এবারের আইপিএলের প্রথম দিনে ঝড় তুলেছিলেন ডোয়াইন ব্রাভো। দ্বিতীয় দিনে লোকেল রাহুলের ব্যাটে উঠল টর্নেডো। কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের ওপেনার গড়লেন আইপিএলে দ্রুততম ফিফটি রেকর্ড।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 8 April 2018, 02:15 PM
Updated : 9 April 2018, 06:30 AM

মোহলিতে রোববার দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের বিপক্ষে ১৪ বলে পঞ্চাশ স্পর্শ করেন রাহুল। আইপিএলে আগের দ্রততম ফিফটির রেকর্ড ছিল ইউসুফ পাঠানের। ২০১৪ আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে ১৫ বলে পঞ্চাশ ছুঁয়েছিলেন পাঠান।

রাহুলের ১৪ বলে ফিফটি টি-টোয়েন্টিতে সব মিলিয়ে তৃতীয় দ্রুততম। ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১২ বলে ফিফটির বিশ্বরেকর্ড গড়েন যুবরাজ সিং। ২০১৬ সালে বিগ ব্যাশে সেই রেকর্ড স্পর্শ করেন ক্রিস গেইল। মেলবোর্ন রেনেগেইডসের হয়ে অ্যাডিলেড স্ট্রাইকার্সের বিপক্ষে মেলবোর্ন ফিফটি করেন ১২ বলে।

২০১০ সালে ফ্রেন্ডস প্রভিডেন্ট টি-টোয়েন্টিতে সমারসেটের হয়ে হ্যাম্পশায়ারের বিপক্ষে ১৩ বলে ফিফটি করেন মার্কাস ট্রেসকোথিক।

রোববার রাহুলের রেকর্ডের ম্যাচে প্রতিপক্ষের বোলিং ছিল যথেষ্টই শক্তিশালী। নতুন বলে ছিলেন ট্রেন্ট বোল্ট, মোহাম্মদ শামি, পরে অমিত মিশ্র, ক্রিস মরিসরা। ১৬৬ রান তাড়ায় বোল্টের করা ইনিংসের প্রথম তিন বলে রাহুল নেন দুই রান। তাণ্ডবের শুরু এরপরই। পরের তিন বলে এক ছক্কা, দুটি চার।

দ্বিতীয় ওভারে শামিকে টানা দুই বলে ছক্কা ও চার। তৃতীয় ওভারে লেগ স্পিনার মিশ্রকে স্রেফ তুলোধুনো করে ছাড়েন। বাউন্ডারিতে ওভার শুরু করে পরের দুই বলে ছক্কা। পরের দুই বলে আরও দুটি চারে ছুঁয়ে ফেলেন হাফ সেঞ্চুরি।

এর পরপরই অবশ্য আউট হয়ে যান। ১৬ বলে ৫১ করে বোল্টের বলে ক্যাচ হন শামির হাতে।

পরে করুন নায়ারের ৩৩ বলে ৫০, ডেভিড মিলারের অপরাজিত ২৪ ও মার্কাস স্টয়নিসের অপরাজিত ২২ রানে পাঞ্জাব ম্যাচ জেতে ৬ উইকেটে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক