ঝড়ো সেঞ্চুরিতে ডি গ্র্যান্ডহোমের রেকর্ড

উইকেট ব্যাটিং বান্ধব। দল শক্ত অবস্থানে। প্রতিপক্ষের বোলিং ধারহীন। মঞ্চ ছিল তাই প্রস্তুত। সাজানো সেই মঞ্চে ঝড় তুললেন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। উপহার দিলেন রেকর্ড গড়া সেঞ্চুরি। তবে কাছে গিয়েও সেঞ্চুরি হাতছাড়া করেছেন রস টেইলর।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 Dec 2017, 06:42 AM
Updated : 4 Dec 2017, 02:56 PM

এই দুজনের সঙ্গে হেনরি নিকোলস ও টম ব্লান্ডেলের ফিফটিতে ওয়েলিংটন টেস্টে বিশাল লিড নিয়েছে নিউ জিল্যান্ড। দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে ৯ উইকেটে ৪৪৭ রানে।

প্রথম ইনিংসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গুটিয়ে গিয়েছিল ১৩৪ রানে। শনিবার এক দিনেই কিউরা তুলেছে ৩৬২ রান। প্রথম ইনিংসে এগিয়ে তারা ৩১৩ রানে।

সাত নম্বরে নেমে ৭১ বলে সেঞ্চুরি করেছেন ডি গ্র্যান্ডহোম। নিউ জিল্যান্ডের হয়ে এটি দ্বিতীয় দ্রুততম সেঞ্চুরি। এক সময় প্রবল পরাক্রমশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সব দেশ মিলিয়েই দ্রুততম।

২ উইকেটে ৮৫ রান নিয়ে দিন শুরু করেছিল নিউ জিল্যান্ড। প্রথম সেশনে মাত্র একটি উইকেটই নিতে পারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কেমার রোচের দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে ৪২ রানে ফেরেন ওপেনার জিত রাভাল।

চতুর্থ উইকেটে ১২৭ রানের জুটি গড়েন টেইলর ও হেনরি নিকোলস। আগের দিন একটু ধুঁকলেও এদিন টেইলর ছিলেন সাবলীল। খুব একটা ভুগতে হয়নি নিকোলসকেও।

১৭তম টেস্ট সেঞ্চুরি যখন মনে হচ্ছিলো কেবল সময়ের ব্যাপার, তখনই টেইলর আউট হন রোচের ভেতরে ঢোকা বলে। ১৬০ বলে করেছেন ৯৩ রান। দ্বিতীয় সেশনেও উইকেট ছিল ওই একটিই।

শেষ সেশনের শুরুতে নিউ জিল্যান্ড হারায় দুই উইকেট। মিগুয়েল কামিন্সের অফ স্টাম্পের বাইরের বল পুল করে নিকোলস আউট হয়েছেন ৬৭ রানে। নিজের পরের ওভারেই কামিন্স বোল্ড করে দেন মিচেল স্যান্টনারকে।

ক্যারিবিয়ানদের সেই সুসময় দীর্ঘায়িত হয়নি খুব একটা। পাল্টা আক্রমন করেন ডি গ্র্যান্ডহোম, সঙ্গ দেন টম ব্লান্ডেল।

ক্যারিবিয়ানদের শর্ট বল অনায়াসে খেলেছেন ডি গ্র্যান্ডহোম। প্রচুর বল পেয়েছেন লেগ সাইডে, সেটির ফায়দাও তুলেছেন। তার প্রথম ৮ বাউন্ডারিই ছিল লেগ সাইডে।

আগের ৬ টেস্টে একমাত্র ফিফটিতে এই অলরাউন্ডারের সর্বোচ্চ ছিল ৫৭। এবার ৪৪ বলে স্পর্শ করেন প্রথম পঞ্চাশ। পরের পঞ্চাশ ২৭ বলেই।

 

নিউ জিল্যান্ডের হয়ে আগের দ্রুততম তিনটি সেঞ্চুরিই ছিল ব্রেন্ডন ম্যাককালামের। ৫৪ বলে সেঞ্চুরির বিশ্বরেকর্ডের পাশাপাশি সাবেক অধিনায়কের সেঞ্চুরি আছে ৭৪ ও ৭৮ বলে। ৭১ বলের সেঞ্চুরি গ্র্যান্ডহোম এখন দ্বিতীয় দ্রুততম।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আগের দ্রুততম সেঞ্চুরি ছিল ৭৮ বলে। যৌথভাবে রেকর্ডটি ছিল বিরেন্দর শেবাগ ও শহিদ আফ্রিদির।

শেষ পর্যন্ত ৭৪ বলে ১০৫ রান করে ডি গ্র্যান্ডহোম আউট হয়েছেন ছক্কা মারার চেষ্টায়। ১১টি চারের পাশে ইনিংসে ছক্কা ৩টি।

সপ্তম উইকেটে ব্লান্ডেলের সঙ্গে তার জুটি ছিল ১৪৮ রানের। ১৯৮৫ সালে মার্টিন ক্রো ও ইয়ান স্মিথের ১৪৩ রান ছাড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে কিউইদের এটি নতুন রেকর্ড।

শেষ বিকেলে লোয়ার অর্ডারে আরও দুটি উইকেট নিয়েছে ক্যারিবিয়ানরা। তবে অভিষেক টেস্টে অপরাজিত ৫৭ রানে দিন শেষ করেছেন উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান ব্লান্ডেল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস: ১৩৪

নিউ জিল্যান্ড ১ম ইনিংস: ১২৭ ওভারে ৪৪৭/৯ (আগের দিন ৮৫/২) (ল্যাথাম ৩৭, রাভাল ৪২, উইলিয়ামসন ১, টেইলর ৯৩, নিকোলস ৬৭, স্যান্টনার ১৭, ডি গ্র্যান্ডহোম ১০৫, ব্লান্ডেল ৫৭*, ওয়াগনার ৩, হেনরি ৪, বোল্ট ২*; গ্যাব্রিয়েল ১/৮০, রোচ ৩/৭৩, কামিন্স ২/৭৪, হোল্ডার ১/৮৫, চেইস ২/৮৩, ব্র্যাথওয়েট ০/৪৬)।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক