বাংলাদেশে প্রথম ইনিংসে বড় রান চান অস্ট্রেলিয়ার কোচ

উপমহাদেশে টেস্টে সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে সহায়তা পেতে শুরু করেন স্পিনাররা। রান পাওয়া তো বটেই টিকে থাকাও তখন কঠিন হয়ে পড়ে। তাই বড় রানের প্রথম ইনিংস অনেক সময়ই ম্যাচে পার্থক্য গড়ে দেয়। বাংলাদেশ সফরে দলকে তেমন অবস্থানে নিতে ব্যাটসম্যানদের কাছে সাড়ে চারশ ছাড়ানো প্রথম ইনিংস চাইলেন অস্ট্রেলিয়ার কোচ ড্যারেন লেম্যান।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 August 2017, 12:41 PM
Updated : 11 August 2017, 01:33 PM

বাংলাদেশ থেকে ইদানিং সিরিজ জিতে ফিরতে প্রথম ইনিংসে বড় সংগ্রহের বিকল্প নেই। শেষবার বাংলাদেশ থেকে সিরিজ জিতে ফিরেছে পাকিস্তান। ২০১৫ সালের সেই সফরে প্রথম টেস্টে ৮ উইকেটে ৬২৮ ও পরের টেস্টে ৫৫৭ রান করেছিল মিসবাহ-উল-হকের দল। অতিথিরা সিরিজ জিতেছিল ১-০ ব্যবধানে।

দেশের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত ও ইংল্যান্ডের সঙ্গে টেস্ট সিরিজ ড্র করেছে বাংলাদেশ। দেশের মাটিতে নিজেদের সবশেষ সিরিজে অ্যালেস্টার কুকের দলকে কোনো ইনিংসেই তিনশ পর্যন্ত যেতে দেননি মুশফিকুর রহিমরা।

প্রথম টেস্ট ২২ রানে হারার পর মিরপুরে দ্বিতীয়টি ১০৮ রানে জিতে নেয় বাংলাদেশ। এই মাঠেই ২৭ অগাস্ট অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে খেলবে চন্দিকা হাথুরুসিংহের শিষ্যরা। ৪ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামে শুরু হবে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট।

ভারত সফরের অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নারদের বড় রানের তাগিদ দিয়েছেন লেম্যান।

“স্বাভাবিকভাবেই প্রথম ইনিংসের রানই মুখ্য হতে যাচ্ছে। আর আমাদের সেখানে নিয়ে যাওয়াটা হবে ব্যাটসম্যানদের কাজ। আমরা এটা ভারতে দেখেছি। গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ৩৫০ রানের জায়গায় ৪৫০ ছাড়ানো রান করতে হবে। আর লম্বা সময় ব্যাট করতে হবে।”

শ্রীলঙ্কায় ৩-০ ব্যবধানে বিধ্বস্ত হওয়া অস্ট্রেলিয়া ভারতের কাছে হারে ২-১ ব্যবধানে। তাতে খানিকটা উন্নতির ছাপ দেখছেন লেম্যান।

“ভারত সিরিজে প্রতিটি উইকেটই ছিল ভিন্নরকমের, সেখানে ওরা যেভাবে মানিয়ে নিয়েছে আর কন্ডিশন অনুযায়ী পরিবর্তন করেছে তা আমার দৃষ্টিকোণ থেকে সত্যিই চমৎকার।”

গত ১০ বছরে উপমহাদেশে মোটে দুটি টেস্ট জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। এখানে খেলা ২০ ম্যাচের ১৩টিতেই হেরেছে তারা, ড্র হয়েছে অন্য পাঁচটি টেস্ট। এই রেকর্ড খানিকটা উজ্জ্বল করতে বাংলাদেশ সিরিজকে লক্ষ্য করেছেন লেম্যান।

২০০৬ সালের পর প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে টেস্ট খেলতে আসছে অস্ট্রেলিয়া। ১৮ অগাস্ট ঢাকায় আসার কথা তাদের।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক