উগ্রতা নিয়ে বলে লাভ দেখছেন না মাশরাফি

ক্রিকেটে সাফল্য ও ব্যর্থতার ব্যবধান যেমন মাঝেমধ্যে খুব সামান্য, বাংলাদেশে প্রশংসাগুলো গালিতে রূপ নিতেও সময় লাগে না। সেমি-ফাইনালে ওঠা যত স্তুতি, সেসব সমালোচনার বানে পরিণত হতে পারে এই ম্যাচ হারলেই। আগেভাগেই তাই সমর্থকদের ধৈর্য ধরার অনুরোধ জানিয়ে রাখলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।

ক্রীড়া প্রতিবেদক বার্মিংহাম থেকেবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 June 2017, 07:32 PM
Updated : 15 June 2017, 08:37 AM

এমনিতে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমি-ফাইনালে ওঠাই বাংলাদেশের জন্য অনেক বড় সাফল্য। কিন্তু প্রতিপক্ষ যখন ভারত, বাংলাদেশের সমর্থকদের অনেকের কাছে তখন জয়ের আকাঙ্ক্ষাও অনেক বেশি তীব্র। আর প্রত্যাশা এত বেশি থাকে বলেই সেটি পূরণ করতে না পারার হতাশা বেরিয়ে আসে নানা ভাবে।

এবার সেমি-ফাইনালের আগেও যেমন দুই দেশের সমর্থকদের চলছে প্রবল উত্তেজনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুৎসিত ট্রলের ছড়াছাড়ি। ক্রিকেট খেলাটাকে প্রায় যুদ্ধ বানিয়ে ফেলা।

এসবে বরাবরই বিরক্ত মাশরাফি। বহুবার বলেছেন, খেলাটাকে স্রেফ খেলা হিসেবেই রাখতে। বিরক্তির সীমা ছাড়িয়ে যাওয়ায় এবার আর সেসব নিয়ে কথাই বলতে চাইলেন না বাংলাদেশ অধিনায়ক। বরং বললেন, এসব থেকে দূরে থাকার কথা।

“এগুলো ক্রিকেটারদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। অবশ্যই এসব কারও কাম্য নয়। দিনশেষে এটি স্রেফ একটি খেলা। তবে আমি যেটাই বলি না কেন বা অন্য দলের অধিনায়ক যা-ই বলুক, কাজ হয় না। আমি আগেও বলেছি, দেখেছি, কাজ হয় না। এজন্যই আমাদের চেষ্টা করতে হবে এসবে মন না দেওয়া। নিজের কাজটি করে যাওয়া। এর বাইরে কিছু করারও থাকে না।”

মাঠে নিজেদের চেষ্টায় কোনো কমতি থাকবে না, সেই কথা দিয়ে রাখলেন অধিনায়ক। অনুরোধ করলেন দলের পাশে থাকার।

“গ্রপ পর্ব উতরানোও আমাদের জন্য সহজ ছিল না। আমরা করেছি। এখান থেকে এগিয়ে যেতে হলেও কষ্ট করে যেতে হবে। আমি এতটুকুই বলব যে আমরা সাধ্যমত চেষ্টা করব। সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করব। সবাইকে বলব ধৈর্য ধরতে। বাংলাদেশের ক্রিকেট সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। কালকের ম্যাচেও সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করব।”

বাংলাদেশ হারলে অধিনায়কের কথা কজন মনে রাখবেন, কে জানে!

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক