উপভোগের মন্ত্রে ইতিহাসের মঞ্চে

“প্রেস কনফারেন্সে কণ্ঠ এমন ম্রিয়মান শোনাল, ভালোই তো চাপে পড়ে গেছেন!” বোলিং অনুশীলনের আগে গা গরম করছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। কণ্ঠ শুনে ফিরে তাকালেন, “আরে নাহ, অনেক লম্বা ঘুম দিয়েছি। সেটির রেশ এখনও আছে। চাপ আবার কী!”

আরিফুল ইসলাম রনি বার্মিংহাম থেকেবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 June 2017, 05:46 PM
Updated : 14 June 2017, 05:46 PM

চাপ কি, এটা অবশ্যচিরন্তন প্রশ্ন। চোখে দেখা যায় না, অনুভব করা যায়। এই মুহূর্তে যেটি অনুভব প্রবলভাবেকরার কথা বাংলাদেশ, ভারত দুই দলের ক্রিকেটারদেরই।

ম্যাচের আগের দিনসংবাদ সম্মেলনে দুই দলের অধিনায়কই চাপকে পাত্তা না দেওয়ার কথা বললেন বারবার। আগের দিনবাংলাদেশ কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহেও একই কথা বলেছেন ঘুরেফিরে। চাপ সরানোর জন্য যখন এতকথা আর আয়োজন, তখন আরও ভালো করে বোঝা যায় চাপের তীব্রতা!

বাংলাদেশ-ভারতেরলড়াই গত দুবছর যতটা উত্তেজনা ছড়িয়েছে, যতটা রোমাঞ্চ, বিতর্কের শাখা-প্রশাখায় যত টানপড়েছে, তাতে এই দুই দেশের প্রতিটি লড়াই এখন ‘হাই-ভোল্টেজ।’ আর এটি তো চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমি-ফাইনাল!

লাইন আপ ঠিক হওয়ারপর থেকেই বাতাসে উড়ছে উত্তেজনার রেণু, ছড়াচ্ছে বারুদের গন্ধ, বাজছে দামামা।

সেই দামামা মাশরাফিও হাথুরুসিংহের কানে ঢুকেছে স্বাভাবিক নিয়মেই। তবে দুজনের কেউই সেটিকে মাথায় আর মনেঠাঁই দিতে চান না। উত্তেজনার আঁচ ঢুকেছে বাংলাদেশের ড্রেসিং রুমেও। তবে ক্রিকেটারদেরজড়িয়ে রাখা হচ্ছে শীতল তোয়ালেতে। আর সবার মনে গেঁথে দেওয়া হচ্ছে একটি মন্ত্র, ‘উপভোগ।’

চাপের তীর থেকে নিজেদেরআড়াল করার একটি বর্ম বের করেছে বাংলাদেশ দল। এই ম্যাচ থেকে হারানোর আছে সামান্য, পাওয়ারআছে অনেক কিছু। এমনিতে সেমি-ফাইনাল ম্যাচ মানে চাওয়া-পাওয়ার হিসাব মেলানোর ব্যাপারথাকে বেশ। তবে বাংলদেশের বাস্তবতা ভিন্ন। কঠিন গ্রুপ থেকে সেমি-ফাইনালে উঠতে পেরেইপ্রাপ্তির পাল্লা উপচে পড়ছে। এরপর কিছু পেলে সেটি হবে সোনায় সোহাগা। না পেলেও হাসিথাকবে অটুট।

চাপ আসে প্রত্যাশারহাত ধরে। হারানোর কিছু না থাকা মানে চাপও উধাও। ড্রেসিং রুমে যে বার্তা দিয়েছেন, মাশরাফিসেই বার্তা ছড়িয়ে দিতে চাইলেন আর সবার মাঝেও।

“এই ম্যাচের হাইপ অনেক থাকবে এটাসত্যি। তবে আরেকটা ম্যাচ হিসেবেই নিতে চেষ্টা করব আমরা। আমাদের প্রথম কাজ হবে রিল্যাক্সডথেকে ম্যাচটি খেলা।”

“ছেলেরা বেশ রোমাঞ্চিত, এরকম একটাটুর্নামেন্টের সেমি-ফাইনাল খেলছি। এখানে আসার আগেই টুর্নামেন্টটিকে আমরা প্রতিটি ম্যাচহিসেবে নিতে চেয়েছিলাম। সেভাবেই খেলেছি। এখন সেমি-ফাইনাল খেলছি। সবাই যদি সেমি-ফাইনালনা ভেবে আর দশটা ম্যাচের মত খেলতে পারে, তাহলে ভালো।”

আগের দিন হাথুরুসিংহেবলেছিলেন, বাংলাদেশর জন্য এটি বড় ম্যাচ নয়, বড় সুযোগ। চাপ দূরে সরানোর বাংলাদেশ কোচেরমন্ত্র জনপ্রিয়তা পেয়েছে বেশ। এখানে সবার মুখে মুখেই এই কথা। সুযোগটা অনেক বড় কিছু্র।ইতিহাসের নতুন দিগন্তে পা রাখার পর সেটির সীমানা আরও বাড়িয়ে নেওয়া। প্রথম সেমি-ফাইনালেরহাত ধরেই প্রথমবার ফাইনাল!

ভারতকে সামনে নাপেলে হয়ত সেই সম্ভাবনা বাড়ত আরও। ভারত ম্যাচ মানেই এখন অনন্ত চাপ। নানান মন্ত্রে দূরেরাখতে পারলেও তলানি পড়ে থাকা চাপটুকুও তো অনেক!

মাশরাফি অবশ্য এচাপকেও দেখছেন সুযোগ হিসেবে। এমন ম্যাচ জয় করা মানে পরের ধাপে ওঠার পথেও আরেক ধাপ এগিয়েযাওয়া!

“ক্রিকেট জাতি হিসেবে উন্নতি করতেহলে এই ধরনের ম্যাচ প্রচুর আসবে। এমন একটা টুর্নামেন্টে এসে কাউকে বেছে নেওয়ার সুযোগনেই। এরকম চাপের ম্যাচ খেলতে হবে। এটা উপভোগ করা ছাড়া বাড়তি চাপ নেওয়া মাথায় রাখা যাবেনা। সবাই যদি নির্ভার হয়ে, দ্বিপাক্ষিক সিরিজের মত খেলতে পারি, তাহলে আমাদের কাজ সহজহবে।”

মানসিক খেলায় খুবএকটা আগ্রহী না হলেও এদিন একটু চেষ্টা করলেন মাশরাফি। চাপটা চাপিয়ে দিতে চাইলেন ভারতেরওপরই। তারা ফেভারিট, তাদের দেশে মানুষ বেশি, তাদের প্রত্যাশার ওজনও বেশি ভারী। চাপতো বেশি বিরাট কোহলিদেরই!

সেটা যেমন সত্যি,তেমনি এটাও সত্যি যে চাপ সামলানার অভ্যাসটাও কোহলিদের বেশি। গত ৭টি আইসিসি টুর্নামেন্টের৬টিতেই সেমি-ফাইনাল খেলল তারা। বাংলাদেশের জন্য যে মঞ্চ রোমাঞ্চকর অচেনা জগত, ভারতেরজন্য সেটি স্রেফ পুরোনো মঞ্চে নতুন করে পারফর্ম করা।

ক্রিকেটীয় রোমাঞ্চেঅবশ্য বিষাদের ছোঁয়া যোগ হয়েছে দেশ থেকে পাওয়া খবরে। পাহাড় ধসে এত প্রাণহানির খবরেমন খারাপ গোটা দলেরই। জীবন-মৃত্যুর মত ব্যাপারগুলির সঙ্গে কখনোই ক্রিকেট মেলাতে চাননা মাশরাফি। ক্রিকেট দিয়ে সেই ক্ষতি পুষিয়ে দেওয়া যায় বলেও বিশ্বাস করেন না। তব সমব্যথীহওয়া যায়। সেমি-ফাইনালে নামবে বাংলাদেশ কালো ব্যাজ পরে। চেষ্টা করা যায় ক্রিকেট দিয়েঅন্তত কিছুটা হাসি ফেরানোর। সেই তাড়না থাকবে।

দিনশেষে, মন্ত্রসেই একই। ক্রিকেটীয় চাপকে জয় করতে হোক বা জীবনের খেলায় লাশের মিছিলকে ভুলে থাকা, মাঠেনেমে উপভোগ করতে পারাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

মাশরাফিরা যখন মাঠেউপভোগ করেন, উপভোগের উপলক্ষ খুঁজে পায় গোটা দেশই!

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক