এবার ভারতকে হারানোর আশায় হাথুরুসিংহে

আগের দিন বার্মিংহামে এসেছে দল। সোমবার বিশ্রাম। চন্দিকা হাথুরুসিংহে তবু টিম হোটেল থেকে বেরিয়ে যাচ্ছিলেন খেলার পোশাকে। ছুটির দিনেও মাঠে? বাংলাদেশ কোচ হেসে বললেন, “ছেলেদের কয়েকজন আছে তো মাঠে।”

আরিফুল ইসলাম রনি বার্মিংহাম থেকেবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 12 June 2017, 02:47 PM
Updated : 12 June 2017, 05:19 PM

ছুটির দিন হলেও জিম সেশন করতেই হবে। হোটেলের জিমে ব্যাটসম্যানদের কাজ চলে গেলেও পেস বোলারদের জন্য লাগে আরেকটু বিশেষায়িত কিছু। দলের পাঁচ পেসার, মাশরাফি বিন মুর্তজা, রুবেল হোসেন, তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান, শফিউল ইসলামের সঙ্গে সৌম্য সরকারও এজবাস্টনে গিয়েছিলেন জিম করতে। কোচ যাচ্ছিলেন তাদের সঙ্গ দিতেই।

ভারতীয় দল মনে হলো তখনো এসে পৌঁছায়নি টিম হোটেলে। তবে কোচ ছক আঁটতে শুরু করেছেন। তৃতীয়বারে নিশ্চয়ই ভারতকে হারানো যাবে!

“তিনবার?” ভ্রু কুঁচকে তাকালেন কোচ, “মানে বলছেন ২০১৫ বিশ্বকাপ, ২০১৬ এশিয়া কাপ ফাইনাল, আর এবার?” কোচের পাল্টা জিজ্ঞাসা।

“২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ভুলে গেছেন? বেঙ্গালুরুতে হৃদয় ভাঙা হারা!” মনে করিয়ে দিতেই বুঝতে পারলেন কোচ, “বেঙ্গালুরুর ম্যাচ তো নক আউট ম্যাচ ছিল না…।”

নক আউট না হলেও ওই হারের বেদনাই যেন ছিল সবচেয়ে বেশি। হাতের মুঠোয় পেয়েও ফেলে দেওয়া জয় এখনো পোড়ায় অনেককে।

তবে সেই ক্ষতে প্রলেপ দেওয়ার সুযোগ এবার এসেছে। চ্যাম্পিয়্স ট্রফির সেমি-ফাইনালে প্রতিপক্ষ সেই ভারতই। গত দুই বছরে আলোচিত তিন লড়াইয়ের ধারাবাহিকতায় এবার আরেকটু এগিয়ে যেতে চান কোচ।

“২০১৫ বিশ্বকাপে বড় ব্যবধানে হেরেছি, এশিয়া কাপের ফাইনাল দারুণ জমেছে। বেঙ্গালুরুতে ২ রানে হার। মানে আমরা কাছাকাছি এগোচ্ছি…।”

বেঙ্গালুরু থেকে আরেকটু এগোনো মানে তো জয়ই! এবার কি মিলছে তাহলে জয়ের দেখা? কোচ এবার চোখ নাচান, “আশা তো করছিই, দেখা যাক….!”

দেখার অপেক্ষায় গোটা বাংলাদেশও।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক