সেই ভারতেই ওয়ালশের ভিন্ন চ্যালেঞ্জ

ড্রেসিং রুমের সামনেই মাঠে দাঁড়ানো কোর্টনি ওয়ালশ। তাকে ঘিরে দাঁড়িয়ে শফিউল ইসলাম, আবু জায়েদ ও শুভাশীষ রায়। প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের তিন পেসার বেশ মনোযোগ দিয়ে শুনলেন ওয়ালশের কথা। তার পর মাঠে গিয়ে অকাতরে বিলিয়ে দিলেন; নিজেদের নয়, বিলিয়ে দিলেন রান। তাতে শুভাশীষ ছিলেন দারুণ, বাকি দুজনই নিদারুণ!

আরিফুল ইসলাম রনিসিকান্দারাবাদ থেকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Feb 2017, 03:47 PM
Updated : 6 Feb 2017, 03:57 PM

ওয়ালশ হয়ত আরওএকবার বুঝতে পারলেন, বোলিং কোচের কাজটি কতটা যন্ত্রণার! এই ভূমিকায় শুধু নিজের কথাবলা যায়, করে দেখানোর উপায় তো নেই। সেটি অন্যের হাতে!  

মারের চোটে যখনচোখে শর্ষে ফুল দেখছিলেন শফিউলরা, ওয়ালশের চোখে নিশ্চয়ই ভাসছিল নিজের অতীতের ছবি! হয়তনিশপিশ করছিল হাত। পারলে নেমে গিয়ে ঝরাবেন আগুন!

এই ৫৪ বছর বয়সেসেটি আর সম্ভব নয়। তবে এক সময় ঠিকই পারতেন, পেরেছেন। ভারতের মরা উইকেটেও প্রাণের সঞ্চারকরেছেন। পেসারদের জন্য বেশিরভাগ সময়ই দুঃস্বপ্ন ভারতের উইকেট। অথচ এখানেই ওয়ালশ ছিলেনব্যাটসম্যানদের দুঃস্বপ্ন! ভারতে ৭ টেস্ট খেলে উইকেট ৪৩টি। ভারতের মাটিতে তার বোলিংগড় ও স্ট্রাইক রেট নিজের ক্যারিয়ার গড় ও স্ট্রাইক রেটের চেয়ে ঢের ভালো। ভারতে ৩০টিরবেশি উইকেট নেওয়া পেসারদের মধ্যে ওয়ালশের গড় (১৮.৫৫) ও স্ট্রাইক রেট (৩৮.৭) পেসারদেরমধ্যে ইতিহাসের সেরা।

ওয়ালশ জানেন,ভারতে কিভাবে বোলিং করতে হয়। তবে এখন তো আর সবকিছু নিজের হাতে নেই। শিষ্যদের শেখাতেপারেন। তারা সেসব ২২ গজে করতে না পারলে কিছুই করার নেই! যেমনটি হলো প্রস্ততি ম্যাচে।

তবে হতাশা তোআর প্রকাশ্যে জানাতে পারেন না। বাংলাদেশের পেসারদের আগলেই রাখলেন অভিভাবক হয়ে। জানালেনভারতে পেসারদের কাজ কতটা কঠিন।

“তরুণ ফাস্ট বোলারদেরজন্য কাজটি খুবই কঠিন। উইকেট যে রকম পাব আমরা, সেভাবেই মানিয়ে নিতে হবে। ওদের জন্যএটি হবে খুবই ভালো অভিজ্ঞতা।”

ওয়ালশের মতে,এই অভিজ্ঞতার অভাবটাই আপাতত বাংলাদেশের পেসারদের সবচেয়ে বড় ঘাটতির জায়গা। নিউ জিল্যান্ডেবাংলাদেশের পেসারদের পারফরম্যান্স ছিল দারুণ। বোলিং কোচের বিশ্বাস, সেই অভিজ্ঞতা কাজেলাগবে এখানেও।

“নিউ জিল্যান্ডেওরা দারুণ ছিল। কাজ এগিয়ে চলছে। এটাও ভিন্ন একটা চ্যালেঞ্জ। ওখানে যে অভিজ্ঞতা ওরাঅর্জন করেছে, সেটা এখানেও সাহায্য করবে। একটা বড় সমস্যা হলো অনভিজ্ঞতা। ওরা খুব বেশিটেস্ট খেলেনি। যত খেলবে, তত শিখবে।”

ওয়ালশ নিজেও জ্বলেউঠেছেন ক্যারিয়ারের পরের ধাপে। প্রথম ৬৩ টেস্টে ৫ উইকেট ছিল ৫ বার। পরের ৬৯ টেস্টেনিয়েছেন ১৭ বার!

ওয়ালশের শিষ্যদেরজন্য অবশ্য এই সংখ্যাগুলোই স্বপ্নের মত। ওসব অনেক দূরের পথও। আপাতত সামনেই হায়দরাবাদটেস্ট। ওয়ালশের কিছু টোটকা যদি কাজে লাগানো যায়, নিশ্চিতভাবেই অবদান রাখতে পারবেন পেসাররাও।নইলে সেই পুরোনো তৃপ্তি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকবে হবে - অভিজ্ঞতা অর্জন!

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক