বোলারদের কাঁপানোর আগে নিজেই কাঁপেন মারুফ!

প্রতি ম্যাচে ঢাকা ডায়নাইমাইটসের সুর ঠিক করে দেওয়ার কাজটা করেন মেহেদী মারুফ। শুরুতেই প্রতিপক্ষের বোলারদের এলোমেলো করে দেওয়া এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান জানিয়েছেন, মাঠে নামার সময় নাকি তিনি নিজেই কাঁপেন।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Nov 2016, 06:04 PM
Updated : 14 Nov 2016, 06:05 PM

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ম্যাচে সেরা খোলোয়াড়ের পুরস্কার জেতা এই ডানহাতিব্যাটসম্যান সংবাদ সম্মেলনে নিজের ব্যাটিং নিয়ে কথা বলেন।

“আমি খেলার সময় ব্যাটিং খুব সহজ মনে হয়? না, নামার সময় তো আমার শরীর কাঁপে।(ব্যাটিং) সহজ কিভাবে হয়?”

“যেদিন ব্যাটে লাগে সেদিন (বোলাররাকাঁপে) এমনটা হয়। দুয়েকটা শট ব্যাটে লাগার পর আর ভয়টা থাকে না। তখন নিজের খেলাখেলতে ব্যস্ত হয়ে পড়তে হয়।”

১৭০ রান নিয়ে চলতি আসরে সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহকদের তালিকায় তিন নম্বরে রয়েছেন মারুফ। ৭৫ রানের বেশি করেছে এমনব্যাটসম্যানদের মধ্যে তার স্ট্রাইক রেটই সবচেয়ে বেশি- ১৫৪.৫৪।

৩৩ রানে জেতা ম্যাচের পর জানালেন,আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের জন্য বোলার বেছে নিতে হয়। সঠিক বলের জন্য অপেক্ষা করতে হয়।

“টার্গেট করি। টার্গেট করতে হয়। আজকেযেমন রশিদকে টার্গেট করেছিলাম যে, ওকে উইকেট দিব না। ওর বল কঠিন ছিল। সেই বলেবাউন্ডারি দরকার নেই, কিন্তু ওকে উইকেট দিব না। তারপরও ৫/৭ করে রান এসেছে।”

কুমিল্লার বিপক্ষে ৬০ রানের চমৎকারএক ইনিংস খেলা মারুফ দারুণ এক জুটি গড়েন নাসির হোসেনের সঙ্গে। তাদের ৮৪ রানেরজুটিতেই বড় সংগ্রহের ভিত পেয়ে যায় ঢাকা।

“আজকে নাসিরের ব্যাটিং অনেক ভালোলেগেছে। টি-টোয়েন্টিতে খুব বেশি পরিকল্পনা করা হয় না। শট খেলা নিয়েই বেশি ব্যস্তথাকতে হয়। আজ পরিকল্পনা করেই আমরা দুই জন ব্যাট করেছি। যেমন, রশিদকে উইকেট দিব না।বাকিদের ক্ষেত্রে বাজে বলে শাস্তি দিব। তারপর অনিয়মিত বোলার এলে তার কাছ থেকে যতবেশি রান নেওয়া যায়।”

“এক-দুই করে নেওয়ার পরিকল্পনা ছিল,আজ আমরা অনেক এক-দুই রান নিয়েছি। আমরা ডট বল কম দিয়েছি। যেটা আমার কাছে অনেক ভালোলেগেছে। সে সময় একটা জুটি দরকার ছিল। ওখানে উইকেট পড়ে গেলে নিশ্চয়ই আরও ১০/২০ রানকম হতো। ভালো লেগেছে ওর সঙ্গে ব্যাট করে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক