অবিশ্বাস্য মাহমুদউল্লাহর প্রশংসায় তামিম

শেষ ওভারে আবারও বল হাতে জাদু দেখানো মাহমুদউল্লাহকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন তামিম ইকবাল। তবে ‘স্মার্ট’ ক্রিকেট খেলতে না পারায় সতীর্থদের সমালোচনাও করেছেন চিটাগং ভাইকিংসের অধিনায়ক।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 12 Nov 2016, 01:21 PM
Updated : 12 Nov 2016, 03:16 PM

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শনিবারের প্রথম ম্যাচে জয়ের জন্য শেষ ওভারে ৬ রান দরকার ছিল চিটাগংয়ের। তখন ক্রিজে ছিলেন মোহাম্মদ নবি ও চতুরঙ্গা ডি সিলভা। প্রথম বলে নবি এক রান নেওয়ার পর আর রানের দেখা পায়নি তারা। শেষ পাঁচ বলে ৩ উইকেট হারিয়ে হারে ৪ রানে হেরে যায় তামিমের দল।

এর আগে রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে শেষ ওভারে ৭ রান ডিফেন্ড করেছিলেন খুলনা টাইটানসের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। এই অফ স্পিনারের কীর্তিকে অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছে জাতীয় দলের সতীর্থ তামিমের।

“রিয়াদ ভাই যে ম্যাচ জিতিয়েছে, সেটা ১০ বারে বড় জোর একবার হওয়ার কথা। এমন পরিস্থিতিতে পরপর দুই দিন দলকে জেতানো ছোটো ব্যাপার নয়। এক দিন সাত রান ডিফেন্ড করলেন, আজকে ছয় রান ডিফেন্ড করলেন। এটা অবিশ্বাস্য! আমার মনে হয় উনি সঠিক কিছু করছেন, যার জন্য সাফল্য পেয়েছেন।”  

থিতু দুই ব্যাটসম্যান ডি সিলভা ও নবি পারেননি পরিস্থিতির দাবি মেটাতে। প্রথম বলে প্রান্ত বদল করা আফগান অলরাউন্ডার নবি স্ট্রাইক ফিরে পান পঞ্চম বলে। সেই বলে রান নিতে পারেননি- পরের শর্ট বলে ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছাড়েন হারের তিক্ত স্বাদ নিয়ে।

দ্বিতীয় বলে স্ট্রাইক পাওয়া ডি সিলভা উইকেটরক্ষক নিকোলাস পুরানের গ্লাভসবন্দি হয়ে ফিরেন। অভিজ্ঞ আব্দুর রাজ্জাক দুই বলে শূন্য রান করে ফিরেন। নবিকে স্ট্রাইক দেওয়ার চেষ্টা না করে চড়াও হতে গিয়ে সীমানায় ক্যাচ দেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।   

অফ স্পিনার মাহমুদউল্লাহর কৃতিত্ব খাটো করছেন না তামিম। কিন্তু নিজেদের শেষ সময়ে ব্যাটিংও পছন্দ হয়নি না তার।

“ছয় রান ছিল, আমাদের দুইজন সেট ব্যাটসম্যান ক্রিজে ছিল। অবশ্যই উনার কৃতিত্ব, ভালো বল করছেন বলেই হয়েছে। তবে আমার মনে হয়েছে, আমাদের দোষ ছিল আরও বেশি। আমরা যদি একটু স্মার্টলি ক্রিকেট খেলতাম তাহলে ছয় রান ডিফেন্ড করা তার জন্য অনেক কঠিন হত।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক