ওয়ানডে দলে মোসাদ্দেক, ফিরলেন শফিউল ও রুবেল

গত দুই মৌসুমে ঘরোয়া ক্রিকেটে আলো ছড়িয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন। বড় দৈর্ঘ্যের ক্রিকেটে খেলেছেন লম্বা ইনিংস। সীমিত ওভারে জ্বলে উঠেছেন ব্যাটে-বলে। সেটির পুরস্কার পেলেন তরুণ এই অলরাউন্ডার। জায়গা পেয়েছেন আফগানিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের বাংলাদেশ দলে।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 22 Sept 2016, 07:58 AM
Updated : 22 Sept 2016, 12:15 PM

প্রথম ২ ম্যাচের জন্য বৃহস্পতিবার দুপুরে আপাতত ১৩ সদস্যের দল ঘোষণা করা হয়। দ্বিস্তর বিশিষ্ট নতুন কাঠামোর নির্বাচক প্যানেলের গড়া প্রথম দল এটিই।

মোসাদ্দেকই দলে একমাত্র নতুন মুখ। দলে ফিরেছেন দুই পেসার রুবেল হোসেন ও শফিউল ইসলাম।

সিরিজের আগে তাসকিন আহমেদের বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষার ফল এলে এবং বোলিংয়ের অনুমতি মিললে দলে যোগ করা হবে এই ফাস্ট বোলারকে।

ঈদের আগে ঘোষিত ২০ জনের ওয়ানডে পুল থেকে চূড়ান্ত দলে তাসকিন ছাড়াও জায়গা পাননি আল আমিন হোসেন, এনামুল হক, আলাউদ্দিন বাবু, শুভাশীষ রায় চৌধুরী, মেহেদি হাসান মিরাজ ও মোশাররফ রুবেল।

গত বছর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন মোসাদ্দেক। ওয়ানডেতে নতুন হলেও মোসাদ্দেকের ডাক পাওয়া সে অর্থে চমক নয়। ঘরোয়া ক্রিকেটে সবশেষ মৌসুমে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স ও অনুশীলনে ভালো করার পর তার জায়গা পাওয়া অনেকটা অনুমিতই ছিল। গত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবাহনীর হয়ে ৭৭.৭৫ গড় ও ১০৪.৮৯ স্ট্রাইক রেটে ৬২২ রান করেছিলেন মোসাদ্দেক; উইকেট নিয়েছিলেন ১৫টি। এর আগে জাতীয় লিগ ও বিসিএলেও নজরকাড়া পারফরম্যান্স ছিল ২০ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডারের।

পেসার রুবেল সবশেষ খেলেছেন গত বছর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে। এরপর ‘এ’ দলের হয়ে ভারতে গিয়ে চোটে পড়েন। পুরো ফিট না হয়ে বিপিএলে ফিরে আবারও ছিটকে যান বাইরে। নিজের প্রতি সঠিক যত্ন নেননি অভিযোগে নাম কাটা যায় কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে। পরে কঠোর পরিশ্রম করে ও ঘরোয়া ক্রিকেটের পারফরম্যান্সে ফিরে পান চুক্তি। এবার দলে জায়গা পেয়ে পূরণ হলো ফেরার চক্র।

শফিউল সবশেষ খেলেছেন ২০১৪ সালের নভেম্বরে, জিম্বাবুয়ে সিরিজে। এরপর কয়েক দফা চোট ও ফর্মহীনতা মিলিয়ে অনেকটাই আড়ালে চলে গিয়েছিলেন। সবশেষ ঢাকা লিগেও এমন আহামরি পারফরম্যান্স ছিল না। শেখ জামালের হয়ে ১০ ম্যাচে নিয়েছিলেন ১১ উইকেট। তবে তিনিও নির্বাচক, কোচ ও অধিনায়কের মন কেড়েছেন অনুশীলনে ও অনুশীলন ম্যাচগুলোতে দুর্দান্ত বোলিং করে।

শফিউলকে সুযোগ দিতে গিয়েই জায়গা হারাতে হয়েছে আল আমিনকে। বাংলাদেশের সবশেষ সিরিজে জিম্বাবুয়ে বিপক্ষে ৩ ম্যাচে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন ডানহাতি এই পেসার। সবশেষ ঢাকা লিগেও পারফরম্যান্স ছিল বেশ ভালো। প্রাইম দোলেশ্বরের হয়ে ২৫ উইকেট নিয়েছিলেন ১৬ ম্যাচে। তবে ক্যাম্পে দারুণ বোলিং করে নির্বাচকদের বিবেচনায় আল আমিনকে টপকে গেলেন শফিউল। আল আমিনের ফিটনেস ও ফিল্ডিং নিয়েও খানিকটা অসন্তুষ্টি আছে নির্বাচকমণ্ডলী ও টিম ম্যানেজমেন্টের।
তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম দুটি ম্যাচ ২৫ ও ২৮ সেপ্টেম্বর।

বাংলাদেশ দল: মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মাহমুদউল্লাহ, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, রুবেল হোসেন, ইমরুল কায়েস, শফিউল ইসলাম, মোসাদ্দেক হোসেন, তাইজুল ইসলাম।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক