• পিএনজিকে হারিয়ে পরের ধাপের দুয়ারে স্কটল্যান্ড
    সম্ভবত বিশ্বকাপের সবচেয়ে রঙচঙে জার্সি পাপুয়া নিউ গিনির। তাদের ক্যাপ তো দারুণ নান্দনিক। বিস্ময়করভাবে, মাঠে গুটিকয় দর্শকও পাওয়া গেল তাদের। ব্যান্ড-ঢোল বাজিয়ে, নাচে-গানে তারা মুখর করে রাখল চারপাশ। মাঠের ক্রিকেটে তাদের আনকোরা দল বেশির ভাগ সময় ধুঁকে শেষ দিকে উপহার দিল বিনোদন। তবে শেষ পর্যন্ত পারল না চমকপ্রদ কিছু করতে। বাংলাদেশকে হারানোর পর পাপুয়া নিউ গিনিকেও হারিয়ে স্কটল্যান্ড পৌঁছে গেল পরের ধাপের দুয়ারে।
  • রেকর্ড ছুঁয়ে ম্যাচ সেরা জিশান
    ৪২ বলে ৭৩ রানের ঝড়ো ইনিংস উপহার দিলেন জাতিন্দার সিং। অপরাজিত ফিফটিতে দলের জয়ে অবদান রাখলেন আরেক ওপেনার আকিব ইলিয়াস। তবে তাদের ছাপিয়ে পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে ম্যাচ সেরার স্বীকৃতি পেলেন জিশান মাকসুদ। অধিনায়কের দারুণ বোলিংয়েই যে প্রতিপক্ষকে অল্প রানে বেঁধে রাখতে পারে ওমান।
  • ছক্কায় আসরের প্রথম ফিফটি ভালার
    রানের খাতা না খুলতেই নেই দুই ওপেনার। বিপদে পড়া দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন আসাদ ভালা। দারুণ ব্যাটিংয়ে পাপুয়া নিউ গিনি অধিনায়ক তুলে নিলেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের চলতি আসরের প্রথম ফিফটি।
  • স্বপ্ন ভাঙা-গড়ার পথ পেরিয়ে বিশ্বকাপে পাপুয়া নিউ গিনি
    স্বপ্ন ছোঁয়ার খুব কাছ থেকে বারবার খালি হাতে ফেরার আক্ষেপ পুড়িয়েছে। মনে ভর করেছে হতাশা। তবে সেটাকে পেয়ে বসতে দেয়নি তারা, কাজে লাগিয়েছে প্রেরণা হিসেবে। ঘুরে দাঁড়িয়ে নতুন করে চলার পথে যুগিয়েছে শক্তি। অদম্য মানসিকতার জোরেই শেষ পর্যন্ত বিশ্ব মঞ্চে পা রাখার গৌরব অর্জন করেছে পাপুয়া নিউ গিনি।