কোভিড: ঢাবির এমিরেটাস অধ্যাপক আবদুল মতীনের মৃত্যু

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের এমেরিটাস অধ্যাপক আবদুল মতীন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 July 2021, 10:03 AM
Updated : 18 Dec 2021, 09:16 PM

শুক্রবার সকালে ঢাকার উত্তরায় শিন শিন জাপান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয় বলে দর্শন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এ কে এম হারুন রশীদ

জানান।

অধ্যাপক আবদুল মতীনের বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। তার স্ত্রী অধ্যাপক হাসিনা মতীন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। দুই ছেলে রয়েছে তাদের।

অধ্যাপক হারুন রশীদ বলেন, “শ্বাসকষ্টসহ শরীরের নানা জটিলতা নিয়ে এক সপ্তাহ আগে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন অধ্যাপক আবদুল মতীন। মৃত্যুর তিন দিন আগে কোভিড পজিটিভ রিপোর্ট এসেছিল। আজ সকাল ৬টার দিকে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন।”

অধ্যাপক মতীনের মরদেহ ময়মনসিংহ জেলার ভালুকায় তার গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সেখানেই তাকে দাফন করা হবে বলে জানান অধ্যাপক রশীদ।

তিনি বলেন, “তার মৃত্যুতে দর্শন বিভাগের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ গভীরভাবে শোকাহত। আমরা শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।"

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক  মো. আখতারুজ্জামান এক শোকবার্তায় বলেন, “অধ্যাপক ড. আবদুল মতীন ছিলেন একজন খ্যাতিমান দার্শনিক ও গবেষক। তিনি ছিলেন অত্যন্ত সৎ, বিনয়ী, নম্র ও সজ্জন চরিত্রের অধিকারী।

"মৌলিক দার্শনিক চিন্তার অধিকারী এই গুণী শিক্ষক দর্শন বিষয়ক শিক্ষা ও গবেষণায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের জন্য নতুন নতুন চিন্তা-ভাবনার খোরাক যোগাতেন। দর্শন বিষয়ক অনেক মৌলিক গবেষণা গ্রন্থসহ তিনি কাব্যগ্রন্থও রচনা করেছেন।”

১৯৩৪ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা থানার ধিতপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আবদুল মতীন। ১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনে স্নাতক এবং ১৯৫৭ সালে স্নাতকোত্তর করেন তিনি।

১৯৬০ সালের ১ জুলাই তিনি নিজের শিক্ষায়তনে সিনিয়র লেকচারার হিসেবে যোগ দেন এবং ২০০০ সালে অধ্যাপক হিসেবে অবসরে যান। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের এমেরিটাস অধ্যাপক ছিলেন।

১৯৬৯ সালে কানাডার টরোন্টো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে 'কোরেসপন্ডেন্স থিওরি অব ট্রুথ' বিষয়ে পিএইচডি করেন অধ্যাপক মতীন। পরে কমনওয়েলথ ফেলো হিসেবে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পোস্ট-ডক্টরাল গবেষণা শেষ করেন।

অ্যান আউটলাইন অব ফিলোসফি, যুক্তির আলোকে, প্রতীকী যুক্তিবিদ্যা, দর্শন সাহিত্য ও সংস্কৃতিসহ বেশকিছু মৌলিক গবেষণা গ্রন্থ এবং অনুবাদ গ্রন্থ রয়েছে অধ্যাপক মতীনের। ‘দুই পৃথিবী’ নামে তার একটি কবিতার বইও তিনি লিখেছেন।

ফিলোসফি অ্যান্ড প্রোগ্রেসসহ কয়েকটি জার্নালের সম্পাদনা করা মতীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চতর মানববিদ্যা ও গোবিন্দ দেব গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক এবং দর্শন বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করেছেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক