পেঁয়াজের বাজারে ‘কারসাজি’, আমদানির সুপারিশ

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে ভরা মৌসুমে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে বাজার ‘অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টা’ দেখতে পাচ্ছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, আর সে কারণে আমদানির পথ খোলার সুপারিশ করেছে সরকারের এই বাজার তদারক সংস্থা।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 June 2022, 05:05 PM
Updated : 28 June 2022, 05:39 PM

অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়ে পেঁয়াজ আমদানির জন্য ব্যবসায়ীদের অনুমতি (ইমপোর্ট পারমিট) দেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ও বিষয়টি ‘সক্রিয় বিবেচনায়’ নেওয়ার কথা বলেছে।

মন্ত্রণালয়ের পাঠানো চিঠিতে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর বলেছে, সাম্প্রতিক বাজার তদারকিতে তারা দেখতে পেয়েছে, ঢাকা মহানগরের শ্যামবাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৪০ টাকা থেকে ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৫০ টাকা থেকে ৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

একই সময়ে পাবনা এবং ফরিদপুর জেলার বিভিন্ন মোকামে প্রতি মণ পেঁয়াজ ১৫০০ টাকা থেকে ১৬০০ টাকায় (৩৭ টাকা থেকে ৪০ টাকা কেজি) বিক্রি হচ্ছে।

“এ বছর কৃষকদের প্রতি কেজি পেঁয়াজের উৎপাদন ব্যয় ২০ টাকা থেকে ২২ টাকার মধ্যে ছিল। দেশে এ বছর পর্যাপ্ত পরিমাণ পেঁয়াজ উৎপাদন ও মজুদ রয়েছে। তদুপরি আসন্ন ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে পেঁয়াজের বাজার অস্থিতিশীল ও অনিয়ন্ত্রিত করার অপচেষ্টা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।”

ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর বলছে, “বিগত বছরগুলোর অভিজ্ঞতার আলোকে বর্তমান সময় ভারত থেকে পেঁয়াজ অনতিবিলম্বে আমদানির কার্যক্রম গ্রহণ করা সমীচীন হবে মর্মে প্রতীয়মান হয়। এমতাবস্থায় পেঁয়াজ আমদানির আইপি প্রদানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো।”

পেঁয়াজের বাজার গত এক মাস ধরেই ঊর্ধমুখী। এর মধ্যে দেশের উত্তরাঞ্চলে বন্যা শুরু হওয়ায় দাম বৃদ্ধি আরও গতি পেয়েছে।

বর্তমানে ঢাকার খুচরা বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে ৩৫ থেকে ৪৫ টাকা ছিল। সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির হিসাবেই গত একমাসে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ২৫ শতাংশ।

বিক্রেতারা বলছেন, বাজারে আমদানি করা পেঁয়াজের সরবরাহ না থাকায় হঠাৎ করে দাম বেড়েছে। ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ থাকায় এবং বন্যার কারণে দাম বেড়েছে বলে তাদের ভাষ্য।

দেশের পেঁয়াজ চাষীদের স্বার্থের কথা বিবেচনা করে গত মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে এ পণ্যটি আমদানির অনুমতি দেয়নি সরকার।

পেঁয়াজ আমদানির ‘ইমপোর্ট পারমিট’ দিতে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে চিঠি পাওয়ার কথা জানিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আমদানি ও অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য বিভাগের অতিরিক্ত সচিব একেএম আলী আহাদ খান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মন্ত্রণালয়ও বিষয়টি ‘সক্রিয়ভাবে বিবেচনা’ করছে।

“আমরা এখন এ বিষয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলব। পেঁয়াজের আমদানি কতটা উন্মুক্ত করা যায়, সেটা কৃষি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠকের পর ঠিক করা হবে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক