রোববার বসছে জাতীয় এসএমই মেলা

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের তৈরি পণ্যের পসরা নিয়ে রাজধানীতে রোববার শুরু হচ্ছে জাতীয় এসএমই মেলা।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 Dec 2021, 11:59 AM
Updated : 2 Dec 2021, 11:59 AM

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আট দিনের এ মেলা চলবে ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত। নবমবারের মতো আয়োজিত মেলায় ৩১১টি এসএমই প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর পর্যটন ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার ভার্চুয়ালি এ মেলার উদ্বোধন করবেন।

এবারের মেলায় দেশের ৩১১টি প্রতিষ্ঠানের ৩২৫টি স্টল থাকছে। এর মধ্যে ৬০ শতাংশ নারী এবং পুরুষ উদ্যোক্তা থাকছেন ৪০ শতাংশ। রেওয়াজ অনুযায়ী কোনো বিদেশি পণ্য এ মেলায় বিক্রি হবে না।

দেশে উৎপাদিত লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্য, ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, প্লাস্টিক পণ্য, আইটি পণ্য, পাটজাত পণ্য, চামড়াজাত সামগ্রী, খাদ্য ও কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, হারবাল/অর্গানিক পণ্য, হ্যান্ডিক্রাফট, ফ্যাশন ডিজাইন, জুয়েলারি আইটেমসহ বিভিন্ন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের দেশি পণ্য প্রদর্শিত ও বিক্রি হবে।

গত আটটি মেলায় ১ হাজার ৫৬১ জন উদ্যোক্তা অংশ নিয়েছেন জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, তারা ২১ কোটি ৮৮ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করেছেন এবং ৩৬ কোটি ৫০ লাখ টাকার অর্ডার পেয়েছেন। আর ৮৬টি আঞ্চলিক মেলায় ৩ হাজার ১৬২ জন উদ্যোক্তা পণ্য প্রদর্শন করে ২৩ কোটি ৩৩ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করেছেন এবং ২১ কোটি ১৪ লাখ টাকার অর্ডার পেয়েছেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবার বাড়তে শুরু করলে কী হবে, সেই প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, “মহামারী পরিস্থিতির অবনতি হলে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের অবদান ও অংশগ্রহণকে স্বীকৃতি দিতে ‘এসএমই উদ্যোক্তা পুরস্কার-২০২১’ দেওয়া হবে মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে। চারজন উদ্যোক্তা এ পুরস্কার পাবেন।

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এ মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে, কোনো ফি দিতে হবে না।

মেলায় পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রির পাশাপাশি চারটি সেমিনার, ক্রেতা-বিক্রেতা মিটিং বুথ, রক্তদান কর্মসূচি, মিডিয়া সেন্টার ও অনলাইন পণ্য মার্কেটিং বিষয়ক স্টলও থাকবে।

ঢেলে সাজানো হবে চিনিকল

সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ বলেন, সামনের বছর থেকে ধাপে ধাপে দেশের সব চিনিকলের সংস্কার করা হবে।

“পুরাতন চিনিকল চালিয়ে কোনো লাভ হয় না। লেবার খরচসহ অন্যান্য খরচ দিয়ে কিছু থাকে না। চিনিকল নিয়ে কিছু সংস্কার কাজও করতে হবে। প্রয়োজনে থাইল্যান্ড ও ব্রাজিলের মতো দেশ থেকে দক্ষ টেকনিশিয়ান নিয়ে আসব।”

এই শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে সব ধরনের উদ্যোগ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তিনি বলেন, “সবগুলোর কাজ একসঙ্গে শুরু করা যাবে না। আগামী বছর থেকে পর্যায়ক্রমে এ কাজ শুরু করা হবে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক