উইকিলিকসের তথ্যের ভিত্তি নেই: ফখরুল

উইকিলকসের ফাঁস করা তথ্যের ভিত্তিতে পত্রিকায় প্রকাশিত খবরকে 'সরকারের ষড়যন্ত্র' আখ্যায়িত করার পর চার দিনের মাথায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বললেন, এসব 'ভিত্তিহীন' বিষয়কে তারা গুরুত্ব দিচ্ছেন না।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 Sept 2011, 05:20 AM
Updated : 18 Sept 2011, 05:20 AM
ঢাকা, সেপ্টেম্বর ১৮ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- উইকিলকসের ফাঁস করা তথ্যের ভিত্তিতে পত্রিকায় প্রকাশিত খবরকে 'সরকারের ষড়যন্ত্র' আখ্যায়িত করার পর চার দিনের মাথায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বললেন, এসব 'ভিত্তিহীন' বিষয়কে তারা গুরুত্ব দিচ্ছেন না।
রোববার দুপুরে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ফখরুল বলেন, উইকিলিকসে প্রকাশিত মার্কিন তারবার্তার তথ্যে 'চমক' থকেলেও তার কোনো 'ইনগত ভিত্তি' নেই।
"এতে চাটনির মতো চমক আছে, আর কিছুই নাই।"
এর আগে ১৪ সেপ্টেম্বর এক ছাত্র সমাবেশে ফখরুল বলেন, উইকিলিকসের প্রকাশ করা তারবার্তার সূত্র ধরে একটি মহল রূপকথার গল্প সাজিয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। আর এর সঙ্গে সরকারের যোগসূত্র রয়েছে।
রোববার সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, "আমরা এসব তথ্যকে গুরুত্ব দিচ্ছি না। আওয়ামী লীগ নেতা আমির হোসেন আমু সাহেবও সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন, উইকিলিকসের সব তথ্য বানোয়াট।"
বিভিন্ন দেশে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে ওয়াশিংটনে পাঠানো তারবার্তা প্রকাশ করে গতবছর রীতিমতো হৈ চৈ ফেলে দেয় জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের ওয়েবসাইট উইকিলিকস। এর মধ্যে বাংলাদেশ থেকে পাঠানো দুই হাজারেরও বেশি 'কেবল' রয়েছে।
চলতি মাসের শুরুতে দ্বিতীয় দফায় প্রায় এক লাখ তারবার্তা প্রকাশ করে উইকিলিকস। এরপর দেশের দুই প্রধান রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়া এবং সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ের বিভিন্ন ঘটনা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিকদের ভাষ্য ও মতামতের ভিত্তিতে গণমাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামও রোববার এসব তথ্যের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন।
'
রূপরেখা চুক্তি দেশের স্বার্থবিরোধী'
বিএনপি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, স¤প্রতি ভারতের সঙ্গে সম্পাদিত 'সহযোগিতার রূপরেখা' চুক্তিতে দেশের স্বার্থ রক্ষা হয়নি।
"ক্ষমতাসীনরা গোপন সমঝোতা চুক্তির মাধ্যমে দেশকে পরনির্ভরশীর করে ফেলেছে। ওইসব চুক্তি বাংলাদেশকে পঙ্গু রাষ্ট্রে পরিণত করার উদ্যোগ। ক্ষমতাসীনরা মনে করে, দেশের পতাকা থাকবে, জাতীয় সঙ্গীত থাকবে, জাতিসংঘের সদস্য পদ থাকবে; কিন্তু দেশ চলবে প্রভুদের কথা মতো।"
গত ৬ সেপ্টেম্বর ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের ঢাকা সফরের সময় স্বাক্ষরিত এই 'রূপরেখা' চুক্তিতে ভারত ও বাংলাদেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ক্ষেত্র আঞ্চলিক পর্যায়েও বি¯তৃত করার কথা বলা হয়েছে।
বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএম/জেকে/১৭১৪ ঘ.
তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক