বাংলা একাডেমী পুরস্কার নিলেন মওলা, যতীন ও রিটন

মঞ্জুরে মওলা, যতীন সরকার ও লুৎফর রহমান রিটন বৃহস্পতিবার বাংলা একাডেমী পুরস্কার গ্রহণ করেছেন। বিকেল সাড়ে চারটায় পুরস্কার প্রাপ্তদের হাতে সম্মাননাপত্র, ক্রেস্ট, এক লাখ টাকার চেক ও ফুলের তোড়া তুলে দেন বাংলা একাডেমীর সভাপতি মোহাম্মদ হারুন-উর-রশীদ। কবিতায় মঞ্জুরে মওলা, গবেষণা ও প্রবন্ধে অধ্যাপাক যতীন সরকার ও শিশু সাহিত্যে লুৎফর রহমান রিটন বাংলা একাডেমী পুরস্কার ২০০৭ পেয়েছেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 Feb 2008, 10:25 AM
Updated : 28 Feb 2008, 10:25 AM
ঢাকা, (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)-- মঞ্জুরে মওলা, যতীন সরকার ও লুৎফর রহমান রিটন বৃহস্পতিবার বাংলা একাডেমী পুরস্কার গ্রহণ করেছেন।
বিকেল সাড়ে চারটায় পুরস্কার প্রাপ্তদের হাতে সম্মাননাপত্র, ক্রেস্ট, এক লাখ টাকার চেক ও ফুলের তোড়া তুলে দেন বাংলা একাডেমীর সভাপতি মোহাম্মদ হারুন-উর-রশীদ।
কবিতায় মঞ্জুরে মওলা, গবেষণা ও প্রবন্ধে অধ্যাপাক যতীন সরকার ও শিশু সাহিত্যে লুৎফর রহমান রিটন
বাংলা একাডেমী পুরস্কার ২০০৭ পেয়েছেন।
ফেব্র"য়ারি ১৮ তারিখে বাংলা একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার ২০০৭ ঘোষণা করা হয়।
পুরস্কার পাওয়ার পর লেখক যতীন সরকার বলেন, "বাংলা একাডেমী পুরস্কার দিয়ে আমাকে সম্মানিত ও কৃতজ্ঞ করেছে। আজ থেকে ৪০ বছর আগে এ মাঠেই আমি জীবনের প্রথম 'এনামুল হক' পুরস্কার পেয়েছিলাম।"
তিনি আরো বলেন ," আমি আমার সাহিত্যে গ্রামের সাধারণ মানুষের চিন্তা চেতনাসহ কবিয়ালদের কথা তুুলে ধরেছি । তারা যদি কখনো পুরস্কৃত হন তাহলেই নিজেকে স্বার্থক মনে করব। আমার এ পুরস্কার আমি তাদেরকে উৎসর্গ করলাম।"
মঞ্জুরে মওলা বলেন, "যে ভাষা শহীদদের রক্ত থেকে বাংলা একাডেমী উঠে এসেছে , সে প্রতিষ্ঠান থেকে পুরষ্কার পাওয়ায় গৌরব বোধ করছি। একজন সৃজনশীল লেখককে তার কাজের প্রতি সৎ থাকতে হয়। ফলে এক ধরণের দায়বদ্ধতাও তৈরি হয়। আমার এ দায়বদ্ধতা যেন সারা জীবন ধরে রাখতে পারি।"
লুৎফর রহমান রিটন শৈশব স্মরণ করে বলেন, "আজ থেকে ৩৬ বছর আগে উপস্থিত বক্তৃতায় প্রথম হয়ে এখানেই জীবনের প্রথম পুরস্কারটি পেয়েছিলাম । আজ আবার এ মঞ্চে উঠতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে হচ্ছে ।"
তিনি আরও বলেন, "বাংলা একাডেমী পুরস্কার আমার জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ পুরস্কার হয়ে থাকবে। পুরস্কারটি আমার স্ত্রী শার্লি রহমানকে উৎসর্গ করছি। তার আশ্রয় প্রশ্রয়েই আমার লেখা এখনও সচল রয়েছে।"
পুরস্কার প্রদান অনষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক সৈয়দ মোহাম্মদ শাহেদ।
বাংলা একাডেমীর সমন্বয় ও জনসংযোগ উপবিভাগের তথ্য অনুযায়ি মেলায় এদিন ৮১টি নতুন বই বেরিয়েছে।
বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এমডিএস/জিএনএ/ ২১১৫ ঘ.
তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক