চট্টগ্রামের সাবেক ও বর্তমান দুই মেয়রই চান ‘সিটি গভর্নমেন্ট’

বন্দর নগরীর উন্নয়নে ‘সিটি গভর্নমেন্ট’ প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (সিসিসি) সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী ও বর্তমান মেয়র এম মনজুর আলম।

চট্টগ্রাম অফিসবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Sept 2013, 04:14 PM
Updated : 11 Sept 2013, 04:14 PM

বুধবারচট্টগ্রামইঞ্জিনিয়ার্সইনস্টিটিউটমিলনায়তনেএক সুধী সমাবেশে চট্টগ্রামের রাজনীতিতে ‘গুরু-শিষ্য’ হিসেবে পরিচিতি দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের দুই নেতা এই দাবি জানান।

বর্তমানমেয়র মনজুরআলম এবং নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলরও সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলরদের তিন বছর পূর্তিতে এই সুধী সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

সমাবেশেনগর আওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, “যে সরকারই হোক চট্টগ্রামের ব্যাপারে একটা উদাস ভাব আছে। মেয়র থাকাকালে সিটি গর্ভমেন্ট এর দাবি করেছিলাম।

“আমরা(সিসিসি) শুধু ট্যাক্সের টাকা দিয়ে উন্নয়ন করব, এ সিদ্ধান্ত অবশ্যই বাতিল করতে হবে। সরকারি অনুমতির জন্য আমরা কাজ করতে না পারলে এটা অপরাধ।”

জাকিরহোসেন সড়কের কাজের সময় এবং প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় করার সময় বাধার মুখে পড়তে হয়েছিল বলেজানান তিনি।

সমাবেশেআগামীতে আর মেয়র নির্বাচনে অংশ না নেয়ার কথাও বলেন মহিউদ্দিন।

বর্তমানমেয়র মনজুরআলমকে আগামী দুই বছর সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে তিনি রাতে আবর্জনা পরিবহন ও শিক্ষার মান উন্নয়নে পরামর্শ দেন।

পাশাপাশিনগরীর আরবান হেলথ কেয়ার সেন্টারগুলো এনজিও’র আওতায় দেয়ার সরকারি প্রস্তাবের বিরোধিতা করে বক্তব্য দেন মহিউদ্দিন।

সিসিসির তিন বারের সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন দায়িত্ব পালনকালেও একাধিকবার ‘সিটি গভর্নমেন্ট’এর প্রস্তাব করেছিলেন।

মহিউদ্দিনের বক্তব্য সমর্থন করে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মনজুর বলেন, “উনি সিটি গভর্নমেন্টের কথা বলেন। আমি সিটি কোঅর্ডিনেশন কমিটির কথা বলেছিলাম। এই কমিটি আছে, কাজ হয় না। আমিও এখন সিটি গভর্নমেন্ট চাই। এটা না হলে অনেক কিছুতেই আমরা পিছিয়ে থাকব।”

দেশের রাজস্ব আদায়ের বড় ভাগই চট্টগ্রাম থেকে আদায় হয় জানিয়ে তিনিবলেন, “প্রশাসনকে বারবার বলেও আমরা কী পেয়েছি? গত ২২ বছরে ৯১৫ কোটি টাকা মাত্র বরাদ্দ পেয়েছে সিসিসি। অর্থ সঙ্কুলান না হওয়ায় অনেক কাজ করতে পারিনি।”

চট্টগ্রামের উন্নয়নে মতভেদ ভুলে সবাইকে এক যোগে কাজ করারআহ্বান জানান মেয়র মনজুর।

সমাবেশেবিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, পরিকল্পনা ভিত্তিক অবকাঠামো বির্নিমাণে যে অর্থ প্রয়োজন তা সিসিসির পক্ষে সম্ভব নয়। বন্দরের আয়ের একটি অংশ শতাংশ হিসেবে চট্টগ্রামের উন্নয়নে বরাদ্দ করা উচিত।

অনুষ্ঠানেঅন্যান্যেরমধ্যে বক্তব্য দেন সাংসদ ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহদাত হোসেন, ইস্ট ডেল্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক সিকান্দার খান, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম, অধ্যাপক আ ন ম মুনির আহমদ, আইনজীবী এস ইউ এম নুরুল ইসলাম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে২০১২-১৩ অর্থ বছরে সিসিসির গৃহীত ও বাস্তবায়িত বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের বিবরণ তুলে ধরা হয়।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক