গানের মধ্য দিয়েই প্রতিবাদ জানালেন লালন-ভক্তরা

২৮ জন বাউলের চুল ও গোফ কেটে দেওয়ার প্রতিবাদ গানের মধ্য দিয়েই জানিয়ে দিলেন লালন-ভক্তরা। রাজবাড়ীর পাংশায় সাধুসঙ্গ অনুষ্ঠানে তারা এই প্রতিবাদ জানান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 April 2011, 01:11 AM
Updated : 29 April 2011, 01:11 AM
রাজবাড়ী, এপ্রিল ২৯ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- ২৮ জন বাউলের চুল ও গোফ কেটে দেওয়ার প্রতিবাদ গানের মধ্য দিয়েই জানিয়ে দিলেন লালন-ভক্তরা। রাজবাড়ীর পাংশায় সাধুসঙ্গ অনুষ্ঠানে তারা এই প্রতিবাদ জানান।
শুক্রবার বিকালে শেষ হচ্ছে দুদিনব্যাপী সাধুসঙ্গ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রবল বৃষ্টি উপেক্ষা করে দেশ-বিদেশের শত শত লালন-ভক্ত জড়ো হন উপজেলার হাবাসপুর চররামনগর গ্রামের বাউল মোহাম্মদ আলীর বাড়িতে। সেখানে নিজেদের ঐতিহ্য অনুযায়ী বাউলেরা শান্তির বাণী তুলে ধরে গান শুরু করেন।
বাল্যসেবা, পুণ্যসেবা, গুরুকর্ম, গোষ্টগান এবং লালন সংঙ্গীত দিয়ে সাজানো হয় কর্মসূচি।
গত ৫ এপ্রিল রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলায় লালন ভক্ত ২৮ বাউলকে 'তওবা' পড়িয়ে তাদের মাথার চুল ও দাড়ি-গোঁফ কেটে দেওয়ার ঘটনা ঘটে।
সারা দেশে সংস্কৃতি-কর্মীরা এই ঘটনার প্রতিবাদ জানান। বাউল মোহাম্মদ আলী ফকির ১৩ জনকে আসামি করে ৯ এপ্রিল পাংশা থানায় মামলা দায়ের করেন।
১১ এপ্রিল সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটিও এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে। ১৬ এপ্রিল হামলাকারীদের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।
এরপর হাইকোর্ট বাউলদের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় একটি নির্দেশ জারি করে।
পরে 'সমঝোতার ভিত্তিতে' মামলা প্রত্যাহার করে নেয় বাউলেরা। হামলাকারীরা আদালতে আত্মসমর্পন করে।
বাউল মোহাম্মাদ আলীর বাড়ির পাশে বিশাল প্যান্ডেল তৈরি করে আয়োজন করা হয়েছে সাধুসঙ্গের।
বাউল গানের গায়ক আনুশেহ্ আনাদিল বলেন, "আজকের এ মহামিলন ছিল অশান্তির বিরুদ্ধে, শান্তির পক্ষে।"
প্রখ্যাত লেখক বুদ্ধিজীবী ফরহাদ মাযহার বলেন, "এখানে এসেছি আত্মার টানে, প্রাণের তাগিদে; শেকড়ের ওপর আঘাতের প্রতিবাদ জানাতে।"
একই অভিব্যক্তি জানান মার্কিন নাগরিক বাউল ভক্ত সেফথ, সুইডেনের এ্যাডাম্স এবং বৃটিশ ইমোজিন।
তারা জানান, ৫ এপ্রিলের ঘটনার প্রতিবাদ জানাতেই তারা এখানে এসেছেন। এসেছেন লালনের শান্তির বাণী শুনতে।
সাধুসঙ্গ নির্বিঘ
তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক