ঢাকায় খেলার মাঠ ‘হত্যা’ করা হয়েছে: পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী

ঢাকায় শিশু কিশোরদের জন্য খেলার জায়গা নেই, যা ছিল সেগুলোকেও ‘হত্যা করা’ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 June 2022, 03:51 PM
Updated : 27 June 2022, 03:54 PM

সোমবার শিশুদের বাজেট বিষয়ক এক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, “ঢাকা শহরে যেভাবে মাঠগুলোকে হত্যা করা হয়েছে সেটা অনুচিত, সেটা উচিত হয়নি।”

‘জাতীয় বাজেটে শিশুর জন্য সুনির্দিষ্ট বরাদ্দ জরুরি’ শীর্ষক এ আলোচনায় শিশু কিশোরদের জন্য খেলার জায়গা না থাকার বিষয়টিও উঠে আসে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মাঠ না থাকায় শিশু কিশোররা বিভিন্ন গেইমে আসক্ত হয়ে যাচ্ছে, এসনকি পর্নেও আসক্ত হয়ে যাচ্ছে। এজন্য খেলার জায়গা দরকার।

তিনি বলেন, “ঢাকা শহরে যে মাঠগুলো ছিল। সেগুলোর চারদিকে ওয়াকওয়ে করে নাম দিয়ে...আপনি যদি ১০ ফিট নিয়ে নেন চারদিক থেকে ওয়াকওয়ের জন্য এটাতো হওয়ার কথা না। আমাদের চিন্তা চেতনা ভাবনায় রাখতে হবে মাঠটাতো বাচ্চাদের জন্য। এদের আগে প্রায়রিটি দিতে হবে। মাঠের বাইরে ফুটপাতও আছে। সেটাকেই ওয়াকওয়ে বানানো যেত।”

শামসুল বলেন, “ওয়াকওয়েটা আবার খুব সুন্দর করে রাখা হয়েছে। কয়েকজন এক সাথে হাঁটতে পারে। কিন্তু পার্কতো নষ্ট হয়ে গেল। মানুষ হাঁটবে, হাঁটা জরুরি। কিন্তু ছেলে মেয়েদের খেলার জায়গা জলাঞ্জলি দিলে তো হবে না।

“আমি একটি কথাই বলব ঢাকা শহরে যেভাবে মাঠগুলোকে হত্যা করা হয় সেটা অনুচিত, সেটা উচিত হয়নি। ভবিষ্যতে আমাদের মনে হয় আরও সতর্ক হওয়া দরকার।”

তিনি ইউনিয়ন পর্যায়ের খেলার মাঠগুলো খোলা রাখার বিষয়েও তাগিদ দেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, “আমাদের প্রধানমন্ত্রী যেটা বলেন আমাদের প্রতিটি স্টেডিয়াম হবে উন্মুক্ত। বন্ধ করে দিলে তালা মেরে রাখলে, ওয়াল ধসে পড়ে- খেলাধুলা কিছুই হয় না। এই ধারাটা আমাদের পাল্টাতে হবে।

“আমাদের চিন্তা চেতনার দিক দিয়ে একটু অগ্রসর হেতে হবে। পরে দেখা যায় এই তালা ভেঙ্গে ভিতরে গিয়ে নেশা করে।“

ভারত ও পাকিস্তানকে আয়ের দিক দিয়ে, সামাজিক বিভিন্ন সূচকে পেছনে ফেলার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, কিন্তু সাংস্কৃতিক দিক, খেলাধুলার দিক দিয়ে এবং চিন্তা চেতানয় মনে হয় আমাদের আরও অগ্রসর হতে হবে।

আলোচনায় শিশুদের জন্য বাজেট বাড়ানোর পরামর্শ দিয়ে শামসুল বলেন, বরাদ্দ বাড়ানোর চেয়েও বাস্তবায়ন জরুরি।

“বাংলাদেশের বাজেটে যে টাকা দেওয়া হয়েছে এর মধ্যে একমাত্র ধর্ম মন্ত্রণালয় পুরো টাকা ব্যাবহার করতে পেড়েছে। বাজেটে কোন খাতে কত টাকা বরাদ্দ দেওয়া হল সেটা বড় বিষয় নয়। বাজেট কতটা বাস্তবায়ন করা হল সেটা হচ্ছে মূল কথা।”

চিলড্রেন অ্যাফেয়ার্স জার্নালিস্টস নেটওয়ার্ক (সিএজেএন) আয়োজিত এ আলোচনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক সাইফুল আলম। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. আবু ইউসুফ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক