নামজারি ‘মঞ্জুর' না হলে জানাতে হবে কারণ

নামজারির আবেদন বাতিল করার আগে সেবা গ্রহীতাকে তথ্য বা কাগজপত্রের ঘাটতির তথ্য জানিয়ে এবং সময় দিয়ে নোটিশ দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে ভূমি মন্ত্রণালয়।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Feb 2022, 01:06 PM
Updated : 7 Feb 2022, 01:37 PM

একই সঙ্গে চূড়ান্তভাবে আবেদন ‘না মঞ্জুর’ করার ক্ষেত্রেও তথ্য বা কাগজপত্রের ঘাটতি কিংবা অন্য কোনো কারণ থাকলে তা সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করতে সহকারী কমিশনারদের (ভূমি) আদেশ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার এমন নির্দেশনা দিয়ে পরিপত্র জারি করেছে ভূমি মন্ত্রণালয়।

নাগরিকের ভোগান্তি কমাবে 'ই-নামজারি আবেদন বাবদ ফি জমা প্রদানের পর আদেশ ব্যতীত নামজারির আবেদন না-মঞ্জুর প্রসঙ্গে' শীর্ষক এ পরিপত্রে বলা হয়েছে।

ভূমি অফিসের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে ভূমি সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত পরিপত্রে বলা হয়েছে।

সাধারণত ভূমি মালিকের মৃত্যুর কারণে উত্তরাধিকারদের নাম সরকারি রেকর্ডে অন্তর্ভুক্ত করতে, জমি বিক্রি, দান, হেবা, ওয়াকফ, অধিগ্রহণ, বন্দোবস্ত ইত্যাদি সূত্রে হস্তান্তর হলে নতুন ভূমি মালিকের নামে রেকর্ডভুক্ত করতে বা দেওয়ানি মামলার রায় বা ডিক্রি মূলে মালিকানা লাভ করলে সে রায় অনুযায়ী নামজারির আবেদন করতে হয়।

নামজারি সংক্রান্ত জটিলতা নিরসনে ভূমি মন্ত্রণালয় এর আগে ই-নামজারি পদ্ধতি চালু করে।

জমির নামজারির জন্য ২০২১ সালের ১৭ মার্চ থেকে আর কোনো ম্যানুয়াল আবেদন নেওয়া হবে না বলে জানিয়েছিলেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী।

তিনি বলেছিলেন, যেসব ভূমি অফিসে বিদ্যুৎ সুবিধা নেই সেখানে সৌর বিদ্যুৎ সিস্টেম স্থাপন করে ই-নামজারি চালু করা হবে।

সোমবারের নির্দেশনার ফলে ভূমিসেবা গ্রহীতারা নামজারি আবেদন না-মঞ্জুর হয়ে যাওয়ার আগে একবার সুযোগ পাবেন ঘাটতি কাগজপত্র জমা দেওয়ার।

পরিপত্রে বলা হয়, ভূমি মন্ত্রণালয়ের গত বছরের ২ নভেম্বর ৫৬০ নম্বর পরিপত্রে ই-নামজারির আবেদনের সময় আবশ্যিকভাবে প্রথমেই কোর্ট ফি হিসেবে ২০ টাকা এবং নোটিশ জারি ফি হিসেবে ৫০ টাকা জমা দেওয়ার নির্দেশনা রয়েছে।

এ টাকা পরিশোধের পর নামজারির আবেদন সহকারী কমিশনারের (ভূমি) আইডিতে তালিকাভুক্ত হয়।

অনেক সময় সহকারী কমিশনারের (ভূমি) প্রথম আদেশের আগেই অনেক আবেদন 'না মঞ্জুর' করা হয়।

এমন ক্ষেত্রে কী কারণে আবেদন না মঞ্জুর হয়েছে নাগরিক তা জানতে পারেন না উল্লেখ করে পরিপত্রে বলা হয়েছে, এটি ভূমি অফিসের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির পথে বাধা।

নামজারি নিয়ে নাগরিকের ভোগান্তি কমাতে এবং ভূমি অফিসের সেবা নিশ্চিত করতে সহকারী কমিশনারের (ভূমি) প্রথম আদেশের আগে নামজারি বাতিল করা যাবে না।

সেবাগ্রহীতার আবেদনে কোনো তথ্য অথবা কাগজপত্রের ঘাটতি থাকলে প্রথম আদেশে তা উল্লেখ করে তথ্য বা কাগজপত্র দাখিলের নির্দিষ্ট সময়সীমা দিতে হবে বলে পরিপত্রে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

একইভাবে দ্বিতীয় আদেশেও সুনির্দিষ্টভাবে আবেদন না মঞ্জুর কারণ গ্রহীতাকে জানাতে হবে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক