বৃষ্টিতে পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে পৌঁছে দিল ট্রাফিক পুলিশ

বৃষ্টি মাথায় নিয়ে পরীক্ষার হলে পৌঁছানোর চিন্তায় যখন অস্থির সময় গুনছিলেন শিক্ষার্থীরা, তখন এসব এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের উৎকণ্ঠা আর উদ্বেগে খানিকটা উপশম দিয়েছে ঢাকার ট্রাফিক পুলিশ।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Dec 2021, 04:45 PM
Updated : 6 Dec 2021, 04:45 PM

রোদ, বৃষ্টি মাথায় নিয়ে রাস্তায় দীর্ঘ সময় যান চলাচল নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা থেকেই তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত নিয়ে পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়ার পদক্ষেপ নেয় ট্রাফিক পুলিশ।

ঘূর্ণিঝড় ‘জোয়াদের’ প্রভাবে রোববার রাত থেকে বৃষ্টি শুরু হয়। পরদিন সকালেও টানা বর্ষণে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পানি জমে থাকায় সড়কে কমে যায় যানবাহন চলাচল।

সোমবার সকালেও অগ্রহায়ণের অসময়ের এ বৃষ্টিতে ভোগান্তিতে পড়েন কর্মজীবী ও উচ্চ মাধ্যমিকের পরীক্ষার্থীরা। পদার্থবিদ্যা দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষায় অংশ নিতে বৃষ্টি মাথায় করেই তাদের ছুটতে হয়েছে কেন্দ্রের দিকে।

এসময় শরীর-মাথা ঢেকে শিক্ষার্থীদের রাস্তার পাশে যানবাহনের জন্য ‘তীর্থের কাকের’ মতো দাঁড়িয়ে থাকতে হয়েছে দীর্ঘ সময়। এসব শিক্ষার্থীর সহায়তা দিতেই এগিয়ে আসে ট্রাফিকের ওয়ারী বিভাগ।

ঢাকা মহানগর পুলিশের ওয়ারী বিভাগের উপকমিশনার (ট্রাফিক) মো. সাইদুল ইসলাম জানান, এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের দুর্ভোগ কমাতে তাৎক্ষণিকভাবে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়। 

“ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের সব এডিসিসহ সব জোনের এসিদের নিজেদের সরকারি গাড়িতে করে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছাতে সহযোগিতা করা হয়।”

তিনি জানান, সহকারী কমিশনার (ট্রাফিক) ডেমরা জোন শ্যামপুর কলেজ কেন্দ্রের পরীক্ষার্থীদের, সহকারী কমিশনার (ট্রাফিক) যাত্রাবাড়ী জোন দনিয়া কলেজ কেন্দ্রের পরীক্ষার্থীদের, সহকারী কমিশনার ওয়ারী জোন সেন্ট্রাল উইমেন্স কলেজ কেন্দ্রের পরীক্ষার্থীদের তাদের সরকারি গাড়িতে করে কেন্দ্রে পৌঁছে দিয়েছেন।

সাইদুল বলেন, “এসব গাড়িসহ বিভিন্ন স্থানে দায়িত্বরত সার্জেন্টদের মোটরসাইকেলে করে ৫০ জন পরীক্ষার্থীকে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।”

ডেমরা জোনের ট্রাফিক পুলিশের সহকারী কমিশনার ইমরান হোসেন মোল্লা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সকালে দায়িত্ব পালনের সময় লক্ষ্য করেছি যে, শিক্ষার্থীরা গাড়ির অভাবে রাস্তার পাশের দাঁড়িয়ে রয়েছেন। পরীক্ষার সময়ও ঘনিয়ে আসছে। তাই তাৎক্ষণিকভাবে সিদ্ধান্তে পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়া হয়।”

মহামারীর কারণে দেড় বছরের বেশি সময় বিরতি দিয়ে গত ২ ডিসেম্বর এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। এবার ১৩ লাখ ৯৯ হাজার ৬৯০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় বসার কথা।

সূচি অনুযায়ী সোমবার সকাল ১০টায় পদার্থ বিজ্ঞান দ্বিতীয়পত্র আর দুপুর ২টা থেকে সাধারণ বিজ্ঞান এবং খাদ্যপুষ্টি ও পুষ্টি বিজ্ঞান দ্বিতীয়পত্রসহ খাদ্য ও পুষ্টি এবং লঘু সংগীত দ্বিতীয়পত্রের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

আরও পড়ুন:

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক