মহামারী: রুদ্ধ দিনের মন্তাজ

ভাইরাস নিয়ন্ত্রণের লকডাউনে খেটে খাওয়া মানুষের এমনিতেই নাভিশ্বাস; তার ওপর যোগ হয়েছে তপ্ত বৈশাখ। বিধিনিষেধের মধ্যেই নিরুপায় মানুষ প্রখর রোদে পথে নামছে জীবিকার সন্ধানে, সাহায্যের আশায়। কেউ আবার হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন স্বজনের চিকিৎসার জন্য।
  • তিন মাসের মেয়ে হালিমাকে কোলে নিয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকার ফুটপাতে সবজি বিক্রি করতে বসেছেন আসমা বেগম। সবজিগুলো তিনি পেয়েছিলেন সাহায্য হিসেবে। আসমার স্বামী সুমন মিয়া আগে ওয়াসার পয়নিষ্কাশন লাইন পরিষ্কারের কাজ করতেন। বেশ কিছুদিন হল সেই কাজও তার নেই। আগে তারা থাকতেন গুলিস্তানে, স্টেডিয়াম এলাকার ফুটপাতে। লকডাউনের মধ্যে সেখান থেকে উচ্ছেদ হওয়ার পর আপাতত তাদের ঠাঁই হয়েছে শহীদ মিনার এলাকার ফুটপাতে।

    তিন মাসের মেয়ে হালিমাকে কোলে নিয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকার ফুটপাতে সবজি বিক্রি করতে বসেছেন আসমা বেগম। সবজিগুলো তিনি পেয়েছিলেন সাহায্য হিসেবে। আসমার স্বামী সুমন মিয়া আগে ওয়াসার পয়নিষ্কাশন লাইন পরিষ্কারের কাজ করতেন। বেশ কিছুদিন হল সেই কাজও তার নেই। আগে তারা থাকতেন গুলিস্তানে, স্টেডিয়াম এলাকার ফুটপাতে। লকডাউনের মধ্যে সেখান থেকে উচ্ছেদ হওয়ার পর আপাতত তাদের ঠাঁই হয়েছে শহীদ মিনার এলাকার ফুটপাতে।

  • ‘লকডাউন’ জেনেও পেটের তাগিদে রিকশা নিয়ে রাস্তায় নেমেছিলেন ৭০ বছর বয়সী মোফাজ্জল হোসেন। বৈশাখের তপ্ত দুপুরে পা তো আর চলে না। তাই জগন্নাথ হলের ফুটপাতে গাছের ছায়ায় বসে ক্ষণিকের বিশ্রাম। গত প্রায় বিশ বছর ধরে রিকশার প্যাডেল মেরে দুই ছেলেকে বড় করে তুললেও এখন তারা ব্যস্ত নিজেদের সংসার নিয়ে। মোফাজ্জল হোসেনকে তাই লকডাউনের মধ্যেই রিকশা নিয়ে বের হতে হয়। নিজের আর ছোট মেয়ের মুখে খোবার তো জোটাতে হবে!

    ‘লকডাউন’ জেনেও পেটের তাগিদে রিকশা নিয়ে রাস্তায় নেমেছিলেন ৭০ বছর বয়সী মোফাজ্জল হোসেন। বৈশাখের তপ্ত দুপুরে পা তো আর চলে না। তাই জগন্নাথ হলের ফুটপাতে গাছের ছায়ায় বসে ক্ষণিকের বিশ্রাম। গত প্রায় বিশ বছর ধরে রিকশার প্যাডেল মেরে দুই ছেলেকে বড় করে তুললেও এখন তারা ব্যস্ত নিজেদের সংসার নিয়ে। মোফাজ্জল হোসেনকে তাই লকডাউনের মধ্যেই রিকশা নিয়ে বের হতে হয়। নিজের আর ছোট মেয়ের মুখে খোবার তো জোটাতে হবে!

  • আগে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ফুল বিক্রি করতেন নাজমা বেগম। স্বামী চালাতেন রিকশা। মহামারীর কারণে দুজনেরই আয়ের চাকা থমকে গেছে। জমানো কিছু টাকা দিয়ে তিনি এখন মাস্ক কিনেছেন। শিশু সন্তানকে কোলে নিয়ে রাস্তার পাশে বসেছেন সেই মাস্ক বিক্রি করতে। কিন্তু লকডাউনে মানুষের চলাচল কম; বিক্রিও নেই তেমন।

    আগে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ফুল বিক্রি করতেন নাজমা বেগম। স্বামী চালাতেন রিকশা। মহামারীর কারণে দুজনেরই আয়ের চাকা থমকে গেছে। জমানো কিছু টাকা দিয়ে তিনি এখন মাস্ক কিনেছেন। শিশু সন্তানকে কোলে নিয়ে রাস্তার পাশে বসেছেন সেই মাস্ক বিক্রি করতে। কিন্তু লকডাউনে মানুষের চলাচল কম; বিক্রিও নেই তেমন।

  • করোনাভাইরাস মহামারীর বেসামাল পরিস্থিতিতেই গত ১৮ এপ্রিল চালু হয়েছে ডিএনসিসি কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতাল। সেখানে রোগীর সংখ্যা প্রতিদিনিই বাড়ছে। কয়েকটি হাসপাতাল ঘুরে স্বজনকে ভর্তি করাতে না পেরে মহাখালীর ডিএনসিসি হাসপাতালে আসা এই নারী অ্যাম্বুলেন্সে অপেক্ষা করছেন।

    করোনাভাইরাস মহামারীর বেসামাল পরিস্থিতিতেই গত ১৮ এপ্রিল চালু হয়েছে ডিএনসিসি কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতাল। সেখানে রোগীর সংখ্যা প্রতিদিনিই বাড়ছে। কয়েকটি হাসপাতাল ঘুরে স্বজনকে ভর্তি করাতে না পেরে মহাখালীর ডিএনসিসি হাসপাতালে আসা এই নারী অ্যাম্বুলেন্সে অপেক্ষা করছেন।

  • করোনাভাইরাস পরীক্ষা করতে মহাখালীর ডিএনসিসি কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতালে এসেছেন এই নারী। হাসপাতালে রোগীর ভিড় থাকায় অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে তাকে।

    করোনাভাইরাস পরীক্ষা করতে মহাখালীর ডিএনসিসি কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতালে এসেছেন এই নারী। হাসপাতালে রোগীর ভিড় থাকায় অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে তাকে।

  • মহাখালীর ডিএনসিসি কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতালের বাইরে রোগীদের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে অপেক্ষায় এক হাসপাতাল কর্মী। অ্যাম্বুলেন্সে রোগী এলে নামানোর সময় অক্সিজেনের প্রয়োজন হয় অনেকের। তাদের সহায়তা দিতে প্রস্তুত তিনি।

    মহাখালীর ডিএনসিসি কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতালের বাইরে রোগীদের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে অপেক্ষায় এক হাসপাতাল কর্মী। অ্যাম্বুলেন্সে রোগী এলে নামানোর সময় অক্সিজেনের প্রয়োজন হয় অনেকের। তাদের সহায়তা দিতে প্রস্তুত তিনি।

Print Friendly and PDF