পাপিয়ার টাকাকড়ির খোঁজে ব্যাংকগুলোকে দুদকের চিঠি

যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেতা শামীমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমনের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধানে ব্যাংকগুলোকে চিঠি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 8 March 2020, 02:35 PM
Updated : 8 March 2020, 02:35 PM

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্সইউনিট (বিএফআইইউ) এবং দেশি-বিদেশি ৫৯টি ব্যাংকে রোববার এই চিঠি পাঠানো হয়।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য বিডিনিউজটোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছেন, “বিদেশে এই দম্পতির বাড়ি ও ব্যাংক হিসাবের তথ্য জানতেথাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়াতেও চিঠি পাঠানো হয়েছে।”

দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে সংস্থাটির উপ-পরিচালক শাহীন আরামমতাজের সই করা পৃথক চিঠিগুলো ব্যাংকগুলোর এমডি ও বিএফআইইউ প্রধানের কাছে পাঠানো হয়।

পাপিয়া ও তার স্বামীর অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানের দায়িত্ব পাওয়াকর্মকর্তা মমতাজ এর আগে গত ২ মার্চ হোটেল ওয়েস্টিন ও রিয়েল এস্টেট কোম্পানিডোম-ইনোকে চিঠি দিয়েছিলেন।

ওই চিঠিতে হোটেল ওয়েস্টিন থাকা ও খাওয়ার বিলের কপি, বিভিন্নসময় হোটেল বুকিংয়ের নথিপত্র ও কার কার নামে রুম বুকিং করা হয়েছে, সেসব বিষয় সংশ্লিষ্টনথিপত্র চাওয়া হয়।

৮ মার্চের মধ্যে তথ্য জানাতে বলা হলেও নথিপত্র এখনও দুদকেপৌছায়নি বলে রোববার সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

পাপিয়া পাঁচ তারা হোটেল ওয়েস্টিনের ব্যয়বহুল প্রেসিডেনশিয়ালস্যুইট মাসের পর মাস ভাড়া রেখে ‘যৌনসেবার কারবার’ চালাতেন বলে তাকে গ্রেপ্তারের পরর‌্যাব জানায়।

গত ২২ ফেব্রুয়ারি গ্রেপ্তার পাপিয়ার বিরুদ্ধে যে মামলাগুলোহয়েছে, তার বিবরণ অনুযায়ী মোট ৫১ দিন ওই কক্ষ ছিলেন পাপিয়া, আর এ জন্য বিলমিটিয়েছেন ৮১ লাখ ৪২ হাজার ৮৮৭ টাকা। আর এই হোটেলে এই সময়ের জন্য অবস্থানকালে বারব্যবহারের জন্য ব্যয় করেছেন এক কোটি ২৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা। প্রতিদিন হোটেলবেয়ারাদের টিপস দিতেন ৮/১০ হাজার টাকা।

গ্রেপ্তারের পর র‌্যাব হেফাজতে শামীমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান সুমন (বাঁয়ে পেছনে)

র‌্যাব-১ অধিনায়ক শাফী উল্লাহ বুলবুল সেদিন বলেছিলেন, “সুনির্দিষ্টপেশা না থাকলেও তারা (পাপিয়া-সুমন) স্বল্প সময়ে বিশাল সম্পত্তি ও অর্থ-বিত্তেরমালিক হয়েছেন। এই বিশাল অর্থের প্রকৃত উৎস জানতে চাওয়া হলে সন্তোষজনক কোনো জবাবতারা দিতে পারেননি।”

ঢাকার ইন্দিরা রোডে ওই দম্পতির দুটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট,নরসিংদী শহরের দুটি ফ্ল্যাট, গাড়ি, নরসিংদীর বাগদী এলাকায় কোটি টাকা মূল্যেরদুটি প্লটের খোঁজ পাওয়ার কথা জানায় র‌্যাব।

এছাড়া তেজগাঁও এফডিসি গেইট সংলগ্ন এলাকায় 'কার এক্সচেঞ্জ'নামে একটি গাড়ির দোকানে প্রায় এক কোটি টাকা এবং ‘কেএমসি কার ওয়াশ অ্যান্ড অটোসলিউশনস' নামের একটি প্রতিষ্ঠানে ৪০ লাখ টাকা বিনিয়োগ আছে তাদের।

দেশের বিভিন্ন ব্যাংকে নামে-বেনামে বিভিন্ন অ্যাকাউন্টে ওইদম্পতির বিপুল পরিমাণ অর্থ জমা থাকার তথ্য মেলার কথাও জানিয়েছিল র‌্যাব।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক