বৃষ্টিতে নগরে হিম হিম

পঞ্জিকার পাতায় শরৎ শেষে হেমন্তের আগমনধ্বনি; এরই মধ্যে রাজধানীতে মাঝারি বৃষ্টিতে নেমেছে হিম হিম ভাব।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 Oct 2019, 08:10 AM
Updated : 16 Oct 2019, 08:15 AM

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশ থেকে বিদায় নিয়েছে। বৃষ্টির কারণে তাপমাত্রা কমলেও পরিবেশে শীতের আমেজ আসতে আরও মাস দেড়েক অপেক্ষা করতে হবে। 

আবহাওয়াবিদ এ কে এম নাজমুল হক বলেন, “এখন পূর্ব-উত্তর পুবালি বাতাস বইছে। কিন্তু আবহাওয়ার প্যাটার্ন হালকা বদলে গিয়ে দক্ষিণ- দক্ষিণ পশ্চিম দিক থেকে জলীয় বাষ্প আসায় বৃষ্টি হচ্ছে। এ ধরনের হালকা বৃষ্টি আরও দুয়েকদিন থাকবে।”

বুধবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের দুয়েক জায়গায় অস্থায়ী দমকাসহ বজ্র বৃষ্টি হতে পারে। দেশের অন্যত্র আবহাওয়া প্রধানত শুকনো থাকবে। দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমবে।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে শীতালু ভাব বাড়বে। এখন উত্তুরে হাওয়া না বইলেও মধ্য কার্তিকে ঝিরঝিরে বৃষ্টি ঠাণ্ডার অনুভূতি বাড়াবে। হেমন্তে সন্ধ্যা-রাত ও ভোরে কুয়াশা থাকা বা হালকা বৃষ্টি অস্বাভাবিক কিছু নয়।

নভেম্বর মাসে রাতের তাপমাত্রা কমতে থাকবে। ডিসেম্বরের শেষার্ধে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

আবহাওয়াবিদ নাজমুল হক বলেন, “আজকের মত ঝিরঝিরে বৃষ্টি ঢাকায় আরও দু’তিন দিন থাকতে পারে। বৃষ্টির এই প্রবণতা কমে এলে তাপমাত্রা কিছুটা বাড়বে।”

মঙ্গলবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল সিলেটে ৩৫.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস; দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায় ২০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বুধবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় রাঙ্গামাটিতে ৫৭ মিলিমিটার, শ্রীমঙ্গলে ৩২ মিলিমিটার ও হাতিয়ায় ২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক