এভাবে চলতে পারে না, যেভাবে চলছে: মেয়র খোকন

গণপরিবহনে নৈরাজ‌্য, যানজট, দূষণ আর বছর বছর বাড়িভাড়া বৃদ্ধির মত নানা নাগরিক সমস‌্যা নিয়ে নাগরিক সাংবাদিক ও সাংবাদিকতার শিক্ষার্থীরা একের পর এক প্রশ্ন ছুড়ে দিলেন; নগরপ্রধান হাসিমুখে জবাব দিলেন, আশা দিলেন ঢাকাকে আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তোলার।

মাসুম বিল্লাহবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 Feb 2017, 03:01 PM
Updated : 16 Feb 2017, 03:07 PM

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন বললেন, “শহর এভাবে চলতে পারে না, যেভাবে চলছে।”

ব্লগ ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের ছয় বছর পূর্তি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার নাগরিক সাংবাদিকদের এক মিলনমেলায় হাজির হয়েছিলেন ঢাকা দক্ষিণের মেয়র। ধানমণ্ডির ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে দিনব‌্যাপী এ আয়োজনের শিরোনাম ছিল ‘নাগরিক সাংবাদিকরা এসেছে- মেয়র সমীপেষু’।

প্রাথমিক আনুষ্ঠানিকতার পর মেয়র মুখোমুখি হন প্রশ্নোত্তর পর্বের। নাগরিক সাংবাদিকদের সঙ্গে ড্যাফোডিলের শিক্ষার্থীরাও বিভিন্ন প্রশ্ন করেন মেয়রকে।

যানজট ও বায়ুদূষণ নিয়ে এক প্রশ্নে সাঈদ খোকন বলেন, দেখা যায় রাস্তার উপর তিন সারিতে বাস দাঁড়িয়ে আছে, আর তার পেছনে যানবাহনের দীর্ঘ জট। সেখানে অ্যাম্বুলেন্সে আছে কোনো মুমূর্ষু রোগী।

“যারা অন্যায় করবে তারা যতই ক্ষমতাবান হোক, তারা আমার কাছ থেকে ছাড় পাবে না। গুণ্ডা মাস্তানদের কোনো দল নাই, ক্ষমতা পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে তাদের দলও পরিবর্তন হয়ে যায়।”

নগর ঢাকার নানা সমস্যার কথা এই প্রশ্নোত্তর পর্বে যেমন এসেছে, তেমনি এসেছে মেয়রকে জনগণের সঙ্গে আরও বেশি সম্পৃক্ত করা এবং নগরীর সমস্যা মোকাবিলায় জনমত গঠনে সিটি করপোরেশনের উদ্যোগের প্রসঙ্গ।

অটোরিকশায় ভাড়া বেশি নেওয়া এবং গাড়ি পেতে নগরবাসীর দুর্ভোগের বিষয়ে মেয়রের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন একজন ব্লগার।

জবাবে সাঈদ খোকন বলেন, সিটি করপোরেশনের যে ক্ষমতা ও কর্মপরিধি, তা ‘অত্যন্ত সীমিত’। এ কারণে সম্প্রতি ৫৬টি সংস্থার সঙ্গে সমন্বয় করে কাজের বিষয়ে একটি পরিপত্র জারি করা হয়েছে।

“অটোরিকশার এই সমস্যা আমাদের কর্মপরিধির বাইরে। তবে বিআরটিএ-এর সঙ্গে আলাপ করে এবং তাদের লোকবল দিয়ে কিছুটা সমাধান হয়তো করা যাবে।”

এ ধরনের সমস্যার সমাধানে মানুষের মনোজগতের পরিবর্তনের পাশাপাশি আইনের কঠোর প্রয়োগের ওপর জোর দেন আওয়ামী লীগ নেতা সাঈদ খোকন। 

তিনি বলেন, “সহসা এসব সমস্যার সমাধান হয়ত হবে না, তবে আমরা কাজের শুরুটা করতে চাই।”

বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ এবং সার্ভিস চার্জের রশিদ দেওয়া প্রসঙ্গে এক প্রশ্নে মেয়র বলেন, “এটাও আমাদের কর্মপরিধির বাইরে, এজন্য বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ বিভাগ আছে। অনেকে ট্যাক্স দেওয়াসহ বিভিন্ন ঝামেলা এড়ানোর জন্য রশিদ দিতে চান না।

“আপনি যদি বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ বিভাগের কাছে কোনো অভিযোগ করেন, সেক্ষেত্রে আমি ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করে দিতে পারি।”

নাগরিকদের সমস্যা শোনার জন্য সিটি করপোরেশনের পদক্ষেপ কী আছে জানতে চাইলে মেয়র বলেন, সিটি করপোরেশন ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ‘জনতার মুখোমুখি জনপ্রতিনিধি’ সভার আয়োজন করে। এ পর্যন্ত ২০টির মতো ওয়ার্ডে এ আয়োজন হয়েছে।

“নিয়মিত আয়োজনে আমরা তাদের কথা শুনি। যেসব সমস্যার দ্রুত সমাধান করা যায়, সেগুলো দ্রুত এবং যেগুলো দীর্ঘমেয়াদী সমস্যা, সেগুলোর সমাধানের জন‌্য আমরা মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা করি।”

নগরবাসীর অভিযোগ-অনুযোগ শোনার জন্য একটি রেডিওতে ‘হ্যালো মেয়র’ অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথাও বলেন সাঈদ খোকন।

“প্রতি সোমবার সকাল ৮টায় নগরবাসী টেলিফোন করে এবিসি রেডিওর ওই অনুষ্ঠানে তাদের সমস্যার কথা আমাকে জানাতে পারেন। তাদের নানা প্রশ্নের উত্তর আমি দিই।”

বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ নানা বিষয়ে নগরবাসীকে সচেতন করার ক্ষেত্রে নগর কর্তৃপক্ষের উদ্যোগের বিষয়েও জানতে চান এক নাগরিক সাংবাদিক।

মেয়র বলেন, টিভিতে বিজ্ঞাপন দিয়ে কিংবা বিভিন্ন আয়োজনের মাধ‌্যমে সচেতনতা তৈরিতে কাজ করছে সিটি করপোরেশন। তাতে জনগণকেও সম্পৃক্ত করা হচ্ছে।

নগরবাসীকে সন্ধ্যা ৭টার পর নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা-আবর্জনা ফেলার আহ্বান জানিয়ে মেয়র বলেন, নির্দিষ্ট সময়ে ও নির্ধারিত স্থানে ময়লা-আবর্জনা না ফেললে সেগুলো সরানো সিটি করপোরেশনের কর্মীদের জন্য কঠিন হয়ে যায়।

“আমরা সবাই মেয়র- এমন একটি ভূমিকায় আসতে হবে প্রত্যেকটি মানুষকে। তা না হলে কোটি মানুষের সমস্যার সমাধান কোনোভাবে করা যাবে না। আপনারা লেখালেখি করে সেই কাজটা করতে পারেন।”

দক্ষিণ সিটিতে বসানো ৫ হাজার ৭০০টি ডাস্টবিনের মধ্যে ২৫০টির মতো চুরি হওয়া কিংবা নষ্ট হওয়ার কথা জানিয়ে সেগুলো দ্রুত বসানোর আশ্বাস দেন মেয়র।

ময়লা-আবর্জনা সরানোর কাজে শিশু শ্রমিকদের ব্যবহার বন্ধে উদ্যোগ নেওয়া প্রসঙ্গে এক শিক্ষার্থী জানতে চাইলে সাঈদ খোকন বলেন, “শিশুশ্রম আইনত দণ্ডনীয়। শিশুদের এ কাজ থেকে ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে আমরা পদক্ষেপ নেব।”

ব্যাচেলরদের বাড়িভাড়া না দেওয়া প্রসঙ্গে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রের প্রশ্নের উত্তরে সাঈদ খোকন বলেন, “হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার পর ব্যাচেলরদের বাড়িভাড়া পাওয়া আরও কঠিন হয়ে পড়েছে- এটা ঠিক। গুটিকয় মানুষের জন্য সমস্ত ব্যাচেলর ও শিক্ষার্থীরা নজরদারির মধ্যে পড়ে গেছে। তবে শিক্ষার্থীদের থাকার বন্দোবস্ত তাদের প্রতিষ্ঠানকে করতে হবে।”

সম্প্রতি ঢাকার গুলিস্তান, মতিঝিল এলাকা থেকে উচ্ছেদ হওয়া হকারদের পুনর্বাসনের বিষয়েও মেয়রকে প্রশ্ন করেন এক শিক্ষার্থী।

উত্তরে নগরপ্রধান বলেন, “তারা যদি কোনো কাজ না পায়, প্রয়োজনে সরকারি যে ঋণ সুবিধা আছে, তার মাধ্যমে বিদেশে পাঠিয়ে দেব। কিংবা নানা উন্নয়ন কাজে সম্পৃক্ত করব। কিন্তু তারা কোনোভাবেই ফুটপাত ও রাস্তা দখল করতে পারবে না।”

সিটি এলাকার বিভিন্ন স্থানে পাঁচটি হলিডে মার্কেট করার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, “আরও কিছু হলিডে মার্কেটের পাশাপাশি রাত্রিকালীন মার্কেট করার কার্যক্রম আমরা হাতে নিয়েছি।”

বায়ুদূষণ রোধে নগর কর্তৃপক্ষের নেওয়া পদক্ষেপের বিষয়ে মেয়র দাবি করেন, মেক্সিকো সিটি কিংবা দিল্লীর মতো শহরের তুলনায় ঢাকার বায়ুদূষণ ‘অনেক কম’।

“তবে আমাদের এখানে নানা উন্নয়ন কাজ এবং যত্রতত্র মালামাল রেখে বাড়ি নির্মাণের কারণে দূষণ ও ধুলোবালির সমস্যা প্রকট।”

সাঈদ খোকন দাবি করেন, এ ক্ষেত্রে ‘মূল দায়িত্বটা’ পরিবেশ অধিদপ্তরের। তারপরও ধুলো ওড়া কমাতে সিটি করপোরেশন থেকে সড়কে নিয়মিত পানি ছিটানো হয়।

আধুনিক ও উন্নতমানের পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করে নগরবাসীর সমস্যা সমাধান করা হচ্ছে মন্তব‌্য করে মেয়র বলেন, “এর রক্ষণাবেক্ষণের জন‌্য ৫-১০ টাকা আমরা নিচ্ছি। সেখানে প্রতিবন্ধীদের জন‌্য এবং ব্রেস্ট ফিডিংয়ের মতো উন্নত ব্যবস্থাও আছে।”

প্রধান তথ্য কমিশনার অধ্যাপক গোলাম রহমান অনুষ্ঠানে বলেন, নগরীর সমস্যার সমাধান কেবল মেয়র কিংবা সরকারকে দিয়ে সম্ভব নয়। এজন্য জনগণকে সচেতন করতে হবে সবার আগে।

নগরবাসীর নানা সুযোগ-সুবিধার বিষয়ে তথ্য অধিকার আইনের সাহায্য নেওয়ারও আহ্বান জানান তিনি।

অধ্যাপক গোলাম রহমান বলেন, “নাগরিক সাংবাদিকতা সাংবাদিকতারই এক্সটেনশন। আগে পত্রিকায় চিঠিপত্র কলামে লেখা পাঠানোর সুযোগ থাকলেও তা ছিল সীমিত। এখন প্রযুক্তির কল্যাণে নিজের লেখা দ্রুত ছড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে এবং লক্ষ-কোটি মানুষের সঙ্গে সমন্বয় ঘটানো সম্ভব হচ্ছে।”

ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান সবুর খান বলেন, পার্কিং সমস্যা, ময়লা-আবর্জনা সরানো এবং পাবলিক টয়লেট ব্যবস্থাপনায় সিটি করপোরেশনের উদ্যোগের সঙ্গে বেসরকারি খাতকেও সম্পৃক্ত করা যায়। সেক্ষেত্রে অনেক নতুন উদ্যোক্তা হয়ত বেরিয়ে আসবে।

আর্টস ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা বলেন, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম নাগরিকদের লেখায় তাদের সমস‌্যার কথা তুলে আনতে ছয় বছর আগে নাগরিক সাংবাদিকতার এই প্ল‌্যাটফর্মের সূচনা করে।

“নাগরিক সাংবাদিকরা কেবল নগরের বা শহরের নানা বিষয় তুলে আনেন তা নয়, তারা টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া সব জায়গার খবর রাখেন। সেসব অনেক বিষয় হয়ত মূলধারার সংবাদমাধ্যমে আসে না। নাগরিক যিনি, তিনি এটা করতে পারেন দেশের বাইরে থেকেও। এ কারণে আমরা এটাকে ‘সিভিল জার্নালিজম’ না বলে ‘সিটিজেন জার্নালিজম’ বলছি।”

ব্লগ ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম সম্পাদক আইরিন সুলতানা এবং ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের শিক্ষার্থী রাশেদুল ইসলাম রাতুলের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ইউসুফ মাহবুবুল ইসলাম, সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের প্রধান সেলিম আহমেদও বক্তব্য দেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক