অনিবন্ধিত সিমের ‘সমাধান’ আসছে: তারানা

নির্ধারিত সময়ে যেসব গ্রাহক বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মোবাইল সিম নিবন্ধন করতে পারেনি, তাদের জন্য কয়েকটি সমাধান রয়েছে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 April 2016, 09:57 AM
Updated : 30 April 2016, 12:49 PM

শনিবার বিকালে সংবাদ সম্মেলনে একটি সমাধান দেবেন বলে সকালে ওয়েস্টিন হোটেলে টেলিযোগাযোগ খাতের প্রতিবেদকদের সংগঠন টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বলেছেন তিনি।

অপরাধ কাজে সিমের ব্যবহার বন্ধের লক্ষ্যে গত ১৬ ডিসেম্বর থেকে আঙুলের ছাপ নিয়ে মোবাইল সিম পুনঃনিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হয়, যার সময়সীমা শনিবার শেষ হচ্ছে।

বাংলাদেশের মানুষের হাতে থাকা ১৩ কোটি মোবাইল সিমের মধ্যে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত ৮ কোটি ৩৮ লাখ বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে পুনঃনিবন্ধিত হয়েছে।

এর বাইরে আঙুলের ছাপ না মেলাসহ বিভিন্ন কারণে সোয়া এক কোটি গ্রাহক সিম নিবন্ধনের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন।

বায়োমেট্রিক পদ্ধতি নিবন্ধনবিহীন অন্য সিমগুলো বন্ধের ঘোষণা থাকায় এই সময়সীমা বাড়ানোর দাবি বিভিন্ন মহল থেকে উঠেছে।

সকালে ‘বাংলাদেশে টাওয়ার ব্যবসায় সম্ভাবনা’ সেমিনারে সাংবাদিকরা এই বিষয়ে জানতে চাইলে তারানা বলেন, “এ বিষয়ে বিটিআরসি ও অপারেটরদের সঙ্গে কথা হয়েছে। অনেকগুলো সমাধান মাথায় আছে। এ বিষয়ে আরেকটু আলোচনা করতে চাই। জনগণ কী মনে করে, এ বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে।”

বিকালে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিতে সংবাদ সম্মেলনে এই সমাধান জানিয়ে দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

“সমাধান এবং মতামত যেগুলো আছে, তার সঙ্গে জনগণের প্রত্যাশা বিশ্লেষণ করে আমাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাব।

সময় বাড়ছে কি বাড়ছে না, তাও বিকেল ৫টার সময় জানিয়ে দেব।”

সিম নিবন্ধনে কারিগরি সমস্যারা কথা স্বীকার করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “সমস্যা হচ্ছে তবে সময় লাগছে। এটির সমাধান হচ্ছে। তবে প্রচণ্ড গরমে এই কষ্ট স্বীকার করে যারা সিম নিবন্ধন করেছেন তাদের ধন্যবাদ জানাই।”

৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বেঁধে দেওয়া সময় শেষ হওয়ার একদিন আগে শুক্রবার রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সিম নিবন্ধন কেন্দ্রগুলোতে ছিল গ্রাহকদের ভিড়। শনিবার সকাল থেকেও একই রকম ভিড় দেখা গেছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক