কেমন ভোট হয়েছে, সবাই দেখেছে: সিইসি

গোলযোগ-সংঘর্ষের সঙ্গে জালিয়াতির অভিযোগ উঠলেও সার্বিকভাবে ইউপি ভোট সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য হয়েছে বলে দাবি করেছেন সিইসি কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 22 March 2016, 02:22 PM
Updated : 22 March 2016, 02:22 PM

“প্রত্যেকের নিজস্ব অবস্থান রয়েছে, তাদের অবস্থান থেকে এসব দাবি এসেছে। কেমন ভোট হয়েছে সবাই দেখেছে। প্রযুক্তিনির্ভর সময়ে কোনো কিছু লুকাবার নেই।”

প্রথম ধাপের ৭১২টি ইউপির সবকটিতে ভোট জালিয়াতি হয়েছে বলে বিএনপির অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায় মঙ্গলবার ভোটগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের এই প্রতিক্রিয়া জানান কাজী রকিব।

বিএনপি বলছে, ভোটের নামে ‘প্রহসন’ হয়েছে। জাতীয় পার্টি অন্তত ৫০টি কেন্দ্র দখল হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে। তবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দাবি, উৎসব আমেজে ভোট হয়েছে।

দলীয় প্রতীকে প্রথম ইউপি ভোটের প্রথম পর্বে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলে।

সন্ধ্যায় ইসির মিডিয়া সেন্টারে এসে সাংবাদিকদের সামনে এসে সিইসি বলেন, “আনন্দমুখর পরিবেশে ব্যাপক ভোটারের উপস্থিতিতে সুষ্ঠু ভোট হয়েছে। বিশেষ করে নারী ভোটারের উপস্থিতি ছিল বেশি। ভোটাররা নির্ভয়ে কেন্দ্রে এসেছেন ও নির্বিঘ্নে ফিরে গেছেন।”

৭ হাজার ভোট কেন্দ্রের মধ্যে অনিয়ম ও গোলযোগের জন্য ৬৫টিতে ভোটগ্রহণ বন্ধ করা হয়।

“ভোটের দিন ও ভোটের আগের রাতে বেশ কিছু কেন্দ্রে অনিয়ম হয়েছে; তাই বন্ধ করতে হয়েছে,” বলেন কাজী রকিব।

তবে সারাদেশের প্রেক্ষাপটে এই সংখ্যা ‘সামান্য’ বলে মনে করছেন তিনি।

“অবশ্যই গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হয়েছে। এবার সাড়ে ৬ হাজারের বেশি কেন্দ্র ছিল, এর মধ্যে মাত্র অর্ধশতাধিক কেন্দ্র বন্ধ করতে হয়েছে। এটা অনুপাতে সামান্যই, কোথাও কোনো কমপ্লেইন নেই।”

লক্ষ্মীপুরে সংঘর্ষ

ভোট গ্রহণের সময় বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে অনেকে আহত হয়েছেন। নোয়াখালীর হাতিয়ায় দুই নির্বাচন কর্মকর্তা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। 

এজন্য দুঃখ প্রকাশ করেন সিইসি। এগুলোকে ‘বিচ্ছিন্ন’ ঘটনাও বলেন তিনি।

গত কয়েকদিন ধরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ জানালেও ভোট শেষে সন্তোষই জানিয়েছেন সিইসি।  

“আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীসহ সরকারের সব সংস্থা আমাদেরকে সহযোগিতা করছে। বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটেছে, আমরা এ্যাকশন নিচ্ছি। স্টাফিং হয়েছে দুই জায়গায়, ফায়ারও করেছে পুলিশ, জড়িতদের থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।”

তবে অনেক এলাকায় সংঘাত প্রতিরোধ না হওয়ায় তা খতিয়ে দেখার ইঙ্গিত দেন কাজী রকিব।

তিনি বলেন, “বেশ কয়েকটি জায়গায় গোলযোগ হয়েছে, তারা প্রতিরোধ করল না, আমরা এগুলো দেখছি। আজ রাতেও কিছু এ্যাকশন নেব, পরেও কিছু এ্যাকশন নেওয়া হবে।”

প্রথম দফায় কত শতাংশ ভোট পড়েছে, তা নিয়ে আগাম তথ্য জানাতে চাননি সিইসি। তবে বেশ ‘ভালো সংখ্যক’ ভোট পড়েছে বলে মনে করছেন তিনি।

এর আগে নির্বাচন কমিশনার আবু হাফিজ ভোটার উপস্থিতি ৬০ শতাংশেরও বেশি হবে বলে সাংবাদিকদের ধারণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে আবু হাফিজের পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ, ইসি সচিব মো সিরাজুল ইসলাম ও অতিরিক্ত সচিব মোখলেছুর রহমান সিইসির সঙ্গে ছিলেন।

প্রথম ধাপের আরও ১১ ইউপির ভোট ২৩ মার্চ এবং ২টি ইউপির ভোট ২৭ মার্চ হবে। ছয় পর্বে নবম ইউপি নির্বাচন চলবে আগামী জুন পর্যন্ত।

 

ভোট সংক্রান্ত আরও খবর