পিলখানা মামলা জেনারেল মইন ও জয়নুলকে সাক্ষ্য দিতে তলব

পিলখানা হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দিতে সাবেক সেনাপ্রধান মইন উ আহমেদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিয়া মো. জয়নুল আবেদিনসহ চারজনকে হাজির হতে বলেছে আদালত।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 July 2012, 03:38 AM
Updated : 2 July 2012, 03:38 AM
ঢাকা, জুলাই ০২ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- পিলখানা হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দিতে সাবেক সেনাপ্রধান মইন উ আহমেদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিয়া মো. জয়নুল আবেদিনসহ চারজনকে হাজির হতে বলেছে আদালত।
সোমবার আলীয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী আদালতের বিচারক ঢাকা মহানগর অতিরিক্ত দায়রা জজ মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান এই সমন জারির আদেশ দেন। তাদের বুধবার আদালতে হাজির হতে বলা হয়েছে।
বাকি দুজন হলেন- পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (বর্তমানে মরক্কোর রাষ্ট্রদূত) নূর মোহাম্মদ এবং সাবেক বিডিআর কর্মকর্তা অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্টে কর্নেল জাহান আরা বেগম।
এ আদালতের পিপি মোশররফ হোসেন কাজল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আদালতের কার্যক্রম ৪ জুলাই বুধবার পর্যন্ত মুলতবি করা হয়েছে। ওইদিন তাদের সাক্ষ্য দিতে আসার জন্য সমন জারি করা হয়েছে।”
বুধবার তারা হাজির হতে না পারলে আদালত নিয়ম অনুযায়ী পরবর্তী তারিখ দেবে বলে জানান তিনি।
সোমবার এ মামলায় বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় নিহত ঢাকার সেক্টরের কমান্ডার মজিবুল হকের স্ত্রী মেহেরীন ফেরদৌস, লে. কর্নেল শামসুল আজমের স্ত্রী মুনমুন আক্তার, বিডিআর হাসপাতালের চিকিৎসক স্নিগ্ধা সরকার, সেবিকা সেলিনা সুলতানা, আকলিমা আক্তার ও সাবিনা ইয়াসমিন আদালতে সাক্ষ্য দেন।
২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পিলখানায় বিডিআর সদরদপ্তরে বিদ্রোহের ঘটনায় ৫৭ জন সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন নিহত হন। এরপর এ বাহিনীর নাম বদলে রাখা হয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ- বিজিবি।
ওই ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলায় মোট এক হাজার ৮৭ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে। গত বছর ২৪ অগাস্ট এ মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ ও জেরা শুরু হয়।
গত বছর জুলাই মাসে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু এবং আওয়ামী লীগ নেতা তোরাব আলীসহ ৮২৪ জনকে অভিযুক্ত করে এ মামলার অভিযোগপত্র দেয় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। এছাড়া বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে আরো একটি মামলায় ৮৩৪ জনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়।
বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এলএইচ/জেকে/১৫৩২ ঘ.
তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক