তৃতীয় সর্বোচ্চ ভোট পেয়েও লোকসভায় নেই মায়াবতীর দল

ভোটের হিসেবে তৃতীয় অবস্থানে থাকলেও ভারতের ষোড়শ লোকসভায় কোনো আসন পায়নি দলিতদের নেতা হিসেবে পরিচিত মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টি (বিএসপি)।

সাজিদুল হকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 May 2014, 11:10 AM
Updated : 17 May 2014, 11:10 AM

ভারতীয় নির্বাচন কমিশন শনিবার যে চূড়ান্ত ফলাফল দিয়েছে, তাতে দেখা যায় বিএসপি পেয়েছে ২ কোটি ২৯ লাখ ৪৫ হাজার ৮২৮ ভোট, যা মোট ভোটের ৪ ভাগ।

তবে বিএসপি কোনো আসনে না জিতলেও এর চেয়ে কম ভোট পেয়ে আসন বাগিয়েছে বেশ কয়েকটি দল, যার মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস, এডিএমকে, বিজেপির মতো দলও রয়েছে।

এবারের লোকসভায় ৫৪৩টি আসনে মোট ভোটার ছিল  ৮১ কোটি ৪০ লাখ। এর মধ্যে ৯ কোটি ৭১ লাখ নতুন ভোটার।

দিল্লির মসনদে বসতে যাওয়া ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) এবার ভোট পেয়েছে ১৭ কোটির ওপর, অর্থাৎ মোট ভোটের ৩১ শতাংশ। লোকসভায় দলটির পাওয়া আসন ২৮২।

বিজেপির জোটসঙ্গী শিবসেনা ১৮টি আসনে জিতেছে।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা কংগ্রেস ভোট পেয়েছে ১৯ দশমিক তিন শতাংশ, লোকসভায় পেয়েছে মাত্র ৪৪টি। এটা কংগ্রেসের ইতিহাসে সবচেয় খারাপ ফল।

উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতীর দল বিএসপির পর চতুর্থ অবস্থানে থাকা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস পেয়েছে ৩ দশমিক আট শতাংশ ভোট। তবে পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতায় থাকা দলটির আসন ৩৪টি।

ভোটের হারে পঞ্চম অবস্থানে থাকা উত্তর প্রদেশে ক্ষমতাসীন মুলায়ম সিং যাদবের নেতৃত্বাধীন সমাজবাদী পার্টি আসন পেয়েছে পাঁচটি। মোট ভোটের ৩ দশমিক চার শতাংশ পেয়েছে এই দলটি।

জয়ললিতার এআইএডিএমকে ৩ দশমিক তিন শতাংশ ভোট পেয়ে ষষ্ঠ হলেও ৩৭টি আসন নিয়ে লোকসভায় তৃতীয় বৃহত্তম দল।

৩ দশমিক দুই শতাংশ ভোট পেয়ে বামপন্থী দল সিপিএম আসন পেয়েছে ৯টি। এবার আগের চেয়ে পিছিয়ে তাদের অবস্থান সপ্তম। বামফ্রন্টভুক্ত সিপিআই ১টি এবং আরএসপি ১টি আসন পেয়েছে।

মোট ভোটের ১ দশমিক সাত শতাংশ ভোট পেয়ে বিজু জনতা দল (বিজেডি) পেযেছে ২০টি আসন। উড়িষ্যার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েকের নেতৃত্বাধীন দলটি লোকসভা নির্বাচনে ভোট পেয়েছে ৯৪ লাখ ৯১ হাজার ৪৯৭টি।

সাড়াজাগানো আম আদমি পার্টি (এএপি) আসন পেয়েছে ৪টি, তারা পেয়েছে ২ শতাংশ ভোট।  

ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিম লীগ পেয়েছে দুটি আসন। বিহারের লালু প্রসাদ যাদবের আরজেডি ৪টি আসন জিতেছে।

আর এত দলের ভিড়েও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা তিনটি আসনে জয় পেয়েছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক