bdnews24.com - Home http://bangla.bdnews24.com/ The RSS feed of bdnews24.com en Bangladesh News 24 Hours Ltd. 2017-07-06 19:43:16.0 2017-07-06 19:43:16.0 Home customGroupedContent 1 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368250 অপরাধ বিষয়ক প্রধান প্রতিবেদক ও বরিশাল প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম অপরাধ বিষয়ক প্রধান প্রতিবেদক ও বরিশাল প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-23 01:10:03.0 2017-07-23 03:35:24.0 বরিশাল আদালতের ৬ পুলিশ প্রত্যাহার ইউএনওকে নাজেহাল: বরিশাল আদালতের ৬ পুলিশ প্রত্যাহার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গাজী তারিক সালমনকে নাজেহালের দিন বরিশালের আদালতে দায়িত্বরত পুলিশের ছয় সদস্যকে সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গাজী তারিক সালমনকে নাজেহালের দিন বরিশালের আদালতে দায়িত্বরত পুলিশের ছয় সদস্যকে সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368250.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/bangla-media/2017/07/19/barisal-uno-photo-19.07.17.jpg/ALTERNATES/w300/Barisal-UNO-Photo-19.07.17.jpg ইউএনও তারিক সালমান, যাকে কারাগারে পাঠানোর সমালোচনায় মুখর সরকারি কর্মকর্তারা
এরা হলেন- এসআই নিরিপেন দাশ, এটিএসআই শচীন ও মাহবুব এবং কনস্টেবল জাহাঙ্গীর, হানিফ ও সুখেন।

এই পুলিশ সদস্যদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার কথা জানিয়েছেন বরিশাল মহানগর পুলিশের মুখপাত্র সহকারী কমিশনার নাসিরুদ্দিন।

তিনি শনিবার রাতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “প্রশাসনিক কারণে তাদের আদালত থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে।”

পঞ্চম শ্রেণির এক শিশুর আঁকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি দিয়ে স্বাধীনতা দিবসের আমন্ত্রণপত্র ছাপানোয় বরিশালের আগৈলঝাড়ার সাবেক ইউএনও গাজী তারিক সালমনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন আওয়ামী লীগের এক নেতা।

বঙ্গবন্ধুর ‘বিকৃত’ ছবি আমন্ত্রণপত্রে ব্যবহারের অভিযোগের ওই মামলায় গত বুধবার বরিশাল মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে আবেদন নাকচ করে তাকে হাজতে পাঠানো হয়। দুই ঘণ্টা পর আবার জামিন দেন একই বিচারক।

আদালত প্রাঙ্গনে বর্তমানে বরগুনা সদরের ইউএনও তারিককে পুলিশ ধরে নেওয়ার ছবি প্রকাশ হলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়। ক্ষোভ প্রকাশ করে ঘটনার জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চেয়ে বিবৃতি দেয় সরকারি কর্মকর্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন।

এ ঘটনায় সারাদেশে ব্যাপক সমালোচনার মধ্যে মামলার বাদী জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ওবায়েদ উল্লাহ সাজুকে দল থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

দোষ দেখছে না পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন

ইউএনও তারিক সালমনের সঙ্গে পুলিশের আচরণের সমালোচনা হলেও এই বাহিনীর কর্মকর্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন বলছে, এই কর্মকর্তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেনি, হাতকড়াও পরায়নি।

শনিবার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুল ইসলাম সাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, “বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন উঠেছে, পুলিশ কীভাবে মামলা নিল? পুলিশ মামলা নিল কেন? পুলিশ তাকে কেন গ্রেপ্তার করল? এ বিষয়ে কোনো থানায়ই মামলা রুজু হয়নি এবং পুলিশ গাজী তারেক সালমনকে গ্রেপ্তারও করেনি।”

বাদীর আদালতে মামলা দায়ের, ইউএনওর বিরুদ্ধে সমন জারি এবং তার জামিন আবেদন নাকচ হওয়ার কথা তুলে ধরে বিবৃতিতে বলা হয়, “এক্ষেত্রে  কোনো পর্যায়েই পুলিশের কোনো ভূমিকা রাখার অবকাশ ছিল না।

“কোন কোন গণমাধ্যম ও সামাজিক মাধ্যমে ‘পুলিশ কেন তাকে হাতকড়া পরাল?’, ‘পুলিশ রেগুলেশনের ৩৩০ বিধি অমান্য করা হয়েছে’ শিরোনামে কতিপয় সংবাদ-বক্তব্য প্রকাশিত হয়েছে, যা সঠিক নয়।”

আদালতে জামিন আবেদন নাকচ হওয়ার পর ইউএনও তারিকের সঙ্গে পুলিশের আচরণের নিন্দা জানিয়ে অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের বিবৃতিতে বলা হয়, “আদালতের আদেশে অভিযুক্ত হিসেবে জেল হাজতে নেওয়ার সময় কর্তব্যরত পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা তার উপর বল প্রয়োগ করে এবং বেআইনিভাবে (পুলিশ রেগুলেশন এর ৩৩০ ধারা অমান্যপূর্বক) টেনে-হিঁচড়ে কোর্ট হাজতে নিয়ে যায়।”

রাষ্ট্রের একজন ‘গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা’ এবং উপজেলা পর্যায়ে প্রজাতন্ত্রের প্রতিনিধির বিরুদ্ধে এই আচরণকে ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও মানহানিকর’ আখ্যায়িত করে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের সংগঠন।

তবে পুলিশ কর্মকর্তাদের সংগঠনের বিবৃতিতে বলা হয়, “পুলিশ গাজী তারেক সালমনকে কোনো হাতকড়া পরায়নি। বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশিত ছবি ভালোভাবে পর্যালোচনা করলে বিষয়টি সুষ্পষ্টভাবে প্রতীয়মাণ হবে।

“এছাড়া ইউএনও গাজী তারেক সালমনের উপর বল প্রয়োগ করে টেনে-হিচঁড়ে কোর্ট হাজতে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগও উঠেছে, যা তথ্য নির্ভর নয়।”

ইউএনও তারিকের বিরুদ্ধে অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে এজন্য তার ভোগান্তির নিন্দা জানিয়েছে পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন।

]]>
1366764 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/bangla-media/2017/07/19/barisal-uno-photo-19.07.17.jpg/ALTERNATES/w300/Barisal-UNO-Photo-19.07.17.jpg ইউএনও তারিক সালমান, যাকে কারাগারে পাঠানোর সমালোচনায় মুখর সরকারি কর্মকর্তারা
2 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368249 ওবায়দুর মাসুম, নিজস্ব প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ওবায়দুর মাসুম, নিজস্ব প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-23 00:42:00.0 2017-07-23 01:23:00.0 ঢাকায় যুক্ত ১৬ ইউনিয়নে মশা মারবে কে? ঢাকায় যুক্ত ১৬ ইউনিয়নে মশা মারবে কে? চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ ঠেকাতে রাজধানীতে মশা নিধনের ব্যাপক তোড়জোড় শুরু হলেও গত বছর ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে যুক্ত হওয়া ১৬টি ইউনিয়ন পরিষদ এখনও রয়েছে এসবের বাইরে। চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ ঠেকাতে রাজধানীতে মশা নিধনের ব্যাপক তোড়জোড় শুরু হলেও গত বছর ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে যুক্ত হওয়া ১৬টি ইউনিয়ন পরিষদ এখনও রয়েছে এসবের বাইরে। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368249.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/23/mosquito-union-01.jpg/ALTERNATES/w300/Mosquito-Union-01.jpg
ডোবা-নালায় ভরা ওই সব এলাকায় রয়েছে মশার উপদ্রব, পাওয়া যাচ্ছে অনেকের চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার খবর।

ইউনিয়ন পরিষদগুলোর চেয়ারম্যানরা বলছেন, বরাদ্দ না থাকায় মশা নিধনে কিছু করতে পারছেন না তারা।

ঢাকা জেলা প্রশাসনের তেজগাঁও সার্কেল কর্মকর্তা শাহনাজ সুলতানা বলেন, ওই সব এলাকায় মশা নিধনের দায়িত্ব দুই সিটি করপোরেশনের।

অপরদিকে সিটি করপোরেশনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, কাগজে-কলমে এসব ইউনিয়ন সিটি করপোরেশনে যুক্ত হলেও এখনও অনেক প্রশাসনিক কার্যক্রম বাকি থাকায় তারা সেখানে মশা নিধনের কার্যক্রম চালাতে পারছেন না।

২০১৬ সালের ৯ জুন রাজধানীর সঙ্গে যুক্ত হওয়ার অনুমোদন পাওয়া ১৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) এসেছে বেরাইদ, বাড্ডা, ভাটারা, সাতারকুল, হরিরামপুর, উত্তরখান, দক্ষিণখান ও ডুমনী ইউনিয়ন।

আর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সঙ্গে যুক্ত হয়েছে শ্যামপুর, দনিয়া, মাতুয়াইল, সারুলিয়া, ডেমরা, মাণ্ডা, দক্ষিণগাঁও ও নাসিরাবাদ ইউনিয়ন।

সিটি করপোরেশনের সঙ্গে যুক্ত করে গেজেট প্রকাশের এক বছরেও উন্নয়নকাজ শুরু না হওয়ায় এসব এলাকায় এখনও অনেক ডোবানালা। গড়ে ওঠেনি বর্জ্য অপসারণের কোনো ব্যবস্থা। ওই এলাকায় এখন ঘরে-বাইরে মশার উৎপাত।

১৫ দিন আগে জ্বরে আক্রান্ত হন দনিয়া ইউনিয়নের শেখদী এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী মো. আলাউদ্দিন তালুকদার। চিকিৎসকের কাছে গিয়ে জানতে পারেন তার চিকুনগুনিয়া।

আলাউদ্দিন তালুকদার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “জ্বর সেরে গেলেও শরীরের প্রচণ্ড ব্যথা এখনও ভোগাচ্ছে, বিশেষ করে পায়ের গোড়ালিতে। ঠিকমত দাঁড়াইতে পারি না, নামাজ পড়তে পারি না।”

অনেক দিন ধরে এলাকায় মশার উৎপাত হলেও তা নিধনে কোনো কার্যক্রম নেই বলে জানান তিনি।

মশাবাহিত রোগ চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে দনিয়ার দোলাইপাড় এলাকার সরাই মসজিদ গলির বাসিন্দা মোহাম্মদ উজ্জ্বলের নয় মাস বয়সী ছেলে আয়াতও।

উজ্জ্বল বলেন, “জ্বর হয়ে আর সারে না। পরে ঢাকা মেডিকেলে নিয়া গেলে ডাক্তার জানাইছে চিকুনগুনিয়ায় হইছে। একটানা নয় দিন হাসপাতালে আছিলাম। ভাই, বাচ্চাটা কী কষ্ট করছে বুঝাইতে পারব না। সে তো বলতেও পারত না। খিঁচুনির চোটে হাত-পা বাঁকা হইয়া যাইত।”

ঢাকায় আসা এই ১৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ১১টি দুই সিটি করপোরেশনের আগের সীমানা সংলগ্ন।

এর মধ্যে উত্তরার ১৩, ১৪, ১১ নম্বর সেক্টরের পাশে অবস্থান হরিরামপুর ইউনিয়নের। উত্তরা, বিমানবন্দর এলাকার পূর্ব দিকে উত্তরখান আর দক্ষিণখান ইউনিয়ন। জগন্নাথপুর, নর্দ্দা, বারিধারার সঙ্গে লেগে আছে ভাটারা ইউনিয়ন। শাহজাদপুর আর বাড্ডা এলাকার সঙ্গে বাড্ডা ইউনিয়নের দূরত্ব মাঝের প্রগতি সরণি।

খিলগাঁও, গোড়ান আর মাদারটেক এলাকা লাগোয়া দক্ষিণগাঁও ইউনিয়ন। মাণ্ডা ইউনিয়ন লেগে আছে রাজধানীর মুগদা, বাসাবো আর মানিকনগর এলাকার সঙ্গে। যাত্রাবাড়ী এলাকার সঙ্গেই মাতুয়াইল ইউনিয়ন। যাত্রাবাড়ীর আরেক পাশে দনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ এলাকা। শ্যামপুর ইউনিয়ন পড়েছে ঢাকার মুরাদপুর, জুরাইন এলাকার পাশে।

বাড্ডা ইউনিয়নের আবদুল্লাহবাগ এলাকার বাসিন্দা মিল্লাত হোসেন বলেন, মশার উৎপাতে বিকাল হওয়ার আগেই ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করে দেন তারা।

“এলাকায় বার মাসই মশার উৎপাত থাকে। মশা নিধনে কোনো ব্যবস্থা নাই। এ এলাকায় মশার কয়েল, স্প্রের বিক্রি বেশি।”

হরিরামপুর ইউনিয়নের বেশিরভাগ এলাকার নিচু ডোবানালা ‘মশার কারখানা’ বলে মন্তব্য করেন সেখানকার চেয়ারম্যান আবুল হাসেম।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “মশার উৎপাতে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হলেও কিছু করতে পারছি না। লোকজন আমার কাছে এসে বলে, চিকুনগুনিয়া হইতাছে। কিন্তু আমার কিছু করার নাই।”

সিটি করপোরেশনে অন্তর্ভুক্ত হলেও ইউনিয়ন পরিষদগুলোর কার্যক্রম এখনও বিলুপ্ত হয়নি। তাদের হাতে টিআর, কাবিখা কর্মসূচি থাকলেও মশা নিধনের বরাদ্দ নেই বলে জানান চেয়ারম্যানরা।

রাজধানীর অভিজাত এলাকা বারিধারার গা-ঘেঁষা ভাটারায় মশার উপদ্রব ‘ভয়াবহ’ বলে জানান চেয়ারম্যান আতাউর রহমান।

তিনি বলেন, মশা নিধনের বিষয়ে তারা অসহায়। পরামর্শ দেওয়া ছাড়া আর কিছু করতে পারেন না।

“আমরা বলি মশা থেকে দূরে থাকতে, মশারি টানাতে আর ওষুধ ছিটাতে। মশা মারার জন্য কোনো যন্ত্রপাতি বা ওষুধ সরকার আমাদের দেয় নাই।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা শাহনাজ সুলতানা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমাদের হাতে এ ব্যাপারে কোনো বরাদ্দ নেই। আমরা চিঠি দিচ্ছি চেয়ারম্যানদের কাছে, তারা যেন এ বিষয়ে সিটি করপোরেশনের সাহায্য চায়। আজকেই (বৃহস্পতিবার) এ চিঠি দেওয়া হবে। ডিসি মহোদয় আমাকে বলেছেন, মশক নিধনে যেন সিটি করপোরেশনের সাহায্য চাওয়া হয়।”

শহর লাগোয়া এসব ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় মশা জন্মানোর পরিবেশ রাজধানীর মতোই বলে মন্তব্য করেন রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. তৌহিদ উদ্দীন আহমেদ।

ওই সব এলাকার ডোবা-নালায় জন্মানো কিউলেক্স মশা উড়ে রাজধানীতে চলে আসতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

ডা. তৌহিদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এসব মশা দেড় মাইল পর্যন্ত উড়তে পারে। সেক্ষেত্রে উত্তরখান, দক্ষিণ খান, বাড্ডা, মাণ্ডা, মাতুয়াইল, দনিয়া এলাকার মশা সহজেই ঢাকা শহরে চলে আসতে পারে। এ মশা থেকে ডেঙ্গু বা চিকুনগুনিয়া হয় না। তবে এটা কামড়ায়, বিরক্তি উৎপাদন করে।”

কোনো নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা না থাকায় ইউনিয়নগুলোয় চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব বেড়ে গেলে তা সহজে কমবে না বলে মনে করেন এই চিকিৎসা কীটতত্ত্ববিদ।

“সেসব এলাকার লোকজন নিজেদের মতো করে প্রস্তুতি যা নেওয়ার তা নিশ্চয়ই নিচ্ছে। কিন্তু সিটি করপোরেশনের অ্যাক্টিভিটি না থাকায় ওই সব এলাকায় রোগটি ছড়িয়ে পড়তে পারে। ছড়িয়ে পড়লে তা অতটা সহজে নাও কমতে পারে, কারণ সেখানে ঢাকার মতো কার্যক্রম নেই।”

চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে রাজধানীর পাশাপাশি এসব ইউনিয়নে মশা নিয়ন্ত্রণের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, “রাজধানীতে চিকুনগুনিয়া রোগের প্রাদুর্ভাবের ক্ষেত্রে আমরা বাড্ডা, উত্তরখান, দক্ষিণখান, শনিরআখড়া এসব এলাকাকে ‘বেরিয়ার’ বলছি।

“সে কারণে ওই সব এলাকা থেকে যেন রোগটি ঢাকায় না আসে, সেজন্য সেখানেও কন্ট্রোল প্রোগ্রাম নেওয়া উচিত। ওই এলাকাগুলোকে বাফার জোন ধরে নিয়ে সেখানে মশক নিধন কার্যক্রম চালানো উচিত।”

তবে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, এখনও দায়িত্ব পুরোপুরি বুঝে না পাওয়ায় সেখানে কার্যক্রম চালানো সম্ভব হচ্ছে না।

ঢাকা দক্ষিণ সিটির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শেখ সালাউদ্দিন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এখনও প্রশাসনিক কিছু কাজ বাকি আছে। এছাড়া ইউনিয়নগুলোয় কাজ করার মতো জনবলও আমাদের নাই। যার জন্য আমরা সেখানে কাজ করতে পারছি না।”

আর উত্তরের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এসএমএম সালেহ ভূঁইয়া বলেন, “ইউনিয়নগুলো সিটি করপোরেশনের আওতায় কাগজে-কলমে আসলেও এখনও অনেক কাজ বাকি।

“এখনও মন্ত্রণালয়ে অনেক আনুষ্ঠানিকতা বাকি আছে। যে কারণে ইউনিয়নগুলোয় মশা নিধন কার্যক্রম চালানো সম্ভব হচ্ছে না।”

মশা নিধনে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সহায়তা চাইলে তা করা হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, চিঠি পাঠালে তখন দেখা যাবে কী করা যায়।

“আমি তো আর সিদ্ধান্ত দিতে পারব না। ব্যাপারটা আমার চাওয়া-না চাওয়ার ওপর নির্ভরশীল না। দাপ্তরিক ব্যাপার আছে। অফিসে চিঠি আসলে হয়ত আমাদের ফরমালি বলবে। তখন হয়ত আমরা এ ব্যাপারে সহায়তা করতে পারব।”

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকনও বলছেন, ইউনিয়নগুলোর প্রশাসনিক কাঠামো এখনও পুরোপুরি সিটি করপোরেশনের আওতায় না আসায় সেখানে কাজ করা যাচ্ছে না।

তবে চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে জেলা প্রশাসন বা ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা সহায়তা চাইলে তা করার আশ্বাস দেন তিনি।

“আমাদের যদি এ ব্যাপারে অফিসিয়ালি চিঠি দেয় যে তারা হেল্প চায়, আমরা অবশ্যই হেল্প করব। তারা যদি বলে যে তাদের মেশিন, ওষুধ কিংবা লোকবল দরকার। আমরা সেগুলো পৌঁছে দেব অবশ্যই।”

]]>
1368244 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/23/mosquito-union-01.jpg/ALTERNATES/w300/Mosquito-Union-01.jpg 1368245 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/23/mosquito-union-02.jpg/ALTERNATES/w300/Mosquito-Union-02.jpg 1368246 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/23/mosquito-union-05.jpg/ALTERNATES/w300/Mosquito-Union-05.jpg 1368247 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/23/mosquito-union-06.jpg/ALTERNATES/w300/Mosquito-Union-06.jpg 1368248 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/23/mosquito-union-07.jpg/ALTERNATES/w300/Mosquito-Union-07.jpg
3 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368228 জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 23:15:58.0 2017-07-22 23:57:58.0 আহমদ শফীর ভারত যাওয়ার সমালোচনায় জাফরুল্লাহ চিকিৎসা নিতে আহমদ শফীর ভারত যাওয়ার সমালোচনায় জাফরুল্লাহ চিকিৎসার জন্য হেফাজতে ইসলামের আমির শাহ আহমেদ শফীর ভারতে যাওয়ার সমালোচনা করেছেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। চিকিৎসার জন্য হেফাজতে ইসলামের আমির শাহ আহমেদ শফীর ভারতে যাওয়ার সমালোচনা করেছেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368228.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2016/11/24/22_ideal-citizen-movement_241116_0016.jpg/ALTERNATES/w300/22_Ideal+Citizen+Movement_241116_0016.jpg http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/10/shah-ahmad-shafi-.jpg/ALTERNATES/w300/Shah+Ahmad+Shafi+.jpg জাফরুল্লাহ চৌধুরী (ফাইল ছবি)

শনিবার এক আলোচনা সভায় বিএনপিপন্থি এই পেশাজীবী নেতা বলেন, “বাংলাদেশে সুষ্ঠু গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হলে আমাদের ভারত সম্পর্কে সাবধান হতে হবে। আমার প্রতিবেশী রাষ্ট্র এদেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার অন্যতম প্রধান অন্তরায়।

“দুর্ভাগ্যবশত, যারা খোদাতে বেশি বিশ্বাস করেন, আমাদের খোদার পথে নিয়ে যেতে চান, সেই আল্লামা শফীও খোদার উপর আস্থা না রেখে ভারতীয় হাসপাতালের ওপর আস্থা রেখে ভারতে রওনা হয়ে গেছেন। আমাদের সমস্যা হলো এখানে।”

৯৫ বছর বয়সী শফী ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে চট্টগ্রামে ফেরার ১২ দিন পর শনিবার দিল্লি রওনা হন।

এসব বাদ দিয়ে চট্টগ্রামের হাটহাজারীর কওমি মাদ্রাসা দারুল উলুম মইনুল ইসলামের মহাপরিচালক শফীকে ‘আল্লাহর’ উপর ভরসা করার পরামর্শ দেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ।

“আমি তাকে বলব- খোদার প্রতি আস্থা রাখেন, উনি যদি না বাঁচায় ভারতীয় হাসপাতাল কি আপনাকে বাঁচাতে পারবে?”

শারীরিক দুর্বলতা ও শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে গত ১৮ মে থেকে চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন আহমদ শফী।

প্রায় ১৫ দিন সেখানে চিকিৎসার পর পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় গত ৬ জুন এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে আনা হয়েছিল ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসা শেষে গত ১০ জুলাই চট্টগ্রাম ফিরেছিলেন তিনি।

হেফাজতে ইসলামের আমির শাহ আহমদ শফী, ফাইল ছবি

হেফাজতে ইসলামের আমির শাহ আহমদ শফী, ফাইল ছবি

চিকিৎসার জন্য রাজনীতিকদের বিদেশে যাওয়ার সমালোচনা করে ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, “হামিদ সাহেবও (রাষ্ট্রপতি) একটু শ্বাসকষ্ট হলে ছোটেন, প্রধানমন্ত্রী (শেখ হাসিনা) কানে না শুনলে ছোটেন, বিরোধী দলের নেত্রী (খালেদা জিয়া) চোখে কম দেখলে ছোটেন। কতদিন আমরা বিদেশি ভরসায় থাকব?”

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশে গেলেও বিভিন্ন সময় বক্তব্যে চিকিৎসা নিতে বিদেশে যেতে অনীহার কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মতে, রাজনীতির ক্ষেত্রেও বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলো বিদেশিদের ‘ভরসায় থাকেন’।

তিনি বলেন, “দেখবেন, রাজনীতির ক্ষেত্রে আমরা সব সময় অন্যের ভরসায় থাকতে চাই। আমি বলতে চাই, এগুলো বাদ দিতে হবে। শক্তি জনগণ, আপনারা। বিরোধী দলকে ভারত সম্পর্কে তাদের মনোভাব পরিষ্কার করতে হবে।”

কাশ্মিরের মুসলমানদের প্রতি ভারত সরকারের আচরণের কঠোর সমালোচনা করেন ডা. জাফরুল্লাহ।

নির্বাচনকালীন ‘সহায়ক সরকারের’ দাবি আদায়ে আন্দোলনের জন্য বিএনপিকে পাকিস্তান আমলের যুক্তফ্রন্টের মতো সম্মিলিত বিরোধী দলীয় ঐক্য গড়ে তোলার পরামর্শ দেন তিনি।

“পরিবর্তনের জন্য অবশ্যই জোরদার আন্দোলনের দরকার হয়। সেজন্য দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে, ভালো সরকারের স্বার্থে গড়ে তুলতে হবে সম্মিলিত বিরোধী দলীয় ঐক্য। উনারা বিএনপির রূপকল্পে হাদিস তৈরি করেছেন। আপনারা কজন সেটা পড়েছেন জানি না। আমি এক রাতে চারবার পড়েছি। কোনো কিছুই পরিষ্কার করে বলা নেই। কমিউনিস্টদের মতো উনারা আলোচনা করতে চান না। রূপকল্প করার আগে আলোচনা করলে কী হত?”

বিএনপিকে ‘মুক্তিযুদ্ধের দল’ অভিহিত করে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিষয়ে তাদের অবস্থান স্পষ্ট করার আহ্বান জানান জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, “বিএনপি নিশ্চয়ই চায়, যারা মানবতাবিরোধী তাদের বিচার হবে। তাহলে পরিষ্কারভাবে বলতে পারতেন, যদি কেউ থাকে তো বিচার অব্যাহত থাকবে, সুষ্ঠু বিচার হবে।

“কাদের মোল্লার বিচারের মতো না। আমি এই ব্যাপারে লুকোচুরি করি না। আমি এখনও বিশ্বাস করি, কাদের মোল্লার উপর বোধ হয় অন্যায় হয়ে গেছে।

“তিনি সিপিবি করতেন। আমাদের বঙ্গবন্ধু আমলে সেই সময়ে হলের নির্বাচিত সহ-সভাপতি ছিলেন, সেখানে চার বছর অবস্থান করেছেন। সেই কসাই কাদের, সে কীভাবে চার বছর অবস্থান করে? সেজন্য আমার সন্দেহ হয়।”

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সম্মেলন কক্ষে ‘জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম ৭১’ এর উদ্যোগে এই আলোচনা সভা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ।

]]>
1247773 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2016/11/24/22_ideal-citizen-movement_241116_0016.jpg/ALTERNATES/w300/22_Ideal+Citizen+Movement_241116_0016.jpg জাফরুল্লাহ চৌধুরী (ফাইল ছবি)
4 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368238 জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 23:51:49.0 2017-07-22 23:51:49.0 এইচএসসির ফল জানা যাবে যেভাবে এইচএসসির ফল রোববার, জানা যাবে যেভাবে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ হচ্ছে রোববার; প্রতিবারের মতো এবারও শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট থেকে ফল জানতে পারবেন শিক্ষার্থীরা, জানা যাবে মোবাইল ফোনে এসএমএস করেও। এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ হচ্ছে রোববার; প্রতিবারের মতো এবারও শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট থেকে ফল জানতে পারবেন শিক্ষার্থীরা, জানা যাবে মোবাইল ফোনে এসএমএস করেও। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368238.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/31_sscresultvsn_110516_0013.jpg/ALTERNATES/w300/31_SSC%2BResult%2BVSN_110516_0013.jpg
রেওয়াজ অনুযায়ী, শিক্ষা বোর্ডগুলোর চেয়ারম্যানদের সঙ্গে নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফলের সারসংক্ষেপ তুলে দেবেন। দুপুর ১টায় সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ফলাফলের বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন মন্ত্রী।

দুপুর দেড়টা থেকে পরীক্ষার্থীরা নিজেদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট (http://www.educationboard.gov.bd) থেকে ফল জানতে পারবেন।

সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ই-মেইলে কেন্দ্র ও প্রতিষ্ঠানের ফলাফলের সফট কপি সরবরাহ করা হবে। প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ফলের হার্ডকপি সংগ্রহ করতে পারবে।

গত কয়েক বছরের মতো এবারও কোনো শিক্ষা বোর্ড থেকে ফলাফলের হার্ডকপি সরবারহ করা হবে না।

শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট ছাড়াও সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইট থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের ইআইআইএন ব্যবহার করে ফলাফলের কপি ডাউনলোড করতে পারবে।

গত ২ এপ্রিল থেকে ১৫ মে এইচএসসির তত্ত্বীয় এবং ১৬ থেকে ২৫ মে ব্যবহারিক পরীক্ষা হয়। এই পরীক্ষায় এবার ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন।

এসএমএসে ফল

বরাবরের মতোই যে কোনো মোবাইল থেকে এসএমএস করে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল জানতে পারবেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

এ জন্য HSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৭ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফল জানিয়ে দেওয়া হবে।

আলিমের ফল জানতে Alim লিখে স্পেস দিয়ে Mad লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৭ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফল পাওয়া যাবে।

এছাড়া এইচএসসি ভোকেশনালের ফল জানতে HSC লিখে স্পেস দিয়ে Tec লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৭ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফল জানিয়ে দেওয়া হবে।

ফল পুনঃনিরীক্ষা

রাষ্ট্রায়ত্ত্ব মোবাইল অপারেটর টেলিটকের মাধ্যমে আগামী ২৪ থেকে ৩০ জুলাই পর্যন্ত এইচএসসি ও সমমানের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে।

ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করতে RSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে বিষয় কোড লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে।

ফিরতি এসএমএসে ফি বাবদ কত টাকা কেটে নেওয়া হবে, তা জানিয়ে একটি পিন নম্বর (পার্সোনাল আইডেন্টিফিকেশন নম্বর-PIN) দেওয়া হবে।

আবেদনে সম্মত থাকলে RSC লিখে স্পেস দিয়ে YES লিখে স্পেস দিয়ে পিন নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে যোগাযোগের জন্য একটি মোবাইল নম্বর লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে।

প্রতিটি বিষয় ও প্রতি পত্রের জন্য দেড়শ’ টাকা হারে চার্জ কাটা হবে।

যে সব বিষয়ের দুটি পত্র (প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র) রয়েছে সেসব বিষয়ের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করলে দুটি পত্রের জন্য মোট ৩০০ টাকা ফি কাটা হবে।

একই এসএমএসে একাধিক বিষয়ের আবেদন করা যাবে, এক্ষেত্রে বিষয় কোড পর্যায়ক্রমে ‘কমা’ দিয়ে লিখতে হবে।

]]>
1368237 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/31_sscresultvsn_110516_0013.jpg/ALTERNATES/w300/31_SSC%2BResult%2BVSN_110516_0013.jpg
5 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368236 নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 23:49:58.0 2017-07-22 23:49:58.0 বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতির উন্নতি নেই: যুক্তরাজ্য বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতির উন্নতি নেই: যুক্তরাজ্য গতবছর বাংলাদেশে সার্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতিতে কোনো উন্নতি হয়নি বলে পর্যবেক্ষণ দিয়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। গতবছর বাংলাদেশে সার্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতিতে কোনো উন্নতি হয়নি বলে পর্যবেক্ষণ দিয়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368236.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/uk-report.jpg/ALTERNATES/w300/UK-report.jpg
২০১৬ সালে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ওপর চাপ, উগ্রপন্থী হামলা এবং ধর্মীয় ও অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে সহিংসতাও ছিল অব্যাহত ছিল বলে এক প্রতিবেদনে বলেছে দেশটি।

সম্প্রতি প্রকাশিত ‘মানবাধিকার ও গণতন্ত্র’ বিষয়ে যুক্তরাজ্য সরকারের বার্ষিক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ বিষয়ে এসব কথা বলা হয়েছে।

গত বছর ঢাকার হোটেলে জঙ্গি হামলায় প্রাণহানির পর সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণের কথা তুলে ধরলেও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, নির্বিচার গ্রেপ্তার ও আইনশৃঙ্খলা সংস্থাগুলোকে জড়িয়ে গুমের অভিযোগের কথা বলা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশে নারী ও মেয়ে শিশুদের প্রতি আচরণ নিয়ে উদ্বেগ এখনও রয়েছে এবং অনেক অপরাধকর্মের জন্য মৃত্যুদণ্ড এখনও বহাল রয়েছে।

বেসরকারি সংস্থাগুলোর (এনজিও) বিদেশি অনুদানের বিষয়ে সরকারের নতুন আইন মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সীমিত করে দিতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্য।

পরোয়ানা ছাড়া গ্রেপ্তার ও পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের ধারাগুলোর বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায় পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়ন করতে সরকারকে উৎসাহিত করা হয়েছে প্রতিবেদনে।

যুক্তরাজ্য সরকারের মতে, মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্যে লিঙ্গ সমতার প্রসারে অগ্রগতি হলেও কিছু সূচকে বাংলাদেশ ধারাবাহিকভাবে খারাপ করেছে।

]]>
1368235 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/uk-report.jpg/ALTERNATES/w300/UK-report.jpg
6 2 Home samagrabangladesh সমগ্র বাংলাদেশ news-district 9945 1368159 লালমনিরহাট প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম লালমনিরহাট প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 20:59:01.0 2017-07-22 22:48:09.0 ৫৭ ধারা বাতিল হবে: ইকবাল সোবহান ৫৭ ধারা বাতিল হবে: ইকবাল সোবহান সাংবাদিকদের প্রতিবাদের মুখে তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারা বাতিলে আইন মন্ত্রণালয় পদক্ষেপ নিয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী জানিয়েছেন। সাংবাদিকদের প্রতিবাদের মুখে তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারা বাতিলে আইন মন্ত্রণালয় পদক্ষেপ নিয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী জানিয়েছেন। false http://bangla.bdnews24.com/samagrabangladesh/article1368159.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/ikbal-sobhan-57.jpg/ALTERNATES/w300/Ikbal-Sobhan-57.jpg
শনিবার লালমনিরহাটে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “৫৭ ধারা নিয়ে সারা দেশে বিশেষ করে সাংবাদিক মহলে যে প্রতিবাদ হচ্ছে এবং উদ্বেগ তৈরি হয়েছে, এ মামলায় বিভিন্ন সাংবাদিককে নির্যাতন করা হচ্ছে।

“এ প্রতিবাদের মুখে আইনমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন এ আইন বাতিল করা হবে।”

তথ্য-প্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের ৫৭ ধারাকে স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিপন্থি দাবি করে তা বাতিলের দাবি জানিয়ে আসছেন সম্পাদক পরিষদসহ গণমাধ্যমকর্মীরা।

৫৭ ধারায় বলা হয়েছে- ওয়েবসাইটে প্রকাশিত কোনো ব্যক্তির তথ্য যদি নীতিভ্রষ্ট বা অসৎ হতে উদ্বুদ্ধ করে, এতে যদি কারও মানহানি ঘটে, রাষ্ট্র বা ব্যক্তির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়, তা হবে অপরাধ। এর শাস্তি অনধিক ১৪ বছর কারাদণ্ড এবং অনধিক এক কোটি টাকা জরিমানা।

ফেইসবুক স্ট্যাটাস ও সংবাদ প্রতিবেদনের জন্য সম্প্রতি ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা এবং কয়েকজনকে কারাগারে পাঠানোর প্রেক্ষাপটে তা বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন সাংবাদিকরা।

 

এই দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদানসহ ধারাবাহিক কর্মসূচি পালন করছে সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি ইকবাল সোবহান বলেন, গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থায় প্রধানমন্ত্রীও মুক্ত গণমাধ্যম চান।

“কোনো কালাকানুনের দ্বারা মুক্ত গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ভবিষ্যতে খর্ব করা হবে না। ৫৭ ধারা বাতিল হবে। এ আইন বাতিলের ব্যাপারে আইন মন্ত্রণালয় ও তথ্য মন্ত্রণালয় পদক্ষেপ গ্রহণ করছে।”

ওই অনুষ্ঠানে মফস্বলের প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের ওয়েজ বোর্ডের আওতায় আনা না হলে মালিকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি দেন প্রধানমন্ত্রীর এই উপদেষ্টা।

জেলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা’ আয়োজিত সাংস্কৃতিক পরিবেশনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন তিনি।

]]>
1368158 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/ikbal-sobhan-57.jpg/ALTERNATES/w300/Ikbal-Sobhan-57.jpg
7 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368093 প্রকাশ বিশ্বাস, আদালত প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম প্রকাশ বিশ্বাস, আদালত প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 18:37:29.0 2017-07-22 18:37:29.0 বিডি ফুডসের হেরোইন পাচারের বিচার শুরু হয়নি ১১ বছরেও বিডি ফুডসের হেরোইন পাচারের বিচার শুরু হয়নি ১১ বছরেও ১১ বছর পেরিয়ে গেলেও যুক্তরাজ্যে হেরোইন পাচারের ঘটনায় বিডি ফুডস লিমিটেডের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে করা মামলার বিচার শুরু হয়নি। ১১ বছর পেরিয়ে গেলেও যুক্তরাজ্যে হেরোইন পাচারের ঘটনায় বিডি ফুডস লিমিটেডের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে করা মামলার বিচার শুরু হয়নি। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368093.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/bd-foods.jpg/ALTERNATES/w300/BD+Foods.jpg
এজাহারত্রভুক্ত আসামি বিডি ফুডসের চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজা মোমিনসহ দুজন অব্যাহতি পেলেও তা নিয়ে হাই কোর্ট প্রশ্ন তুলেছে।

এজহারের আট আসামির মধ্যে বাকি ছয়জনের বিরুদ্ধে ছয় বছর আগে অভিযোগ গঠন হলেও এখন পর্যন্ত আদালতে একজন সাক্ষীকেও হাজির করা যায়নি।

তদন্ত কর্মকর্তা এবং রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের অবহেলার কারণে বিচারকাজ এগোচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন মামলার বাদী পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) তৎকালীন সহকারী সুপার দীপক গুপ্ত।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “তদন্ত কর্মকর্তা এই মামলায় জব্দ করা অনেক দলিল, অনেক মেমো অভিযোগপত্রে আনেননি; আবার বিভিন্ন স্মারক সমর্থনে কাগজপত্র ইচ্ছাকৃতভাবে জমা দেননি।”

এই মামলায় ৬ মাস আগে সমন পেয়ে তিনি আদালতে হাজির হলেও বিচারক ‘সময়ের অভাবে’ সাক্ষ্য নেননি বলে তিনি জানান।

দীপক বলেন, “এই মামলায় আদালত সংশ্লিষ্টদের প্রায় সবাই কোনো না কোনোভাবে আসামিদের কাছ থেকে সুবিধা নিয়েছেন। যে কারণে আমার বাসা আদালত সংলগ্ন ৪৮ জনসন রোডে হলেও সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য আমার বাসায় আর কোনোবার এ আদালত থেকে সমন বা পরোয়ানা আসেনি।

“আমি খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি যে, অন্য সাক্ষীদেরও আদালতে আনার বেলায়ও যত্ন নিয়ে কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না।”

যুক্তরাজ্যে পাঠানো বিডি ফুডসের দুটি চালানে ২০০৫ সালে ৭৫ কেজি হেরোইন ধরা পড়ার পর সিআইডি বাদী হয়ে আটজনকে আসামি করে ঢাকার মতিঝিল ও সূত্রাপুর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দুটি মামলা করে।

এর মধ্যে একটি চালানে ২১ কেজি হেরোইন পাচারের ঘটনায় একটি মামলা হয় মতিঝিল থানায়।

এই মামলায় ২০১২ সালের ২৬ মে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে অভিযোগপত্র দেন সিআইডির পরিদর্শক মোহাম্মদ হোসেন।

আসামিরা হলেন- বিডি ফুডসের চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজা মোমিন, কর্মচারী নাজমুল হায়দার ওরফে বুলবুল, ব্যবস্থাপক আবু বকর সিদ্দিক, ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ মাইনুদ্দিন, তাদের সহযোগী বিমানের কার্গো শ্রমিক মোখলেসুর রহমান নয়ন, আরেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গ্রিন হ্যাভেনের মালিক আবুল বাশার সেলিম, তার সহযোগী কাজী জাফর রেজা ও মিন্টু ওরফে তাজউদ্দিন।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, ২০০৫ সালে চট্টগ্রাম নৌবন্দর দিয়ে শিম, লতাপাতা, কচু ও জালি ভরে ১৭০টি কার্টনে মোট সাত হাজার কেজি সবজির ভেতরে লুকিয়ে যুক্তরাজ্যে ২১ কেজি হেরোইন পাচার করে বিডি ফুডস।

এদের মধ্যে মিন্টু ছাড়া বাকিরা জামিনে আছেন। তাকে গ্রেপ্তারে পরোয়ানা জারি হলেও পুলিশ ধরতে পারেনি।

ওই মামলায় মোমিনের এক আবেদনে ওই বছরের ২৬ ডিসেম্বর তাকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

বিডি ফুডস, যাদের বিরুদ্ধে রয়েছে হেরোইন পাচারের অভিযোগ

বিডি ফুডস, যাদের বিরুদ্ধে রয়েছে হেরোইন পাচারের অভিযোগ

অন্য সাত আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ও অব্যাহতির আবেদনের ওপর শুনানি শেষে ২০১৩ সালের ৭ এপ্রিল এক আদেশে কাজী জাফর রেজাকেও অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

দুই আসামির অব্যাহতির আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল না করলেও ২০১৪ সালের ২০ জানুয়ারি বদরুদ্দোজা মোমিনকে অব্যাহতি দেওয়া কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে স্বতঃপ্রণোদিত রুল জারির পাশাপাশি মোমিনকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয় হাই কোর্ট। পরে ১২ ফেব্রুয়ারি তিনি আত্মসমর্পণ করে জামিন নেন।

এর মধ্যে ২০১৩ সালের ৩ জুন বাকি ছয় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের পর থেকে ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ৩০টিরও বেশি ধার্য তারিখ থাকলেও একজন সাক্ষীকেও আদালতে উপস্থাপন করতে পারেনি রাষ্ট্রপক্ষ।

এবিষয়ে ঢাকার ৮ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আমির হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমরা সাক্ষীদের সমন, গ্রেপ্তারে পরোয়ানা পাঠাচ্ছি। কিন্তু সাক্ষীরা কেন আদালতে আসছেন না, তা বলতে পারছি না।

“আমরা আদালত থেকে সাক্ষী আনার জন্য সব ধরনের প্রসেস পুলিশের কাছে পাঠালেও পুলিশ এখনও একজন সাক্ষীকেও হাজির করেনি। আমরা কী করতে পারি?”

এই বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ হোসেনের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি নানা চেষ্টার পরও। তার বর্তমান কর্মস্থল কোথায়, তা জানা যায়নি সিআইডি কর্মকর্তা এবং রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলিদের কাছে থেকে। তার মোবাইল নম্বরটিও কারও কাছে পাওয়া যায়নি।

আরেক মামলার কেস ডকেট গায়েব

এদিকে সূত্রাপুর থানায় দায়ের করা একই প্রতিষ্ঠানের একই আসামিদের বিরুদ্ধে ৫৪ কেজি হেরোইন পাচারের অন্য মামলাটির কেস ডকেট (সিডি) খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা প্রমাণে গুরুত্বপূর্ণ এই নথি ছাড়া বিচার শেষ হলে সব আসামি খালাস পেয়ে যেতে পারেন বলে শঙ্কা রয়েছে।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত (ফাইল ছবি)

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত (ফাইল ছবি)

এই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে অন্যতম আইনজীবী সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর শাহ জামাল লিটন কেস ডকেট ফেরত দিয়েছেন বলে এর আগে আদালতপাড়ার সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন।

তবে রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌসুঁলি আবদুল্লাহ আবু বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমি লিটনকে মহানগর পিপির কার্যালয়ে কেস ডকেট ফেরত দেওয়ার আদেশ দিয়েছি। কিন্তু সে সেটি এখনও ফেরত দিতে পারেনি।”

শাহ জামাল লিটনের কাছে জানতে চাইলেও তিনি বার বার এড়িয়ে যাচ্ছেন বলে আবদুল্রাহ আবু জানান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফোনও ধরেননি শাহ জামাল লিটন।

২০১২ সালের ১ অক্টোবর একই তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ হোসেন এই মামলায়ও আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। সেই সঙ্গে আসামি বদরুদ্দোজা মোমিন ও মাঈনুদ্দিনকে অব্যাহতির আবেদন করা হয়।

২০১৩ সালের ৩০ জানুয়ারি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মো. আখতারুজ্জামান অভিযোগপত্র গ্রহণ করে ওই দুই আসামিকে অব্যাহতি পান।

পরের বছর ২০ মে ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক রুহুল আমিন আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। বর্তমানে ঢাকার ৩ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে থাকা মামলাটি সাক্ষ্যগ্রহণের পর্যায়ে রয়েছে।

২০১৪ সালের ৭ জানুয়ারি মামলাটি ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন থাকাবস্থায় প্রসিকিউটর শাহ জামাল লিটন কেস ডকেট নেন।

এরপর পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ আদালত ও তিন নম্বর বিশেষ জজ আদালতে মামলা বদলি হয়ে গেলেও তিনি সংশ্লিষ্ট আদালতগুলোর প্রসিকিউটরদের সিডি বুঝিয়ে দেননি বলে অভিযোগ।

]]>
8 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368184 বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 21:54:49.0 2017-07-22 22:17:39.0 সিদ্দিকুরের চোখে টিয়ার শেল সিদ্দিকুরের চোখে টিয়ার শেল শাহবাগে পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার দাবিতে বিক্ষোভরত কলেজ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের সময় চোখে টিয়ার শেল লেগে অন্ধ হতে চলেছেন তিতুমীর কলেজের ছাত্র মো. সিদ্দিকুর রহমান। ঘটনাক্রম আলোকচিত্রে- রাজধানীর শাহবাগে পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার দাবিতে বিক্ষোভরত ঢাকার সাত সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের সময় চোখে টিয়ার শেল লেগে অন্ধ হতে চলেছেন তিতুমীর কলেজের ছাত্র মো. সিদ্দিকুর রহমান। ঘটনাক্রম আলোকচিত্রে- false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368184.bdnews true http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0001.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0001.jpg http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0011.jpg/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0011.jpg ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলো নিয়ে নীতিমালা প্রণয়ন এবং পরীক্ষার তারিখ ঘোষণাসহ কয়েকটি দাবিতে বৃহস্পতিবার রাজধানীর শাহবাগে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে বাধা দেয় পুলিশ।
 

]]>
1368195 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0001.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0001.jpg ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলো নিয়ে নীতিমালা প্রণয়ন এবং পরীক্ষার তারিখ ঘোষণাসহ কয়েকটি দাবিতে বৃহস্পতিবার রাজধানীর শাহবাগে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে বাধা দেয় পুলিশ। 1368196 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0002.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0002.jpg এক পর্যায়ে চড়াও হয় পুলিশ। 1368197 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0003.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0003.jpg 1368194 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0004.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0004.jpg টিয়ার শেল খেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন সিদ্দিকুর 1368200 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0006.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0006.jpg ছত্রভঙ্গ শিক্ষার্থীরা, পড়ে থাকেন সিদ্দিকুর 1368199 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0007.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0007.jpg পুলিশের মাঝে মাটিতে লুটিয়ে পড়া সিদ্দিকুর 1368203 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0010.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0010.jpg সহপাঠীরা এসে উদ্ধার করে তাকে 1368178 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_220717_0011.jpg/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_220717_0011.jpg চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয় সিদ্দিকুরকে 1368172 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/siddiqur-01.jpg1/ALTERNATES/w300/siddiqur-01.jpg আগারগাঁওয়ের জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে শনিবার সকালে সিদ্দিকের চোখে অস্ত্রোপচার হয়। প্রায় দেড় ঘণ্টা অস্ত্রোপচার শেষে চিকিৎসকরা জানান, আলো ফিরবে না তার দুই চোখে।
9 2 Home samagrabangladesh সমগ্র বাংলাদেশ news-district 9945 1368025 মনির হোসেন কামাল, বরগুনা প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম মনির হোসেন কামাল, বরগুনা প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 16:04:28.0 2017-07-22 17:25:05.0 মহল বিশেষের ইন্ধনে মামলা: ইউএনও মহল বিশেষের ইন্ধনে মামলা: ইউএনও তারিক বরিশালের আগৈলঝাড়ার ইউএনও থাকাকালে কয়েকটি কঠোর প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের কারণে ‘নাখোশ মহল বিশেষের ইন্ধনে’ তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে বলে মনে করেন গাজী তারিক সালমন। বরিশালের আগৈলঝাড়ার ইউএনও থাকাকালে কয়েকটি কঠোর প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের কারণে ‘নাখোশ মহল বিশেষের ইন্ধনে’ তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে বলে মনে করেন গাজী তারিক সালমন। false http://bangla.bdnews24.com/samagrabangladesh/article1368025.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/barisal-uno-photo-19.07.17.jpg/ALTERNATES/w300/Barisal-UNO-Photo-19.07.17.jpg
পঞ্চম শ্রেণির এক শিশুর আঁকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি দিয়ে স্বাধীনতা দিবসের আমন্ত্রণপত্র ছাপানোয় মামলার আসামি হন বরিশালের আগৈলঝাড়ার সাবেক ইউএনও গাজী তারিক সালমন, যিনি বর্তমানে বরগুনা সদরের ইউএনও।

গত বুধবার এ মামলায় বরিশাল মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে আবেদন নাকচ করে তাকে হাজতে পাঠানো হয়। দুঘণ্টা পর আবার জামিন দেন একই বিচারক।

এ ঘটনায় সারাদেশে ব্যাপক সমালোচনার মধ্যে মামলার বাদী বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ওবায়েদ উল্লাহ সাজুকে দল থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। 

তারিক সালমনের সঙ্গে কথা বলে এবং স্থানীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত এপ্রিলে এইচএসসি পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে আগৈলঝাড়ার শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে পিয়াল নামের এক পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করেন সেখানকার ওই সময়ের ইউএনও গাজী তারিক সালমন। বহিষ্কার হওয়ার পর পিয়াল ইউএনওর সঙ্গে অসদাচরণ করলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাকে ছয় মাসের কারাদন্ডও দেওয়া হয়।

পিয়ালকে নকল সরবরাহের দায়ে একই দিন ওই কলেজের দপ্তরি নারায়ণকেও দুই মাসের কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া নকল সরবরাহের দায়ে কলেজের প্রভাষক অরুণ বাড়ইকে পরীক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা হয়।

এসব কারণে যারা নাখোশ তাদের ইন্ধনে এ মামলা হয়েছে বলে তারিক সালমন মনে করেন।

এই সেই আমন্ত্রণপত্র

এই সেই আমন্ত্রণপত্র

তারিক সালমন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে আগৈলঝাড়া উপজেলার সোলার প্যানেল স্থাপনের জন্য বরাদ্দ দেওয়া ৭৯ লাখ টাকা ফেরত পাঠান তিনি। স্থানীয় একটি মহল ওই টাকা তাদের নিজেদের মতো করে খরচ করতে চেয়েছিলেন। তাতে সফল না হয়ে তারা ইউএনওর উপর ক্ষুব্ধ হন।

“এসব কারণে তারা মামলায় ইন্ধন দিয়েছেন।”  

তারিক সালমন বলেন, শিশুদের হৃদয়ে যাতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ প্রোথিত করে দেওয়া যায়, শিশুরা যাতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করতে পারে এবং সৃজনশীল ও সহপাঠ্যক্রমিক কার্যক্রমে উৎসাহ দেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের আঁকা ছবি ব্যবহার করে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের আমন্ত্রণপত্রটি ডিজাইন করা হয়।

তিনি জানান, আগৈলঝাড়া উপজেলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশুদিবস-২০১৭ উপলক্ষে আয়োজিত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় প্রথম ও দ্বিতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত দুই শিশুর আঁকা দুটি ছবি ব্যবহার করে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৭-এর আমন্ত্রণপত্রটি তৈরি করা হয়েছিল।

“আমন্ত্রণপত্রের প্রচ্ছদে (ফ্রন্ট কাভার) ওই প্রতিযোগিতায় 'গ' গ্রুপে প্রথম হওয়া আগৈলঝাড়া এসএম বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী জ্যোতির্ময়ের আঁকা মুক্তিযুদ্ধের রণক্ষেত্রের একটি ছবি এবং শেষ প্রচ্ছদে (ব্যাক কাভার) 'খ' গ্রুপে দ্বিতীয় স্থান অধিকারী আগৈলঝাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী অদ্রিজা করের আঁকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি প্রতিকৃতি ব্যবহার করা হয়েছিল।”

এ ব্যাপারে বরগুনা জেলা প্রশাসক মহা. বশিরুল আলম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বাস্তবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করা হয়নি। মূলত শিশুদের উৎসাহ দিতেই ওই ছবিটি ব্যবহার করা হয়েছিল।”

যেহেতু এ বিষয়ে একটি মামলা হয়েছে, তাই আইনগতভাবেই এর সমাধান হবে, বলেন তিনি।

কোর্ট হাজতে আটক রাখার বিষয়টি ইউএনও তারিক বরগুনা জেলা প্রশাসককে লিখিতভাবে জানিয়েছিলেন।

চিঠিতে তিনি উল্লেখ করেন, বরিশাল মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সৈয়দ ওবায়েদ উল্লাহ সাজু তার বিরুদ্ধে পাঁচ কোটি টাকার মানহানি মামলা করেন। ওই মামলায় মুখ্য মহানগর হাকিম (ভারপ্রাপ্ত) অমিত কুমার দে সমন জারির আদেশ দেন। গত ১৯ জুলাই ছিল সমন ফেরতের ধার্য দিন।

মামলাকারী ওবায়েদ উল্লাহ সাজু

মামলাকারী ওবায়েদ উল্লাহ সাজু

“ওইদিন আমি আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবী মোখলেসুর রহমান খানের মাধ্যমে জামিন আবেদন ও ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি প্রার্থনা করি। আদালতে বাদীপক্ষের অ্যাডভোকেট শেখ আবদুল কাদের ও স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুসসহ প্রায় ৫০ জন আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।”

তিনি চিঠিতে আরও বলেন, বরিশালের মুখ্য মহানগর হাকিম আলী হোসাইন প্রায় আধঘণ্টা উভয়পক্ষের বক্তব্য শোনেন। পরে তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন এবং মামলার শুনানির জন্য আগামী ২৩ জুলাই দিন ধার্য করেন। এরপর তাকে প্রায় দুই ঘণ্টা কোর্ট হাজতে আটক রাখা হয়।

“কোর্ট পুলিশের সদস্যরা আমাকে বারবার কারাগারে চলে যাওয়ার অনুরোধ করতে থাকলে আমি তা অগ্রাহ্য করে সেখানে অবস্থান করি। ইতিমধ্যে আমার জামিন নামঞ্জুরের বিষয়টি আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করি।

“আনুমানিক বেলা ২টার সময় হাকিম আলী হোসাইন তার আদালতের পেশকারকে দিয়ে আমাকে ও আমার আইনজীবীকে তলব করেন এবং সেখানে উপস্থিত হওয়ার পর জামিন আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছে বলে পেশকার আমাদের জানান।”

]]>
1368023 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/barisal-uno-photo-19.07.17.jpg/ALTERNATES/w300/Barisal-UNO-Photo-19.07.17.jpg 1368022 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/barisal-bangabandhu-card.jpg/ALTERNATES/w300/Barisal-Bangabandhu-card.jpg এই সেই আমন্ত্রণপত্র 1368024 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/saju-al.jpg/ALTERNATES/w300/saju-AL.jpg বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ওবায়েদ উল্লাহ সাজু
10 2 Home glitz গ্লিটজ news-bn 203 1368144 গ্লিটজ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম গ্লিটজ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 20:31:19.0 2017-07-23 02:12:50.0 গিটারিস্ট জাহিনের আত্মহত্যা মাইলসের মানামের ছেলে গিটারিস্ট জাহিনের আত্মহত্যা জাহিন আহমেদ ছিলেন আন্ডারগ্রাউন্ড ব্যান্ড মেকানিক্স-এর সদস্য ব্যান্ড দল মাইলসের সদস্য মানাম আহমেদের ছেলে ও মেকানিক্স ব্যান্ডের গিটারিস্ট জাহিন আহমেদ আত্মহত্যা করেছেন। false http://bangla.bdnews24.com/glitz/article1368144.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/zeheen-01.jpg/ALTERNATES/w300/zeheen-01.jpg জাহিন আহমেদের ফেইসবুক থেকে নেয়া
শনিবার বিকালে ধানমণ্ডিতে নিজের ফ্ল্যাটে গলায় ফাঁস লাগিয়ে তিনি আত্মহত্যা করেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ধানমন্ডি থানার ওসি আব্দুল লতিফ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “গলায় টাই পেঁচিয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে জাহিন। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তার বাবা-মা বলতে পারছেন না তাদের ছেলে কেন আত্মহত্যা করেছে। তাছাড়া তাদের কোনো অভিযোগও নেই।”

জাহিন আহমেদের ফেইসবুক থেকে নেয়া

জাহিন আহমেদের ফেইসবুক থেকে নেয়া

জাহিন (২৭) ছিলেন মানাম আহমেদের বড় ছেলে। মাইলসের কিবোর্ডিস্ট মানামের বাবা মনসুর আহমেদ ছিলেন সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক। 

বিকাল ৩টায় ঘর থেকে জাহিনকে উদ্ধার করে নেওয়া হয়েছিল ল্যাবএইড হাসপাতালে।

সেখানকার কমিউনিকেশন বিভাগের সহকারী মহাব্যবস্থাপক সাইফুর রহমান লেনিন বলেন, “জাহিন আত্মহত্যা করেছেন। তার গলায় দড়ি দিয়ে ফাঁস নেওয়ার চিহ্ন পাওয়া গেছে।”

সর্বশেষ শুক্রবার সন্ধ্যায় রাশিয়ান কালচারাল সেন্টারে আয়োজিত ইনডালোর কনসার্টে পারফর্ম করেন জাহিন।

ওসি জানান, লিখিত আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের কাছে তার লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

]]>
1368136 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/zeheen-01.jpg/ALTERNATES/w300/zeheen-01.jpg জাহিন আহমেদের ফেইসবুক থেকে নেয়া 1368137 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/zeheen-02.jpg/ALTERNATES/w300/zeheen-02.jpg জাহিন আহমেদের ফেইসবুক থেকে নেয়া
11 2 Home samagrabangladesh সমগ্র বাংলাদেশ news-district 9945 1368229 রাঙামাটি প্রতিনিধি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম রাঙামাটি প্রতিনিধি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 23:28:26.0 2017-07-22 23:41:03.0 সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবীর বিরুদ্ধে খাগড়াছড়িতে ৫৭ ধারায় মামলা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবীর বিরুদ্ধে খাগড়াছড়িতে ৫৭ ধারায় মামলা পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ে ফেইসবুকে উস্কানিমূলক মন্তব্যের অভিযোগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদের বিরুদ্ধে খাগড়াছড়িতে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা হয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ে ফেইসবুকে উস্কানিমূলক মন্তব্যের অভিযোগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদের বিরুদ্ধে খাগড়াছড়িতে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা হয়েছে। false http://bangla.bdnews24.com/samagrabangladesh/article1368229.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/bangla-media/2017/07/22/imtiz-mahood.jpg/ALTERNATES/w300/Imtiz-Mahood.jpg ইমতিয়াজ মাহমুদ (ফেইসবুক থেকে নেওয়া ছবি)
খাগড়াছড়ি সদর থানার ওসি তারেক মো. আব্দুল হান্নান জানান, শুক্রবার বিকালে শফিকুল ইসলাম নামে খাগড়াছড়ির এক বাসিন্দা মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার এজহারে উল্লেখ করা হয়েছে, “সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদ সম্প্রতি তার ফেইসবুক আইডিতে পাহাড়ের ইস্যুতে নানা মন্তব্য করেছেন। এর মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসকারী মধ্যে সাম্প্রদায়িক উস্কানি ছড়ানো হয়েছে। বাঙ্গালি জাতিকে হেয় করে ‘সেটেলার’ আখ্যায়িত করা হয়।”

আইনজীবী ইমতিয়াজের পোস্টগুলো ‘পাহাড়ে দাঙ্গা’ লাগানোর জন্য পরিকল্পিত বলেও অভিযোগ করেছেন বাদী শফিকুল।

ওসি হান্নান বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি আইনে ৫৭ ধারায় দায়ের করা মামলাটির তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে পুলিশ।

]]>
1368231 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/bangla-media/2017/07/22/imtiz-mahood.jpg/ALTERNATES/w300/Imtiz-Mahood.jpg ইমতিয়াজ মাহমুদ (ফেইসবুক থেকে নেওয়া ছবি) 1331609 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/bangla-media/2017/05/08/khagrachari-map.jpg/ALTERNATES/w300/Khagrachari-map.jpg
12 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368218 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 22:50:00.0 2017-07-22 22:55:05.0 সরকারের প্রতি সিদ্দিকুরের চিকিৎসার ভার নেওয়ার দাবি সরকারের প্রতি সিদ্দিকুরের চিকিৎসার ভার নেওয়ার দাবি পুলিশের টিয়ার শেলের আঘাতে অন্ধ হতে চলা ঢাকার কলেজছাত্র সিদ্দিকুর রহমানের চিকিৎসার ভার নিতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন তার সহপাঠীরা। পুলিশের টিয়ার শেলের আঘাতে অন্ধ হতে চলা ঢাকার কলেজছাত্র সিদ্দিকুর রহমানের চিকিৎসার ভার নিতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন তার সহপাঠীরা। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368218.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_student-protest_220717_0005.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_Student+protest_220717_0005.jpg
শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র রিয়াজ মাহমুদ এ দাবি জানান।

তিনি বলেন, পুলিশের ছোড়া শেলের আঘাতে সিদ্দিকুরের দুই চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

“সরকারকে তার চিকিৎসার দায়ভার নিতে হবে।”

কয়েক মাস আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত হওয়া রাজধানীর সাতটি সরকারি কলেজ শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার দাবিতে বৃহস্পতিবার শাহবাগে সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করলে তাদের বাধা দেয় পুলিশ।

একপর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিপেটা ও কাঁদুনে গ্যাসের শেল ছোড়ে পুলিশ। সে সময় কাঁদুনে গ্যাসের শেল সিদ্দিকুরের চোখে লাগে।

আগারগাঁওয়ের জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন সিদ্দিকুর। শনিবার সকালে তার চোখে অস্ত্রোপচারের পর চিকিৎসকরা বলেছেন, তার দুই চোখে আলো ফেরার সম্ভাবনা নেই।

তিতুমীর কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র সিদ্দিকুরের বাড়ি ময়মনসিংহের তারাকান্দি উপজেলার ডাকিরকান্দা গ্রামে। দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে সবার ছোট তিনি। বাবা হারিয়েছেন শিশু বয়সে।

নির্মাণ শ্রমিক বড় ভাইয়ের উপার্জনের সঙ্গে মা হাঁস-মুরগি পেলে তাদের সংসার চালান। সেই থেকে পাঠানো টাকায় লেখাপড়া চলত সিদ্দিকুরের।

পুলিশের হামলার নিন্দা জানিয়ে ঢাকা কলেজের ছাত্র শাহিন হোসেন সমাবেশে বলেন, “শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশের হামলার দুই দিন অতিবাহিত হলেও এখনও কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও কলেজ প্রশাসনও আহতদের খোঁজ-খবর নেয়নি। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।

“এই হামলা শুধু শিক্ষার্থীদের উপর নয়, পুরো শিক্ষা ব্যবস্থার উপরে হামলা। এ হামলায় শুধু সিদ্দিকের চোখ অন্ধ হয়নি, অন্ধ হয়ে গেছে এদেশের পুরো শিক্ষা ব্যবস্থা ।”

চোখে কালো কাপড় বেঁধে এই প্রতিবাদ সমাবেশে অংশ নিয়েছিলেন আন্দোলনরত সাত সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা।

তাদের দাবি মেনে নিতে মঙ্গলবার পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়ে সমাবেশ থেকে বলা হয়, এ সময়ের মধ্যে দাবি মেনে নেওয়া না হলে পরদিন বুধবার বিকাল ৪টায় প্রেস ক্লাবের সামনে আবারও অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হবে।

“এরপরে দাবি আদায়ের আরো কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা দেয়া হবে,” বলেন রিয়াদ মাহমুদ।

]]>
1368217 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_student-protest_220717_0005.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_Student+protest_220717_0005.jpg 1368222 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_student-protest_220717_0001.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_Student+protest_220717_0001.jpg 1368221 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_student-protest_220717_0003.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_Student+protest_220717_0003.jpg 1368220 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/15_siddiqur_injured_police-attact_student-protest_220717_0002.jpg1/ALTERNATES/w300/15_Siddiqur_injured_Police+attact_Student+protest_220717_0002.jpg
13 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368208 নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 22:22:25.0 2017-07-22 22:22:25.0 নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে জোর জাতীয় কমিটির নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে জোর দিয়ে জাতীয় কমিটির বিকল্প প্রস্তাব নবায়নযোগ্য জ্বালানির উপর জোর দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন খাতকে ঢেলে সাজানোর প্রস্তাব দিয়ে সরকারের মহাপরিকল্পনার বিকল্প উপস্থান করেছে তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি। নবায়নযোগ্য জ্বালানির উপর জোর দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন খাতকে ঢেলে সাজানোর প্রস্তাব দিয়ে সরকারের মহাপরিকল্পনার বিকল্প উপস্থান করেছে তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368208.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/14_tal_gas_press-brifeing_220717_0002.jpg/ALTERNATES/w300/14_tal_gas_Press+brifeing_220717_0002.jpg
শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক উন্মুক্ত আলোচনা সভায় বিকল্প মহাপরিকল্পনার সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করেন কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ।

সারসংক্ষেপে বলা হয়, সরকারের জ্বালানি ও বিদ্যুৎ মহাপরিকল্পনা (২০১৭-৪১) অনুযায়ী বিদ্যুৎ খাতের প্রতিটি প্রকল্পই হবে বিদেশি কোম্পানিভিত্তিক, আমদানি ও ঋণ নির্ভর।

সারা বিশ্বে নবায়নযোগ্য জ্বালানিভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনে বৃদ্ধি ও খরচ কম হলেও ‘উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই ব্যয়ের চিত্রটি অস্বাভাবিক হারে বাড়িয়ে দেখিয়ে’ পরিবেশ বিধ্বংসী উচ্চব্যয়ের বিদ্যুৎ উৎপাদনকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

বিভিন্ন জ্বালানির তুলনামূলক খরচ তুলে ধরে জাতীয় কমিটি বলছে, নবায়নযোগ্য উৎস থেকে পুঁজি বিনিয়োগ, বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ ও একক চলতি খরচ গত ১০ বছরে শতকরা ৫০ শতাংশের বেশি কমেছে ।

জাতিসংঘের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক একটি সংস্থার গবেষণার বরাত দিয়ে বলা হয়, ২০১০ থেকে ৫ বছরে প্রতি ইউনিট সৌরবিদ্যুতের দাম কমেছে ৫৮শতাংশ, যা ২০২৫ সাল পর্যন্ত কমে ৫৯ শতাংশে নেমে আসবে বলে প্রাক্কলন করা হয়েছে।

২০৪০ সাল নাগাদ সৌরবিদ্যুতের দাম প্রতি ইউনিট কমবে ৫০ শতাংশ, বায়ুবিদ্যুৎ ৩০ শতাংশ ও ব্যাটারির দাম কমবে ৪৫ শতাংশ পর্যন্ত কমতে পারে, যেখানে জীবাশ্ম জ্বালানিভিত্তিক বিদ্যুতের দাম বাড়বে ৪৫ শতাংশ। কিন্তু সরকার কম দামের চেয়ে বেশি দামের পথে যাচ্ছে।

প্রস্তাবে বলা হয়, ২০৪১ সাল পর্যন্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্য করে সরকার ১২৯ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের যে পরিকল্পনা নিয়েছে, তার বিপরীতে ১১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করে তার চেয়ে অনেক বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব।

বিদ্যুতের দামও সরকারের (২০১৫-এর দামস্তর অনুযায়ী) ১২ টাকা ৭৯ পয়সার বিপরীতে ৫ টাকা ১০ পয়সায় নামিয়ে আনা সম্ভব।

তেল-গ্যাস কমিটির প্রস্তাবে বলা হয়, যথাযথ নীতিগ্রহণ করলে ২০৪১ সাল পর্যন্ত দেশের গ্যাস চাহিদা নিজেদের গ্যাস থেকেই মেটানো সম্ভব। তার জন্য গ্যাস নিয়ে রপ্তানিমুখি চুক্তি বাতিল করে বাপেক্সকে কাজের সুযোগ দিয়ে জাতীয় সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন ঘটাতে হবে এবং স্থলভাগ এবং গভীর ও অগভীর সমুদ্রে নিয়মিতভাবে অনুসন্ধান চালাতে হবে।

দেশের জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত নিয়ে জাতীয় কমিটি যে রূপরেখা দিয়েছে তাতে স্বল্প মেয়াদে বিদ্যুৎ উৎপাদনে বিদ্যমান কাঠামোতে কিছু পরিবর্তনের সুপারিশ করে বলা হয়েছে, এই সময়ের মধ্যে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ সংক্রান্ত পরিকল্পনার আমূল পরিবর্তন করে জাতীয় সক্ষমতা বিকাশে বিপুল গবেষণা ও নিয়োগের ক্ষেত্র তৈরি করতে হবে।

২০২১ সাল পর্য ন্ত স্বল্পমেয়াদ ধরে প্রস্তাবিত কাঠামোতে মোট উৎপাদিত বিদ্যুতের মধ্যে গ্যাস থেকে শতকরা ৫৯ ভাগ, তেল থেকে শতকরা ১৯ ভাগ, নবায়নযোগ্য (সৌর, বায়ু ও বর্জ্য) জ্বালানি থেকে শতকরা ১০ ভাগ এবং আঞ্চলিক সহযোগিতা থেকে শতকরা ৭ ভাগ বিদ্যুৎ পাওয়ার কথা বলা হয়েছে।

২০৩১ সাল পর্য ন্ত মধ্যমেয়াদ ধরে প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, পুরনো গ্যাসক্ষেত্র থেকে গ্যাস পাওয়ার হার হ্রাস পেলেও যথাযথভাবে অনুসন্ধান করলে গভীর ও অগভীর সমুদ্র থেকে নতুন পর্যায়ে গ্যাস সরবরাহ শুরু হবে এই সময়ের মধ্যে। কোনো কারণে তার ঘাটতি দেখা দিলে গ্যাস আমদানিও অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক হবে।

ততদিনে নবায়নযোগ্য উৎসগুলো ব্যবহারের সক্ষমতাও বাড়বে। এই সময়কালেও গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎ শীর্ষস্থানে থাকবে (শতকরা ৪৯ ভাগ)। এরপর যথাক্রমে নবায়নযোগ্য জ্বালানি (শতকরা ৩৯ ভাগ), তেল (শতকরা ৭ ভাগ) ও আঞ্চলিক সহযোগিতা (শতকরা ৫ ভাগ)।

২০৪১ সাল পর্যগন্ত দীর্ঘমেয়াদ ধরে প্রস্তাবে বলা হয়, গুণগত পরিবর্তন নিশ্চিত করে নবায়নযোগ্য উৎস থেকেই বিদ্যুৎ উৎপাদন শীর্ষস্থানে পৌঁছুবে। এই সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন শতকরা ৫৫ ভাগ নবায়নযোগ্য উৎস থেকে আনা সম্ভব। দ্বিতীয় স্থানে থাকবে প্রাকৃতিক গ্যাস, শতকরা ৩৭ ভাগ। তেল ও আঞ্চলিক সহযোগিতা শতকরা ৮ ভাগ।

সভায় বক্তব্য রাখেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বিশেষজ্ঞ প্যানেলের সদস্য ড. আব্দুল হাসিব চৌধুরী, প্রকৌশলী মাহাবুব সুমন, ড. সুজিত চৌধুরী, রাজনীতিক সাইফুল হক, জোনায়েদ সাকী।

আনু মুহাম্মদ বলেন, “সরকার যেভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে চায় সেভাবে দেশ ঋণের শৃঙ্খল ও আধিপত্যের মধ্যে পড়বে, পানি-মাটি-পরিবেশ বিপর্যস্ত হবে। এর থেকে বেরিয়ে আসতেই জাতীয় কমিটি বিকল্প প্রস্তাবনা তুলে ধরছে।

“এটি প্রস্তাবিত মহাপরিকল্পনার খসড়া মাত্র। চূড়ান্ত করার জন্য বিশেষজ্ঞসহ বিভিন্ন মহলের পরামর্শ নেওয়া হবে।”

সিপিবি সভাপতি বলেন, “আওয়ামী লীগ-বিএনপি দিয়ে এ মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন হবে না। তার জন্য যে রাজনৈতিক ক্ষেত্র দরকার সে রাজনৈতিক ক্ষেত্রও প্রস্তুত করা হবে।

টিপু বিশ্বাস, রুহিন হোসেন প্রিন্স, মোশরেফা মিশু, জাহিদুল হক মিলু, আজিজুর রহমান, নাসিরউদ্দিন নসু, ফকরুদ্দিন কবির আতিক, মাহিনউদ্দিন চৌধুরী লিটন, মাসুদ খান ও সামছুল আলমসহ অন্যরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

]]>
1368207 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/14_tal_gas_press-brifeing_220717_0002.jpg/ALTERNATES/w300/14_tal_gas_Press+brifeing_220717_0002.jpg
14 2 Home samagrabangladesh সমগ্র বাংলাদেশ news-district 9945 1368198 মেহেরপুর প্রতিনিধি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম মেহেরপুর প্রতিনিধি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 22:10:22.0 2017-07-22 22:15:00.0 মেহেরপুরে ‘চিকিৎসাহীন রোগে’ আক্রান্ত একজনের মৃত্যু মেহেরপুরে ‘চিকিৎসাহীন রোগে’ আক্রান্ত একজনের মৃত্যু মেহেরপুরে চিকিৎসাহীন ব‌্যধিতে আক্রান্ত যে তিনজনকে ওষুধ প্রয়োগে মেরে ফেলার অনুমতি চাওয়া হয়েছিল, তাদের একজন মারা গেছেন। মেহেরপুরে চিকিৎসাহীন ব‌্যধিতে আক্রান্ত যে তিনজনকে ওষুধ প্রয়োগে মেরে ফেলার অনুমতি চাওয়া হয়েছিল, তাদের একজন মারা গেছেন। false http://bangla.bdnews24.com/samagrabangladesh/article1368198.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/01/21/meherpur--edit-2.jpg/ALTERNATES/w300/Meherpur--edit-2.jpg আব্দুস সবুর
মৃত আব্দুস সবুর (২৪) ‘ডুসিনি মাসুকলার ডিসট্রোফি’ রোগে আক্রান্ত ছিলেন, যার কোনো চিকিৎসা নেই বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

শনিবার দুপুর ২টার দিকে মেহেরপুর শহরের বেড়পাড়ায় নিজেদের বাড়িতে সবুরের মৃত্যু হয় বলে সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আরএমও ডা. অলোক কুমার দাস জানান।

বাবা-মায়ের সঙ্গে সবুর

বাবা-মায়ের সঙ্গে সবুর

সবুরের ভাই রায়হানুল ইসলাম (১৩) এবং তাদের ভাগিনা সৌরভও (৮) এই রোগে আক্রান্ত।

এই তিনজনকে ওষুধ খাইয়ে মেরে ফেলার অনুমতি চেয়ে গত জানুয়ারিতে মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছিলেন সবুরের বাবা তোফাজ্জেল হোসেন।

তিনি শনিবার রাতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চোখের সামনে সন্তানের মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাওয়া সহ্য করতে না পেরে ওষুধ খাইয়ে তাদের মেরে ফেলার অনুমতি চেয়েচিলাম। ভারতসহ নানা জায়গায় চিকিৎসার পর কিছু করা গেলে না।

“অনিবার্য পরিণতি মৃত্যুই হল। আজ না হয় কাল ছোট ছেলেরও একই পরিণতি হবে।”  

‘ডুসিনি মাসুকলার ডিসট্রোফিকে’ বাংলায় ‘বংশগত মাংসপেশী দুর্বলতা’ রোগ বলা হয়।

চিকিৎসকদের মতে, হরমোন বা জিনগত কারণে এই রোগ দেখা দেয়। শুধু ছেলেদের এই রোগ হয়। এর কোনো চিকিৎসা এখনও আবিষ্কৃত হয়নি।

ডা. অলোক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এই রোগটি ক্যান্সারের চেয়েও ভয়াবহ। আক্রান্তের শরীরে সব অংশের মাংসপেশী আস্তে আস্তে জমাট বেঁধে যাবে। চলাফেরা বন্ধের সঙ্গে সঙ্গে কথা বলার শক্তিও হারিয়ে যায়। ১৪ বছরের পর থেকে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায় আক্রান্তরা। মৃত্যু এদের অনিবার্য।”

সন্ধ্যা ৭টার দিকে মেহেরপুর পৌরসভা কবরস্থানে সবুরের দাফন সম্পন্ন হয়েছে বলে জানান তোফাজ্জেল।

]]>
1276432 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/01/21/meherpur--edit-2.jpg/ALTERNATES/w300/Meherpur--edit-2.jpg আব্দুস সবুর 1276431 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/01/21/meherpur-edit.jpg/ALTERNATES/w300/Meherpur-edit.jpg বাবা-মায়ের সঙ্গে সবুর
15 2 Home samagrabangladesh সমগ্র বাংলাদেশ news-district 9945 1368051 কক্সবাজার প্রতিনিধি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম কক্সবাজার প্রতিনিধি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 17:08:35.0 2017-07-22 21:53:32.0 হিমছড়িতে পাহাড় ধসে ঢাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু হিমছড়িতে পাহাড় ধসে ঢাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু কক্সবাজারের হিমছড়িতে ঝরনা দেখতে আসা ওই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়। কক্সবাজারের হিমছড়িতে পাহাড় ধসে ঝরনা দেখতে আসা এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে; আহত হয়েছেন আরও তিনজন। false http://bangla.bdnews24.com/samagrabangladesh/article1368051.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/bangla-media/2017/07/22/1.jpg/ALTERNATES/w300/1.jpg
শনিবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল জানান।

নিহত সাব্বির আলম রিদওয়ান (২১) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাকেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী । রাজধানীর উত্তরায় তার বাড়ি।

আহতদের কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম জানা যায়নি।

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, কক্সবাজারে বেড়াতে আসা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত শিক্ষার্থী শনিবার বিকালে মেরিন ড্রাইভ সড়কের হিমছড়ি এলাকায় ঝরনা দেখতে আসেন।

“হিমছড়ির ৪ নম্বর ব্রিজ এলাকার খাড়া ঝরনায় গোসলের সময় পাহাড়ের একটি অংশ ধসে চারজন মাটি চাপা পড়েন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে সাব্বিরকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। ”

তার লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রয়েছে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা টুটুল।

হিমছড়ি (গুগল স্ট্রিট ভিউ)

হিমছড়ি (গুগল স্ট্রিট ভিউ)

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ইমরান উদ্দিন রুবেল বলেন, পাহাড় ধসে আহত চারজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এদের একজন হাসপাতালে আনার আগেই মারা যান।

নিহতের বন্ধু তানভীর আহমদ বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া সাত বন্ধু মিলে শুক্রবার কক্সবাজার বেড়াতে আসেন। শনিবার বিকালে তারা হিমছড়ি ঝরনায় গোসল করছিলেন। এ সময় পাহাড় ধসে চার বন্ধু মাটি চাপা পড়েন।

]]>
1368053 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/bangla-media/2017/07/22/1.jpg/ALTERNATES/w300/1.jpg 1368052 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/himchari.jpg/ALTERNATES/w300/Himchari.jpg হিমছড়ি (গুগল স্ট্রিট ভিউ) 1343797 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/06/02/marine-drive_cox-s-bazar_02062017_000020.jpg/ALTERNATES/w300/Marine+Drive_Cox%27s+Bazar_02062017_000020.jpg ফাইল ছবি
16 2 Home samagrabangladesh সমগ্র বাংলাদেশ news-district 9945 1368054 মেহেরপুর প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম মেহেরপুর প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 17:28:42.0 2017-07-22 17:28:42.0 গাংনীতে ‘জঙ্গি আস্তানায়’ মেলেনি গোলাবারুদ, আটক ৪ গাংনীতে ‘জঙ্গি আস্তানায়’ গোলাবারুদ মেলেনি, আটক ৪ মেহেরপুরের গাংনীতে সৌদি প্রবাসীর এক বাড়ি ঘিরে আড়াই ঘণ্টা ধরে চলে পুলিশের অভিযান। মেহেরপুরের গাংনী উপজেলায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে অভিযান চালানো সৌদি প্রবাসীর বাড়ি থেকে নারী ও শিশুসহ চারজনকে আটক করা হলেও সেখানে কোনো গোলাবারুদ পাওয়া যায়নি। false http://bangla.bdnews24.com/samagrabangladesh/article1368054.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/meherpur-jopngi-033.jpg/ALTERNATES/w300/Meherpur-Jopngi-033.jpg
জেলার পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান বলেন, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার সকাল ১০টায় বামনদী আখমাড়াই কেন্দ্রের পাশে সৌদি আরব প্রবাসী মিশকাত হালিমের দোতলা বাড়িতে অভিযান শুরু করে। আড়াই ঘণ্টা পর অভিযান সমাপ্ত হয়।

হালিম ২২ বছর ধরে সৌদি আরবে থাকেন জানিয়ে পুলিশ সুপার বলেন, বাড়িটি ঘিরে ফেলার পর পুলিশের আহ্বানে সাড়া দিয়ে চারজন বেরিয়ে এসেছেন।

“তাদের মধ্যে আছেন মালিক হালিমের স্ত্রী, এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়া ছেলে, বিবাহিতা মেয়ে ও একটি শিশু।”

এসপি আরও বলেন, বেলা সাড়ে ১২টার দিকে পুলিশ বিভিন্ন দিক থেকে চেষ্টা চালিয়ে বাড়ির ভিতরে ঢুকতে সক্ষম হয়। ভিতরে জঙ্গি ও গোলাবারুদ থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছিল।

“পুলিশ কিছু না পেয়ে বাড়ি তালাবন্ধ করে অভিযান শেষ ঘোষণা করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।”

তাদেরকে গাংনী থানায় রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানালেও নাম-পরিচয় জানাননি এসপি আনিসুর।

গাংনী থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, আটক চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গাংনী থানা হাজতে নেওয়া হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে তাদের মুখ থেকে জঙ্গি সম্পর্কিত ‘চাঞ্চল্যকর তথ্য’ পাওয়া যাবে।

মেহেরপুর-কুষ্টিয়া সড়কের পাশের এই বাড়িটি পুলিশ ঘিরে ফেলার পর আধা কিলোমিটারের মধ্যে কাউকে যেতে দেওয়া হয়নি। গণমাধ্যমকর্মীসহ এলাকার লোকজন আধা কিলোমিটার দূরে দাঁড়িয়েছিলেন।

স্থানীয় বাসিন্দা আজমল হোসেন জানান, বাড়িটির মালিক মিশকাত আলী সৌদি আরব প্রবাসী। বাড়িটি মেহেরপুর-কুষ্টিয়া সড়কের ডান পার্শ্বে বামুন্দী আখ মাড়াই ও মাধ্যমিক স্কুলের পাশে অবস্থিত। ২০-২২ বছর যাবৎ মিশকাত সৌদি আরব থাকেন। বাড়িতে তার স্ত্রী, বিবাহিতা মেয়ে, এইচএসসি পড়ুয়া ছেলে ছাড়া আর কারও থাকার কথা নয়।

]]>
1368007 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/meherpur-jopngi-033.jpg/ALTERNATES/w300/Meherpur-Jopngi-033.jpg 1367951 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/meherpur-jopngi-1.jpg/ALTERNATES/w300/Meherpur-Jopngi-1.jpg 1367952 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/meherpur-jopngi-2.jpg/ALTERNATES/w300/Meherpur-Jopngi-2.jpg
17 2 Home ctg চট্টগ্রাম news-bn 10023 1368121 চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 19:40:23.0 2017-07-22 19:41:33.0 চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার উঠানামায় নতুন রেকর্ড চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার উঠানামায় নতুন রেকর্ড চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে জাহাজ জট ও জেটিতে কন্টেইনার জট নিয়ে সমালোচনার মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চসংখ্যক কন্টেইনার উঠানামার রেকর্ড হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে জাহাজ জট ও জেটিতে কন্টেইনার জট নিয়ে সমালোচনার মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চসংখ্যক কন্টেইনার উঠানামার রেকর্ড হয়েছে। false http://bangla.bdnews24.com/ctg/article1368121.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2014/03/24/ctg-port.jpg/ALTERNATES/w300/ctg-port.jpg ফাইল ছবি
শনিবার চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউজের মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় রেকর্ড সংখ্যক কন্টেইনার হ্যান্ডলিং এর তথ্য জানান বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম খালেদ ইকবাল।

সভা চলাকালে বেলা দেড়টার দিকে তিনি বলেন, “গত ২৪ ঘণ্টায় আমরা রেকর্ড স্থাপন করেছি। আমার কাছে এইমাত্র খবর আসল- চট্টগ্রাম বন্দরের সকল রেকর্ড ভেঙে গত ২৪ ঘণ্টায় আমরা ৯৬৯৫ টিইইউ (টোয়েন্টি ফিট ইক্যুভেলেন্ট ইউনিট) কন্টেইনার হ্যান্ডলিং করেছি।

“তার মধ্যে চার হাজার ৮১৩ ইমপোর্ট (আমদানি) এবং চার হাজার ৮৮২ এক্সপোর্ট (রপ্তানি)।”

এর আগে চলতি বছর ৩০ এপ্রিল বন্দরে কন্টেইনার উঠানামার সর্বোচ্চ রেকর্ড ছিল ৯ হাজার ৩৯৭ টিইইউ।

বন্দর চেয়ারম্যান বলেন, “এ মুহূর্তে আমাদের মোট ৩৭ হাজার ২১৭ টিইইউ কন্টেইনার বন্দরের ভেতর আছে। গত এক বছরে ৫০ হাজার ঘনফুট বন্দরের ভেতরে বিভিন্ন জায়গায় যোগ করেছি।”

প্রতিটি ২০ ফুট দৈর্ঘ্যের কন্টেইনারকে এক টিইইউ একক ধরে হিসেবে করা হয়।

‘দেশের আমদানি রপ্তানি বাণিজ্য ও ট্রেড ফ্যাসিলিটেশনের স্বার্থে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজ ও চট্টগ্রাম বন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার বিষয়ে সর্বস্তরের স্টেকহোল্ডারদের সাথে’ মতবিনিময় সভাটির আয়োজন করা হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সচিব নজিবুর রহমান।

সভায় ব্যবসায়ী নেতারা বহির্নোঙরে জাহাজ জটের বিষয়টি উল্লেখ করে বন্দরের ‘ভাবমূর্তি সংকট’ সৃষ্টি হচ্ছে বলে উল্লেখ করেন।

বন্দর চেয়ারম্যান বলেন, “সাত নম্বর খালের পাশে নতুন ইয়ার্ড প্রায় প্রস্তুত। যে চার হাজার দুইশটি অকশন কন্টেইনার আছে সেগুলো সোমবার থেকে স্থানান্তর শুরু করব। সেটা রাতের বেলা হবে যাতে জট না লাগে। অকশন কন্টেইনার দিয়ে ওই ইয়ার্ডটির যাত্রা শুরু করতে চাই।”

এই চার হাজার দুশ কন্টেইনার সরিয়ে ফেললে মূল বন্দরের মধ্যে ‘একটা নতুন হিউজ স্পেস ক্রিয়েট’ হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

আরও নতুন অফডক প্রয়োজন এবং বিদ্যমান অফডকগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে হবে বলেও মত দেন বন্দর চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন, ২০১৬ সালে মোট রপ্তানি ছিল ১১ লাখ ৬২ হাজার ৯৭০ টিইইউ‘এস এরমধ্যে পাঁচ লাখ ৭৭ হাজার টিইইউ’এস লোডেড (পণ্যভর্তি)। 

“বন্দরে কন্টেইনার জট কমানোর দুটি রাস্তা আছে। হয় খালি কন্টেইনার অফডকে পাঠাতে হয়। অথবা বন্দরের ভেতরে ধারণক্ষমতা যদি আরও বাড়াতে পারি, সেটা হচ্ছে।”

বন্দরের সক্ষমতা বাড়াতে কাজ চলছে জানিয়ে বন্দর চেয়ারম্যান বলেন,  ২০১৬ সালে পাঁচ লাখ ৮৫ হাজার টিইইউ’এস খালি কন্টেইনার লোড (জাহাজে তোলা) হয়েছে।

“তাহলে খালি কন্টেইনারের জায়গায় আমি লোডেড কন্টেইনার পাঠাব। আমাদের শতভাগ সক্ষমতা আছে। সক্ষমতা আরও বাড়াবো।”

]]>
762473 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2014/03/24/ctg-port.jpg/ALTERNATES/w300/ctg-port.jpg ফাইল ছবি 1368122 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/101_custom_bondor_meeting_c.jpg/ALTERNATES/w300/101_Custom_Bondor_Meeting_C.jpg
18 2 Home business_bn বাণিজ্য news-bn 213 1368227 চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 23:06:59.0 2017-07-23 00:12:30.0 বন্দরে জাহাজ জট, যন্ত্রপাতি সংকট নিরসন চান ব্যবসায়ীরা বন্দরে জাহাজ জট, যন্ত্রপাতি সংকট নিরসন চান ব্যবসায়ীরা চট্টগ্রাম বন্দরের যন্ত্রপাতি সংকট ও জাহাজ জট নিরসন এবং শুল্ক বিভাগের জনবল বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা । চট্টগ্রাম বন্দরের যন্ত্রপাতি সংকট ও জাহাজ জট নিরসন এবং শুল্ক বিভাগের জনবল বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা । false http://bangla.bdnews24.com/business/article1368227.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/101_custom_bondor_meeting_c.jpg1/ALTERNATES/w300/101_Custom_Bondor_Meeting_C.jpg
‘দেশের আমদানি রপ্তানি বাণিজ্য ও ট্রেড ফ্যাসিলিটেশন এর স্বার্থে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজ ও চট্টগ্রাম বন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার’ বিষয়ে শনিবার চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজ মিলনায়তনে মতবিনিময় সভায় তারা এ প্রসঙ্গ তুলেন।

১৯ জুলাই সচিবালয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে নৌমন্ত্রী শাজাহান খান জানান, আমদানি-রপ্তানির সুবিধার্থে ১ অগাস্ট থেকে চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর ও বেনাপোল স্থল বন্দর সপ্তাহে সাতদিন ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

সরকারের এ সিদ্ধান্তকে সবাই সাধুবাদ জানালেও বিদ্যমান বিভিন্ন সমস্যা শনিবারের সভায় তুলে ধরেন অংশগ্রহণকারীরা।

সভায় চট্টগ্রাম চেম্বারের পরিচালক অঞ্জন শেখর দাশ বলেন, বহির্নোঙরে ১০-১৫দিন একটি জাহাজ থাকছে। এতে চট্টগ্রাম বন্দরের ইমেজ সংকট হচ্ছে।

“এক মাস সময় থাকে। তার মধ্যে ১৫-২০দিন এভাবে গেলে জাহাজ ধরতে ব্যর্থ হই। রপ্তানিকারকরা অনেক পিছিয়ে যাচ্ছেন। ২৪ ঘণ্টার কথা বলছি। আসলে এখন পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার কোনো সেবাই আমরা পাই না।”

নতুন ব্যবস্থা চালু করতে হলে বন্দরে কোনোভাবেই ‘জট’ রাখা যাবে না বলেও মন্তব্য করেন চেম্বার নেতা অঞ্জন শেখর দাশ। 

এফবিসিসিআই প্রতিনিধি মাহফুজুল হক শাহ বলেন, আন্তরিকতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। কিন্তু নীতিমালা পরিবর্তন করতে হবে। এত বছরেও কেন বন্দর নিয়ে একটা মাস্টারপ্ল্যান থাকবে না?

“ইক্যুয়পমেন্ট (যন্ত্রপাতি) ক্রয় করতে পারে না কেন? যে প্রবৃদ্ধি, আগের লোকবল দিয়ে দিয়ে কাজ করা সম্ভব না।”

বিজিএমইএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মঈনুদ্দিন আহমেদ মিন্টু বলেন, বর্তমানে চট্টগ্রাম বন্দরের যে অবস্থা তাতে ইমেজ সংকট সবচেয়ে বড় সংকট। জাহাজ জট জাতীয় অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

“২০২১ সালে প্রধানমন্ত্রী পোশাকখাতে ৫০ বিলিয়ন ডলারের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা দিয়েছেন। বর্তমানে সাড়ে ২৮ বিলিয়ন ডলার রপ্তানিতে চট্টগ্রাম বন্দর হিমশিম খাচ্ছে। ২৬টি গ্যান্ট্রি ক্রেন দরকার আছে চারটি। তাও দুটি বিকল। এই লজিস্টিক সাপোর্ট দিয়ে কতটুকু সম্ভব?”

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বারের সভাপতি খলিলুর রহমান বলেন, এক্সপোর্ট কন্টেইনার বন্দরে রাখার স্থান নেই। সব ইমপোর্ট কন্টেইনার অফডকে দিয়ে দেওয়া হোক। যন্ত্র ও জনবলের অভাব আছে।

সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ কে এম আখতার হোসেন বলেন, “অফডকের পণ্য সাত-আটদিন বন্দরে পড়ে থাকে। আমদানিকারকরা ক্ষতিগ্রস্ত হন। আমরা প্রস্তুত তবে যন্ত্রপাতি না হলে সম্ভব না।”

শিপিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি শাহেদ সরওয়ার বলেন, ২ তারিখে বহির্নোঙরে আসা একটি জাহাজ বার্থিং পেয়েছে ১৪ জুলাই।

“এনসিটিতে (নিউমুরিং কন্টেইনার টার্মিনাল) যন্ত্রপাতি প্রয়োজন যাতে অফডকে দ্রুত কন্টেইনার যেতে পারে। সিটিএমএস (কন্টেইনার ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম) যথাযথভাবে কাজ করছে না।”

‘স্মার্ট পোর্ট গঠনের স্বপ্ন’

সভার শুরুতে প্রধান অতিথি এনবিআর চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সচিব নজিবুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী অনুশাসন দিয়েছেন চট্টগ্রাম বন্দর ও বেনাপোল স্থল বন্দরকে সপ্তাহে সাতদিন দৈনিক ২৪ ঘণ্টা কার্যকর রাখতে হবে। আমরা একটি স্মার্ট পোর্ট গঠনের স্বপ্ন দেখছি।

“যদি চট্টগ্রাম বন্দরকে টোয়েন্টিফোর-সেভেন এ পর্যায়ে নিতে পারি তাহলে আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে সম্পৃক্ত হতে পারব। বেশি সময় সেবা দিতে পারব। সেবা দানকারীদের দক্ষতা ও অন্যান্য বিষয়ে গুণগত উন্নতি ঘটবে।”

তিনি বলেন, আমদানি যোগ্য পণ্য মধ্যরাতে যদি ছাড় করা হয় তাহলে ব্যবসায়ীরা অত্যন্ত নির্বিবাদে স্বস্তির মাধ্যমে মালগুলো নিয়ে যেতে পারবে। দিনের বেলা মাল পরিবহনের যে ঝক্কি ঝামেলা পোহাতে হবে না।

“ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কসহ অন্য মহাসড়কে যে চাপ তা ক্রমাগতভাবে কমবে। প্রধানমন্ত্রীর এ অনুশাসন প্রায় বাস্তবায়নের পথে।”

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, গত দু’দিন ধরে যত স্টেক হোল্ডারদের সাথে কথা বলেছি সকলেই আন্তরিকভাবে সাড়া দিচ্ছেন। আজও বন্দর কর্তৃফক্ষ ও কাস্টম হাউজের সাথে আলোচনা করলাম। বিভিন্ন বিষয় পর্যালোচনা করে দেখলাম দুটি সংস্থাই প্রস্তুত।

চট্টগ্রাম কাস্টমসের কমিশনার এ এফ আবদুল্লাহ বলেন, ৯৪ জন নতুন এআরও পেয়েছি। আরও পাব। এতে জনবল সংকট সমাধান হবে। তিন শিফটে কাজ করতে সক্ষম হব।

‘স্বল্প সময়ে যন্ত্রপাতি পেতে ভাড়ায় নেওয়ার চিন্তা’

জাহাজ জটের বিষয়ে নৌসচিব অশোক মাধব রায় বলেন, বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বন্দর-কাস্টমসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সব ছুটি কাতলি করা হয়েছে। কর্মপদ্ধতি ঠিক করে দিয়েছি। সাত থেকে দশ দিনের মধ্যে সুফল পাবেন।

যন্ত্রপাতি স্বল্পতা নিরসনের বিষয়ে সচিব বলেন, স্বল্প সময়ের মধ্যে যন্ত্রপাতি সংকট নিরসনে এজেন্ট নিয়োগ করেছি, অল্প সময়ে ভাড়ায় হলেও যেন যন্ত্রপাতি আনা যায়।

“২০১৯ সালের জুনের মধ্যে প্রয়োজনের চেয়ে ১০ থেকে ২০ শতাংশ বেশি যন্ত্র থাকবে চট্টগ্রাম বন্দরে। পতেঙ্গা টার্মিনালের কাজ তিন মাসের মধ্যে শুরু হবে।”

বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম খালেদ ইকবাল বলেন, রাতে জাহাজ চলাচলের শতভাগ নিশ্চিত করা হয়েছে। গভীরতা পাঁচ মিটার বাড়িয়ে ১৭৫ মিটার করা হয়েছে।

“স্বীকার করি যন্ত্রের স্বল্পতা আছে। আগামী বছরের মধ্যে ৫১টি নতুন যন্ত্রপাতি আসবে। জেটি ও ইয়ার্ড জরুরী ভিত্তিতে বাড়াতে হবে সে লক্ষ্যে কাজ চলছে। ২০২১ সালের মধ্যে বে টার্মিনালের প্রথম ধাপের কাজ শেষ হবে।”

এনবিআর সদস্য (শুল্কনীতি) লুৎফুর রহমান ও সদস্য (ভ্যাট) সুলতান মো. ইকবাল, বিকডা সভাপতি নুরুল কাইয়ুম খান, ফ্রেট ফরোয়াডার্স অ্যাসোসিয়েশনের বোর্ড পরিচালক ফারহান এ আলম খান, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বারের সহ-সভাপতি মাহবুব চৌধুরী ও বাংলাদেশ কন্টেইনার শিপিং অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি ক্যাপ্টেন গিয়াস উদ্দিন সভায় বক্তব্য দেন।

]]>
1368226 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/101_custom_bondor_meeting_c.jpg1/ALTERNATES/w300/101_Custom_Bondor_Meeting_C.jpg
19 2 Home bangladesh_bn বাংলাদেশ news-bn 199 1368164 অপরাধ বিষয়ক প্রধান প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম অপরাধ বিষয়ক প্রধান প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 21:28:07.0 2017-07-22 21:28:07.0 ঢাকায় পুলিশ সদস্য অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে ঢাকায় পুলিশ সদস্য অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে রাজধানীর মৌচাক থেকে এক পুলিশ কনস্টেবলকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে, যিনি অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছিলেন বলে তার সহকর্মীরা জানিয়েছেন। রাজধানীর মৌচাক থেকে এক পুলিশ কনস্টেবলকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে, যিনি অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছিলেন বলে তার সহকর্মীরা জানিয়েছেন। false http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1368164.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2016/04/27/dmc_maingate.jpg/ALTERNATES/w300/DMC_main%2Bgate.jpg
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আশিকুর রহমান (২৮) রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে নিয়োজিত।

শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে মৌচাক মোড় থেকে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয় বলে মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক বাচ্চু মিয়া জানান।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, অচেতন অবস্থায় তাকে বাস থেকে মৌচাক মোড়ে নামিয়ে দেওয়া হয়েছিল বলে আশিককে হাসপাতালে নিয়ে আসা এক পুলিশ সদস্য জানিয়েছেন।

আশিকুর বিকালে রাজারবাগ থেকে বের হয়ে অন্য কোথাও যাওয়ার পথে এই ঘটনা ঘটে।

তার কী কী খোয়া গেছে সে বিষয়ে এখনও কিছু জানা যায়নি।

]]>
1142860 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2016/04/27/dmc_maingate.jpg/ALTERNATES/w300/DMC_main%2Bgate.jpg
20 2 Home ctg চট্টগ্রাম news-bn 10023 1367886 মিঠুন চৌধুরী, চট্টগ্রাম ব্যুরো বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম মিঠুন চৌধুরী, চট্টগ্রাম ব্যুরো বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম 2017-07-22 10:04:30.0 2017-07-22 10:26:16.0 জঙ্গল সলিমপুর: দুর্গম পাহাড়ে দুর্ভেদ্য সাম্রাজ্য জঙ্গল সলিমপুর: দুর্গম পাহাড়ে দুর্ভেদ্য সাম্রাজ্য সীতাকুণ্ডের জঙ্গল সলিমপুরের কয়েকশ একর এলাকায় গত এক যুগ ধরে পাহাড় কেটে গড়ে তোলা হয়েছে ৪০ হাজার মানুষের অবৈধ বসতি। সীতাকুণ্ডের জঙ্গল সলিমপুরের কয়েকশ একর এলাকায় গত এক যুগ ধরে পাহাড় কেটে গড়ে তোলা হয়েছে ৪০ হাজার মানুষের অবৈধ বসতি। false http://bangla.bdnews24.com/ctg/article1367886.bdnews false http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/102_risky_home_shitakunda_chittagong_210717_7.jpg/ALTERNATES/w300/102_Risky_Home_Shitakunda_Chittagong_210717_7.jpg
‘চট্টগ্রাম মহানগর ছিন্নমূল বস্তিবাসী সমন্বয় সংগ্রাম পরিষদে’র নেতৃত্বে সরকারি খাস জমিতে গড়ে তোলা এই ঝুঁকিপূর্ণ বসতি এখন পরিণত হয়েছে ছিন্নমূলের ‘দুর্ভেদ্য সাম্রাজ্যে’।

শুক্রবার ভোরে জঙ্গল সলিমপুরের ১ নম্বর সলিমপুর ওয়ার্ডের বিবিরহাট এলাকায় পাহাড় ধসে তিন শিশুসহ পাঁচজনের মৃত্যু হলে বহুদিন পর ওই এলাকায় গণমাধ্যমকর্মীদের পা পড়ে।

এর আগে গত এক দশকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান চলাকালে এবং ছিন্নমূলের আমন্ত্রণ ছাড়া সংবাদকর্মীরা ওই এলাকায় ঢুকতে পারেননি।

প্রশাসনিক কাঠামোতে জঙ্গল সলিমপুরের অবস্থান সীতাকুণ্ড উপজেলার আওতায় হলেও ওই এলাকায় প্রবেশ করতে হয় চট্টগ্রাম নগরীর বায়েজিদ থানার বাংলাবাজার এলাকা দিয়ে।

বাংলাবাজার এলাকা থেকে গর্তে ভরা সড়ক ধরে চার কিলোমিটার পর্যন্ত যাওয়া যায়। এরপর ডান দিকে নেমে গেছে পাহাড়ি মাটির পথ।

ওই উঁচু-নিচু পাহাড়ি পথ ধরে এক কিলোমিটারের মত এগোলে দেখা মিলবে ছিন্নমূলের বসতির। রাস্তার দু’পাশে গড়ে উঠেছে আধাপাকা মাদ্রাসা ও টিনের ঘর। খালি প্লটে জমির ‘মালিকের’ নাম লেখা ছোট ছোট বহু সাইনবোর্ড চোখে পড়ে।

এই পথ ধরে আরও এক কিলোমিটার গেলে একটি লোহার তোরণে পৌঁছানো যায়। সেখানে দেখা যায় সংগ্রাম পরিষদের পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা সম্বলিত ব্যানার টাঙানো।

২০১০ সালের জুনে এই লোহার তোরণের জায়গায় একটি পাকা গেইট ছিল। ওই সময় দুইবার সেখানে গিয়ে ছিন্নমূলের নিজস্ব নিরাপত্তা বাহিনীরও দেখা মিলেছিল।

তোরণ পেরিয়ে আধা কিলোমিটারের মতো এগিয়ে গেলে একটি মসজিদ ও মাঠ। আশেপাশে দোকানপাট; এটি ছিন্নমূলের বাজার এলাকা।

বাজার থেকে সোজা একটি এবং বাঁয়ে আরেকটি সড়ক চলে গেছে। বাঁ পাশের সড়কটি ধরে এগোলে পড়বে এস এম পাইলট স্কুল।

চট্টগ্রাম মহানগর ছিন্নমূল বস্তিবাসী সমন্বয় সংগ্রাম পরিষদের বর্তমান সভাপতি গাজী সাদেকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক কাজী মশিউর রহমান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে মশিউর বলেন, সমিতির সদস্য সংখ্যা বর্তমানে ১৫ হাজার।  আট হাজার পরিবারে প্রায় ৪০ হাজার মানুষের বসবাস সেখানে। পুরো এলাকাকে ১১টি ‘সমাজে’ ভাগ করা হয়েছে ব্যবস্থাপনার সুবিধার জন্য।  

দেশের প্রায় সব জেলার মানুষই এখানে আছে। অধিকাংশ রিকশাচালক, ঠেলাগাড়ি চালক, দিনমজুর, হোটেল বয় ও গার্মেন্টম শ্রমিক।

মশিউর জানান, তাদের ওই এলাকার ভেতরে ১২টি মসজিদ, চারটি মাদ্রাসা, তিনটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি উচ্চ বিদ্যালয়, তিনটি কেজি স্কুল, তিনটি এতিমখানা, ছয়টি কবরস্থান, পাঁচটি মন্দির, দুটি কেয়াং, একটি গির্জা, একটি শ্মশান এবং একটি কাঁচা বাজার আছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, সমিতির সদস্যপদ নিতে হয় ১৫০ টাকা দিয়ে। পরে সমিতিকে টাকা দিয়ে পাহাড়ের ভেতরে একেক খণ্ড জমির দখল নিয়ে ঘর তুলেছেন তারা।

এভাবে অবৈধ বসতি স্থাপনের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কাজী মশিউর বলেন, এখানে সবাই নিঃস্ব, নদীভাঙা দরিদ্র মানুষ। ২০০৪ সাল থেকে তাদের এই বসবাস শুরু হয়েছে।

“২০০৬ সালে একবার সরকারি এই জমির বন্দোবস্তি চেয়ে আবেদন করা হয়েছিল। এরপর ২০১৬ সালে ছয়শ একর জমির বন্দোবস্ত চেয়ে আবার আবেদন করি। সীতাকুণ্ড উপজেলা প্রশাসন বন্দোবস্তের পক্ষে মত দিয়ে একটি প্রতিবেদনও জেলা প্রশাসনের কাছে পাঠিয়েছিল।”

পাহাড়ে এই অবৈধ বসতির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ২০০৪ সালে একাধিক পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। ২০১০ সালে স্থানীয় লাল বাদশা ও আলী আক্কাসের গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে।

তখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ওই এলাকায় যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন সংবাদকর্মীরা।  ২০১০ সালের ২৩ মে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্ধুকযুদ্ধে’ আলী আক্কাস নিহত হন।

সীতাকুণ্ডের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল ইসলাম ভুঁইয়া বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “জঙ্গল সলিমপুরে অধিকাংশ পরিবারই অবৈধ ও ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। এরকম পরিবারের সংখ্যা কমবেশি ১০ হাজারের মতো।”

এই ঝুঁকির বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে সংগ্রাম পরিষদের মশিউর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, শুক্রবার ধসের পর সন্ধ্যা পর্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ ১৮টি পরিবারকে এস এম পাইলট স্কুলের আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া হয়েছে।

আর জমি বন্দোবস্তের আবেদনে উপজেলা প্রশাসনের সমর্থনের যে দাবি তিনি করেছেন, সে বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, “সরকারি জমি এভাবে বন্দোবস্ত দেওয়ার সুযোগ নেই। এটা তাদের মনগড়া বক্তব্য। ”

‘আক্কাস-পর্ব শেষ, এখন ইয়াসিন’

জঙ্গল সলিমপুরে বসতি স্থাপনের কোনো বৈধতা নেই জানিয়ে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেছেন, ওই এলাকা থেকে বসতি স্থাপনকারীদের সরানো দরকার।

পাহাড় ধসের পর শুক্রবার দুপুরে ওই এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, এসব পাহাড় বসবাসের উপযোগী নয়। কিন্তু মানুষ অবৈধভাবে ঘর তুলে তুলে চূড়ায় চলে গেছে।

“এখানে হাজার হাজার পরিবার, কোনো বৈধতা নেই। তারা দেখছে- ঘর বানালে, বসবাস করলে কোনো বাধা নেই; এজন্যই এটা ধীরে ধীরে ছড়িয়ে গেছে। এর স্থায়ী সমাধান দরকার।”

জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেন, “এটা বসবাসের জায়গা না। গ্রাম বানানো, বাজার-শহর বানানোর জায়গা না। এখানে বিদ্যুৎ আসার কথা না, কিন্তু এসেছে।

“এখানে থাকলে তারা বাঁচবে- এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই। তারা মারা যেতে পারে। তাদের বাঁচানোর জন্যই এখন সিদ্ধান্ত নিয়ে তাদের সরিয়ে দিতে হবে। কিন্তু সেটা আমরা একা পারি না। সরকারি এবং স্থানীয় পর্যায়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।”

অবৈধ বসতি স্থাপনে পৃষ্ঠপোষকতাকারীদের বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক বলেন, “আক্কাসের (আলী আক্কাস) ইতিহাস আপনারা জানেন। আক্কাসের পর্ব শেষ হয়েছে, এখন আরেক পর্ব এসেছে- ইয়াসিন। লোকে বলে- সে কোথায় থাকে, তাকে খুঁজে পাওয়া যায় না।

“এভাবে একেক সময় একেক জন হাজির হবে। নেপথ্যে থেকে এগুলো করাবে। আমাদের উচিৎ তা করতে না দেওয়া।”

ইয়াসিনের বিষয়ে জানতে চাইলে সংগ্রাম পরিষদের মশিউর বলেন, “সে আমাদের কেউ না। সেটা আলীনগর এলাকা। সলিমপুর পেরিয়ে যেতে হয়। সেখানে আমাদের চেয়েও বড় পাহাড়।”

]]>
1367885 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/102_risky_home_shitakunda_chittagong_210717_7.jpg/ALTERNATES/w300/102_Risky_Home_Shitakunda_Chittagong_210717_7.jpg 1367884 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/ctg-salimpur-google-map.jpg/ALTERNATES/w300/Ctg+Salimpur-Google+map.jpg 1367883 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/102_risky_home_shitakunda_chittagong_210717_12.jpg/ALTERNATES/w300/102_Risky_Home_Shitakunda_Chittagong_210717_12.jpg 1367882 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/101_hillslide_shitakunda_chittagong_210717_3.jpg/ALTERNATES/w300/101_Hillslide_Shitakunda_Chittagong_210717_3.jpg 1367881 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/101_hillslide_shitakunda_chittagong_210717_9.jpg/ALTERNATES/w300/101_Hillslide_Shitakunda_Chittagong_210717_9.jpg 1367880 http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2017/07/22/101_hillslide_shitakunda_chittagong_210717_18.jpg/ALTERNATES/w300/101_Hillslide_Shitakunda_Chittagong_210717_18.jpg